দৈনিক বাংলার মোড় থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

আগের সংবাদ

কক্সবাজারের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী : আগামীতেও নৌকায় ভোট চাই

পরের সংবাদ

রাজধানীর পাড়া-মহল্লায় পাহারা বসাবে আ. লীগ

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৭, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
আপডেট: ডিসেম্বর ৭, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

মুহাম্মদ রুহুল আমিন : ১০ ডিসেম্বর বিএনপির সমাবেশকে ঘিরে ঢাকার প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় সতর্ক অবস্থানে থাকবে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। ইতোমধ্যে কেন্দ্র থেকে কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণের নেতারা সেই প্রস্তুতি নিচ্ছেন। থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিটের নেতাকর্মীদের নিয়ে নিয়মিত প্রস্তুতি সভা করছেন। দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন। তার আগে ৯ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে সমাবেশ করবে। সমাবেশে প্রায় ৫ লাখ মানুষের উপস্থিতি ঘটাতে চান তারা। এই কর্মসূচি সফল করতে গত রবিবার মহানগর নাট্যমঞ্চে বর্ধিত সভা করা হয়েছে। পর দিন সোমবার রাজধানীর পুরাতন বাণিজ্যমেলার মাঠে বর্ধিত সভা করেছে মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ। ৯ ডিসেম্বর তারা উত্তরের প্রতিটি ওয়ার্ডে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে। আর ১০ ডিসেম্বর বিএনপির সম্ভাব্য নাশকতা ঠেকাতে মহানগরীর ১২৯টি ওয়ার্ডের পাড়ায়-মহল্লায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে দলটি। একইসঙ্গে সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতাকর্মীরাও স্ব স্ব এলাকায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন। বিএনপিকে কোনোভাবেই ছাড় দেবে না দলটি।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ প্রসঙ্গে বলেছেন, বিজয়ের মাসে আন্দোলন হলে রাজপথ, জনপথ, শহর, পাড়া-মহল্লা ইউনিয়ন ও জেলা পর্যায়ে নেতাকর্মীরা অবস্থান নেবে। তিনি বলেন, তারেক রহমান ঢাকার এক ক্যাডারের সঙ্গে কনভারসেশন করেছেন। লন্ডন থেকে বলেছেন, তোমরা রাস্তা ছাড়বে না, শেখ হাসিনা পালানোর পথ খুঁজছে। তার এমপি-মন্ত্রীরাও পালানোর পথ খুঁজছে। তিনি বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফখরুলের পছন্দ না। তিনি চান পল্টনে। তাদের এই দুরভিসন্ধি ধরা পড়ে গেছে। অঘটন অন্য কেউ ঘটাবে না। তারা আগুন, লাঠি ও ককটেল নিয়ে আসবে। এজন্য পল্টন তাদের কাছে নিরাপদ। সেখানে একটা ঘর আছে তাদের, সব মজুত করবে। শুনলাম বিএনপির নেতাকর্মীরা হান্ডিপাতিল, বিছানা, বালিশ, শীতের কম্বল, সঙ্গে মশার কয়েল- সব নিয়ে এসে তাবু খাটাইছে। তাদের এই অর্থের উৎস খোঁজা হচ্ছে। তিনি বলেন, ১০ ডিসেম্বর চলে গেলে জানি তারা অবরোধ ও ধর্মঘট দেবে। আবারো আগুন সন্ত্রাস করবে, লাঠি খেলা করবে। আমরা কী চুপ করে বসে থাকব? দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ললিপপ খাব? আপনারা ঢাকা দখল করবেন, হায়রে আল্লাহ। কত বড় সাহস। এ সময় তিনি সবাইকে পাড়া-মহল্লায় সতর্ক থাকার কথা বলেন।
এদিকে ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশের ভেন্যু নিয়ে অনিশ্চয়তার অবসান এখনো হয়নি। এ নিয়ে দুই পক্ষে এক ধরনের রশি টানাটানি চলছে। বিএনপি চায় নয়া পল্টনে সমাবেশ করতে। পুলিশ অনুমতি দিয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। এ বিষয়ে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলছেন, যেখানে অনুমতি দেয়া হয়েছে- আশা করি, সেখানেই বিএনপি সমাবেশ করবে। এখনো সময় আছে, অপেক্ষা করি। আর ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক বলেন, বিএনপিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি দেয়া হয়েছে। তারা সেখানেই সমাবেশ করবেন। আর ডিএমপির উপপুলিশ কমিশনার (গণমাধ্যম শাখা) মো. ফারুক হোসেন গতকাল মঙ্গলবার বলেন, বিএনপিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হয়েছে। সেখানেই সমাবেশ করতে হবে তাদের।
এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, বিএনপি বলেছে, তাদের অনেক মানুষ জড়ো হবে, সেজন্য তাদের সুবিধার্থেই পুলিশ কমিশনার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের জন্য বরাদ্দ করেছিলেন। এ জন্য ছাত্রলীগের সম্মেলনের তারিখও পরিবর্তন করা হয়েছে। কিন্তু বিএনপি তা না মেনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে যাবে বলে জানিয়েছে। তারা যদি পুলিশ কমিশনারের নিষেধ না মেনে এমনটি করে, তাহলে পুলিশ কমিশনারই এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন। ঢাকা শহর সচল রাখতে ও আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ কমিশনার প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ নেবেন।
আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, ৯ ডিসেম্বর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের জনসভায় পাঁচ লাখ মানুষের জমায়েত ঘটাতে পারলে পরের দিন ১০ ডিসেম্বর বিএনপির জনসভা ভণ্ডুল হয়ে যাবে। তিনি বলেন, বিএনপি নেতারা কয়েকদিন ধরে আগাম জানান দিচ্ছে, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে নাকি দেশ পরিচালিত হবে। তারেক রহমান নাকি ১১ তারিখ দেশে প্রত্যাবর্তন করবে। আমাদের অস্তিত্ব নিয়ে টান দিয়েছে, সেই অস্তিত্ব রক্ষায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আওয়ামী লীগ ও সব সহযোগী সংগঠনকে সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে ৯ তারিখের জনসভা সফল করতে হবে। আর ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান ভোরের কাগজকে বলেন, ১০ ডিসেম্বর আমাদের ঘোষিত বড় ধরনের কোনো কর্মসূচি নেই। তবে ওইদিন ঢাকায় বিএনপি যেন কোনো অঘটন না ঘটাতে পারে। সেজন্য নগরীর প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সতর্ক অবস্থানে থাকবে সকাল থেকেই। সেজন্য আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। নেতাকর্মীদের সব নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ঢাকার কোনো এলাকায়ই বিএনপির নেতাকর্মীরা যেন একটা টু শব্দ করতে না পারে, সেজন্য আমরা সতর্ক থাকব। আমরা প্রতিটি ওয়ার্ডে ৯ ডিসেম্বর বিক্ষোভ করব। থানা ও ওয়ার্ডের নেতারা এসব কর্মসূচিতে থাকবেন। ১০ ডিসেম্বর তারা কিছু করার চেষ্টা করলেই জনগণকে নিয়ে আমরা তাদের প্রতিহত করব। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহযোগিতা করব। কোনোভাবেই যেন আগুন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করতে না পারে। তবে আমরা ওইদিন পাল্টা কোনো কর্মসূচি দিচ্ছি না। তবে আমাদের নিয়মিত কর্মসূচি আছে। দক্ষিণ আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য আনিসুর রহমান জানান, ১০ ডিসেম্বর আমরা দক্ষিণের ৭৫টি ওয়ার্ডের প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় অবস্থান নেব। কোথাও বিএনপি কোনো নাশকতা সৃষ্টি করতে পারবে না।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়