সিদ্ধান্ত পরিবর্তন : শতভাগ যাত্রী নিয়ে চলবে গণপরিবহন

আগের সংবাদ

উৎসব-উৎকণ্ঠার ভোট আজ : সবার দৃষ্টি নারায়ণগঞ্জে > আইভী-তৈমূরের লড়াইয়ে বাড়তি মাত্রা শামীম ওসমান

পরের সংবাদ

প্রোটিয়া দুর্গ ভাঙা হলো না ভারতের

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৫, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৫, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : সেঞ্চুরিয়নে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট জয়ের পরে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে সিরিজ জয়ের স্বপ্ন দেখছিল ভারত। কিন্তু জোহানেসবার্গ ও কেপটাউনে শেষ দুটি ম্যাচ হেরে তাদের সে স্বপ্ন পূরণ হলো না। শেষ টেস্টে গতকাল প্রোটিয়াদের বিপক্ষে ৭ উইকেটের ব্যবধানে হেরে সিরিজ খুইয়েছে বিরাট কোহলিরা। এর মাধ্যমে স্বাগতিকরা সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে ২-১ ব্যবধানে।
এর আগে সিরিজের শেষ টেস্টে কেপটাউনে প্রথম ইনিংসে ভারতের ২২৩ রানের জবাব দিতে নেমে ২১০ রানে অলআউট হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। লিড নিয়ে খেলতে নেমে ঋষভ পন্ত দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করেন। তারপরও ১৯৮ রানের বেশি করতে পারেনি ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ২১২ রানের। এই লক্ষ্যে তৃতীয় দিনেই ব্যাট করতে নামে তারা। ২ উইকেট হারিয়ে আগের দিন তারা করে ১০১ রান। জয়ের পাল্লা তখনই নিজেদের দিকে হেলিয়ে দেয় স্বাগতিকরা। এর মধ্যে কাজটাকে আরো সহজ করে দেন কিগান পিটারসন। ১১৩ বল মোকাবেলা করে ১০ বাউন্ডারির সাহায্যে ৮২ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলে তিনি আউট হন শার্দূল ঠাকুরের বলে। এর আগে কেপটাউন টেস্টের প্রথম ইনিংসেও ভারতকে ভুগিয়েছেন পিটারসন। ১৬৬ বল মোকাবেলা করে খেলেন ৭২ রানের ইনিংস। তার ওই ইনিংসটি সাজানো ছিল ৯টি বাউন্ডারিতে। টানা দুই ইনিংসে দারুণ দুটি অর্ধশতক রানের ইনিংস খেলে ম্যাচ জয়ে ভূমিকা রাখার পুরস্কারও পান তিনি। হয়েছেন ম্যাচসেরা। পুরো সিরিজে তিনটি অর্ধশতক রানের ইনিংস খেলে সিরিজসেরাও হয়েছেন পিটারসেন। এর আগে গতকাল সিরিজের শেষ টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে তার ক্যাচ ফেলে দিয়েছিলেন চেতেশ্বর পূজারা। তবে পিটারসন ফিরলেও জিততে খুব একটা সমস্যা হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার। রাসি ভ্যান ডার ডাসেন ৪১ ও টেম্বা বাভুমা ৩২ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন। ডাসেন ৯৫ বল মোকাবেলা করে ৩ বাউন্ডারির সাহায্য তার ইনিংসটি সাজান। অন্যদিকে বাভুমা ৫৮ বল মোকাবেলা করে ৫টি বাউন্ডারি হাঁকান। এর আগে কেপটাউন টেস্টের তৃতীয় দিন এইডেন মারক্রাম ২২ বলে ১৬ ও ডিন এলগার ৯৬ বলে ৩০ রানের ইনিংস খেলে আউট হয়েছিলেন। ভারতীয় বোলার জসপ্রীত বুমরাহ, মোহাম্মদ শামি ও শার্দূল ঠাকুর একটি করে উইকেট শিকার করেন। শেষ ইনিংসে একটি উইকেটের জন্য কতটা মরিয়া ছিল ভারত? প্রমাণ পেতে হলে দেখতে হবে কেপ টাউন টেস্টের তৃতীয় দিনের ফুটেজ। ডিন এলগার আউট হওয়ার পর সিদ্ধান্ত পক্ষে যায়নি বলে স্টাম্প মাইকে এসেই বিভিন্ন মন্তব্য করেছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। উইকেটের জন্য যখন এতটা মরিয়া তারা, তখনই কি না চেতেশ্বর পূজারা ফেলে দিলেন ক্যাচ! সঙ্গে কি তিনি নিজেকেও জাতীয় দল থেকে ফেলে দিলেন কিনা সে প্রশ্নও উঠে গেছে। পূজারার আগে ও পরে আম্পায়ারের কয়েকটি সিদ্ধান্তও যায়নি ভারতের পক্ষে। এর আগে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়া ভারতের হাল ধরেন ঋসভ পন্ত। দুর্দান্ত এক শতক তুলে নিয়ে ভারতকে সিরিজ জয়ের স্বপ্ন দেখান। কিন্তু অন্যদের সঙ্গ না পাওয়ায় প্রোটিয়াদের ঘায়েল করার মতো স্কোর জমা হয়নি ভারতের খাতায়। কেপটাউনে সিরিজের তৃতীয় টেস্টে ক্যারিয়ারের চতুর্থ শতকটা তুলে নেন পন্ত। ভারতের কোনো উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে এর আগে ৯০ রানের বেশি করতে পারেননি।
পন্ত ছয় নম্বরে নেমে ১০০ রান করেছেন, তাকে শেষ পর্যন্ত আউট করতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। পন্তের হার না মানা শতকের পরও ভারত গুটিয়ে গেছে মাত্র ১৯৮ রানে। কেপটাউনে শেষ ইনিংসে পন্তের পর ভারতের সর্বোচ্চ ইনিংসটা ২৯ রানের। সেটি করেছেন বিরাট কোহলি। ২৯ রান করতে ভারত অধিনায়ক খেলেছেন ১৪৩ বল। আর পন্ত ১০০ রান করেছেন ১৩৯ বলে।
পন্তের এমন ইনিংসের পর দক্ষিণ আফ্রিকার কাজটা হয়ে পড়েছিল কঠিন। কেপটাউনে ২০০-এর ওপর রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড আছে তিনটি, সর্বশেষটি এসেছিল ২০১১ সালে। তবে ব্যাটসম্যানদের পরে ভারতীয় বোলারদের ব্যর্থতায় শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জিতে নেয় প্রোটিয়ারা। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকায় টেস্ট সিরিজ জয়ের অধরা অর্জন ছোঁয়া হয়নি বিরাট কোহলির দলের।
এর আগে সিরিজের প্রথম টেস্টে ১১৩ রানের বড় জয় তুলে নিয়েছিল ভারত। ১২৩ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলে দলের জয়ে দারুণ ভূমিকা রেখেছিলেন লোকেশ রাহুল। তবে শেষ দুটি টেস্টে তার ব্যাট দলের চাওয়ার সঙ্গে তাল মিলিয়ে আলো ছড়াতে পারেনি। সে ম্যাচে অবশ্য ভারতের বোলারদেরও ভালো ভূমিকা ছিল জয় তুলে নিতে। প্রথম ম্যাচ জয়ের পর ভারত স্বপ্ন দেখেছিল দ্বিতীয় ম্যাচে জয় তুলে জোহানেসবার্গেই সিরিজ নিশ্চিত করতে। কারণ এর আগে ভারত এই মাঠে কখনো স্বাগতিকদের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচ হারেনি। তবে অতীত সব পরিসংখ্যান মিথ্যা প্রমাণ করে ভারত এই ম্যাচে হেরেছিল ৭ উইকেটের ব্যবধানে। আগামী বুধবার বোল্যান্ড পার্কে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ম্যাচে দুই দল পরস্পরের মুখোমুখি হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়