দেশে ২ মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৮৪৬

আগের সংবাদ

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে সেমিতে অস্ট্রেলিয়া

পরের সংবাদ

ব্রাজিলের বিপক্ষে মেসির ফেরা নিয়ে সংশয়

প্রকাশিত: নভেম্বর ৬, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ৬, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক: আগামী বছর কাতারে শুরু হচ্ছে ২২তম ফিফা বিশ্বকাপ আসর। ৩২ দেশের অংশগ্রহণে ২০২২ সালের নভেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হবে বিশ্বের আকর্ষণীয় প্রতিযোগিতাটি। সে তালিকায় জায়গা করে নিতে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে আগামী ১৭ নভেম্বর চির প্রতিদ্ব›দ্বী ব্রাজিলের মুখোমুখি হচ্ছে আর্জেন্টিনা। তবে সে ম্যাচে থাকা নিয়ে সংশয় রয়েছে দলটির মহতারকা লিওনেল মেসির। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট ও হাটুর ইনজুরিতে আপাতত চিকিৎসায় আছেন তিনি। যার কারণে উয়েপা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে পিএসজির জার্সি গায়ে আরবি লাইপজিগের বিপক্ষে একাদশে ছিলেন না তিনি। এর আগে গত ৬ সেপ্টেম্বর ব্রাজিলের বিপক্ষে মাঠে নেমেও বিতর্কের ছেড়ে মাঠ ছেড়ে যায় আর্জেন্টিনার ফুটবলাররা। স্বাস্থ্যবিধি না মানার অভিযোগে ব্রাজিলে সফররত আর্জেন্টাইনদের সঙ্গে স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের বিতর্ক বাধে এবং একসময় ম্যাচটি স্থগিত হয়ে যায়।
চলতি মাসে লাতিন আমেরিকার অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইয়ে দুইটি ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা। আগামী ১৩ নভেম্বর উরুগুয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে মাঠে নামবে মেসিরা। এরপর তিন দিন বিরতি দিয়ে আগামী ১৭ নভেম্বর মুখোমুখি হবে দুই চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। এই ম্যাচগুলোর জন্য ঘোষিত আর্জেন্টাইন স্কোয়াডে মেসির নাম থাকলেও একাদশে তাকে যথাসময়ে পাওয়া নিয়ে রয়েছে সংশয়। কারণ হ্যামস্ট্রিং ও হাটুর ইনজুরিতে পড়ে তিনি এখন চিকিৎসা নিচ্ছেন। ঠিক কবে সুস্থ হয়ে মাঠে ফিরবেন তা বলে দেয়া কঠিন। এর আগে লিলের বিপক্ষে শেষ ফ্রেঞ্চ লিগের ম্যাচে আগেভাগে মাঠ থেকে তুলে নেয়া হয় মেসিকে। এরপর ক্লাব নিশ্চিত করে, বাঁ পায়ে হ্যামস্ট্রিংয়ের অস্বস্তি ও হাঁটুর ব্যথায় লাইপজিগের বিপক্ষে খেলতে পারবেন না এই ৩৪ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড। পিএসজি অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এক বিবৃতি জানায়, ‘আঘাতের কারণে লিওনেল মেসির বাঁ পায়ে হ্যামস্ট্রিংয়ের অস্বস্তিবোধ হচ্ছে এবং হাঁটুতেও ব্যথা।’
তবে মেসির সুস্থ হতে কতদিন লাগবে তা নিশ্চিত করে জানায়নি পিএসজি। ধারণা করা হচ্ছিল, তার যে ইনজুরি তাতে একাধিক ম্যাচে বাইরে থাকতে হতে পারে তাকে। বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত সেপ্টেম্বরে আর্জেন্টিনার হয়ে খেলার সময় থেকে হাঁটু ব্যথায় ভুগছেন মেসি। বিশেষজ্ঞের চিকিৎসা নিতে স্পেনে যাচ্ছেন বলে শোনা যাচ্ছে। ফলে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে তার মাঠে নামা নিয়েও রয়েছে সংশয়।
কাতার বিশ্বকাপের পথ এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করেছে তিনটি দেশ। এর মধ্য একটি আয়োজক দেশ কাতার, অন্য দুইটি ইউরোপ থেকে জার্মানি ও ডেনমার্ক। তবে এখনো লাতিন আমেরিকা অঞ্চল থেকে কাতার যাত্রা নিশ্চিত করেনি কোনো দল। বিশ্বকাপে অংশ নিতে লাতিন আমেরিকা নিতে বাছাইপর্বে অংশ নিয়েছে ১০ টি দেশ। এর মধ্য পয়েন্ট টেবিলের সেরা পাঁচটি দল পাবে কাতারের টিকিট। ১১ ম্যাচে ১০ জয় ও এক ড্রয়ে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলে সবার শীর্ষে ব্রাজিল। সমান সংখ্যক ম্যাচে ৭ জয় ও ৪ ড্রয়ে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দুইয়ে আর্জেন্টিনা। তিনে থাকা ইকুয়েডরের ১২ ম্যাচে সমান ৫ জয় ও হার এবং ২ ড্রয়ে পয়েন্ট সংখ্যা ১৭। চারে থাকা কলম্বিয়ার ১২ ম্যাচে ৩ জয়, ৭ ড্র ও ২ হারে পয়েন্ট সংখ্যা ১৬। ১২ ম্যাচে সমান ৪ জয়, ড্র ও হারে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে উরুগুয়ে। বিশ্বকাপে লাতিন আমেরিকার একেকটি দল খেলবে ১৮টি ম্যাচ। ফলে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার কাতার যাত্রা অনেকটা নিশ্চিত হলেও বাকি দলগুলো এখনো রয়েছে শঙ্কায়।
এর আগে গত সেপ্টেম্বরে ব্রাজিলের বিপক্ষে তাদের ঘরের মাঠে ম্যাচ খেলতে নামলেও শেষ পর্যন্ত ম্যাচ না খেলে ফিরে আসেন আর্জেন্টাইনরা। সেদিন মাঠের ভিতরে ঘটে এমন সব কান্ড, যা আগে কখনো দেখেনি ফুটবল বিশ্ব। ম্যাচ চলাকালীন হঠাৎ করে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচের সপ্তম মিনিটে খেলা বন্ধ হয়ে যায়। ব্রাজিলের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একাধিক কর্মকর্তা নিয়ে মাঠে হানা দেয়। কোয়ারেন্টিন শর্ত মানেননি আর্জেন্টিনার এমন চার খেলোয়াড়কে আটক করার জন্য। সেই জের ধরে ম্যাচ আর মাঠেই গড়ায়নি। শেষ পর্যন্ত লাতিন আমেরিকার নিয়ন্ত্রণ সংস্থা কনমেবল সে সময় টুইটার বার্তায় দুই চিরপ্রতিদ্ব›দ্বীর লড়াইটি আনুষ্ঠানিকভাবে স্থগিত করে।
এই বিষয়ে কনবেমল সে সময় জানায়, এটা ফিফার প্রতিযোগিতা। ম্যাচ অফিসিয়ালরা ফিফার ডিসিপ্লিনারি কমিটির কাছে প্রতিবেদন জমা দেবে। এরপর ম্যাচের ভবিষ্যত নিয়ে তারাই সিদ্ধান্ত নেবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত ওই স্থগিত ম্যাচের পূণর্সূচি নির্ধারণ করেনি ফিফা। সে সময় ব্রাজিলের করোনা পরিস্থিতি ছিল অনিয়ন্ত্রিত। ইংল্যান্ড থেকে ব্রাজিলে ফিরতে হলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শর্ত মানার বাধ্যবাধকতা ছিল। কিন্তু আন্তর্জাতিক মিডিয়ার সংবাদে জানা যায় তখন ইংলিশ লিগে খেলা আর্জেন্টিনার চার খেলোয়াড় তা মানেননি। তা না মেনেই ব্রাজিলের বিপক্ষে স্কোয়াডে ছিলেন। এর মধ্যে তিনজন আবার একাদশে। যে কারণে ব্রাজিলের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ ম্যাচ চলাকালেই মাঠে হানা দিয়েছিল। তবে ম্যাচ হঠাৎ বন্ধ হয়ে যাওয়াতে আর্জেন্টিনার কোচ স্কালোনি মোটেও খুশি হতে পারেননি সেদিন। তিনি তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তখন বলেন, ‘এটা আমাকে অনেক দুঃখ দিয়েছে। আমি কাউকে দোষারোপ করতে আসিনি। এটা সবার জন্য একটা উৎসবের ক্ষেত্র হওয়া উচিত ছিল। বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়দের খেলা উপভোগ করার কথা ছিল। আমি চাই আর্জেন্টাইন জনগণ যেন বুঝতে পারে, কোচ হিসেবে নিজের খেলোয়াড়দের রক্ষা আমাকে করতেই হবে।’ আর্জেন্টাইন কোচ দাবি করেন, চার ফুটবলারের ব্রাজিল ম্যাচে খেলা নিয়ে আপত্তির কথা তাদের কেউ জানায়নি। কোচের ভাষ্য, ‘কোনও সময় আমাদের জানানো হয়নি যে এরা কেউ খেলতে পারবে না। আমরা ম্যাচটা খেলতে চেয়েছিলাম। ব্রাজিলিয়ান ফুটবলারও তাই চেয়েছে।’

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়