টিপু হত্যা মামলা : মুসার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

আগের সংবাদ

ভিটাহীন সংসার, আকাশ মাথায় : বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এখনো পানির নিচে, সিলেট-সুনামগঞ্জে নতুন করে বাড়ছে পানি

পরের সংবাদ

জমে উঠেছে ইউরোপীয় ফুটবলের দলবদল : আর্সেনালে জেসুস লস অ্যাঞ্জেলেসে বেল

প্রকাশিত: জুন ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : ইউরোপীয় ফুটবলের দলবদল বেশ জমে উঠেছে। প্রতিদিনই কেউ না কেউ দলবদল করছেন। কে কোথায় যাচ্ছেন তা নিয়ে সমর্থকদের কৌতূহলের শেষ নেই। ম্যানচেস্টার সিটি ছেড়ে আর্সেনালে যোগ দিয়েছেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছেন গ্যারেথ বেল। যোগ দিয়েছেন মেজর লিগ সকারের ক্লাব লস অ্যাঞ্জেলেস এফসিতে। আপাতত চুক্তি ১২ মাসের, তবে শর্ত সাপেক্ষে আরো ১৮ মাস চুক্তিটা বাড়িয়ে নেয়ার সুযোগ থাকবে। রিয়াল মাদ্রিদ অধ্যায় শেষে কোথায় যাচ্ছেন বেল, এ নিয়ে অনেক গুঞ্জনই ছিল। তবে এক সময় বিশ্ব সেরাদের আলোচনায় থাকা বেলের জন্য হয়তো কিছুটা দুর্ভাগ্যই যে গুঞ্জন খুব বড় ক্লাবের তেমন ছিল না। এক টটেনহ্যামের নাম কিছুটা শোনা গেছে, তাও সেটি টটেনহ্যাম বেলের পুরনো ক্লাব বলেই। পুরনো ক্লাব সাউদাম্পটন আর ওয়েলশ ক্লাব কার্ডিফ সিটির নামও এসেছে গুঞ্জনে। তবে শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রেই গিয়েছেন বেল। অন্যদিকে কারিম বেনজেমার ব্যাকআপ খুঁজছে রিয়াল মাদ্রিদ। সেই তালিকায় নাকি আছেন ইন্টার মিলানের অভিজ্ঞ স্ট্রাইকার এডিন জেকো। ইন্টার মিলানের হয়ে গত মৌসুমের ১৭ গোল করলেও মূল একাদশে নিয়মিত ছিল না ৩৬ বছর বয়সি এই খেলোয়াড়। বেনজেমা ইনজুরিতে পড়লে তার বিকল্প হিসেবে পরীক্ষিত এই স্কোরারের সার্ভিস চান রিয়াল কোচ অ্যানচেলোত্তি।
ফরোয়ার্ডের খোঁজে আছে ইংলিশ জায়ান্ট চেলসিও। লুকাকুর বদলি হিসেবে ম্যানসিটির ইংলিশ তারকা রাহিম স্টারলিংকে চায় ব্লæরা। স্কোয়াডে হাল্যান্ড যুক্ত হওয়ায়, উপযুক্ত ট্রান্সফার ফি’তে চেলসির প্রস্তাবে রাজি হওয়ার কথা ম্যানসিটির। দলবদলের বাজারে সরব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডও। সাবেক ক্লাব আয়াক্স থেকে ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার অ্যান্টনিকে দলে ভেড়াতে চান রেড ডেভিল কোচ এরিক টেন হাগ। এছাড়াও ডেনিশ মিডফিল্ডার এরিকসনের সার্ভিসও পেতে চায় ম্যানইউ। তবে এরিকসনের প্রথম পছন্দ নাকি সাবেক ক্লাব টটেনহ্যাম। আরেক ইংলিশ ক্লাব নিউক্যাসল ইউনাইটেড বরুশিয়া ডর্টমুন্ড থেকে দলে নিতে চায় মিডফিল্ডার থ্রোগান হ্যাজার্ডকে।
দলবদলের বাজারে আছে প্যারিস সেন্ট জার্মেইনও। ইন্টার মিলানের স্লোভাকিয়ান ডিফেন্ডার মিলান স্ক্রিনিয়ারকে পেতে ৬০ মিলিয়নের প্রস্তাব দিয়েছে ফ্রান্সের ক্লাবটি। কিন্তু এখনো পিএসজির প্রস্তাব গ্রহণ করেনি ইন্টার মিলান।
মৌসুম শেষ হলেই জুভেন্তাসের সঙ্গে সম্পর্ক চুকে যাবে পাওলো দিবালার, ফ্রি ট্রান্সফারে তাকে দলে টানতে পারবে কোনো ক্লাব- বিষয়টি চূড়ান্ত হওয়ার পর থেকেই তার পরবর্তী গন্তব্য নিয়ে নানা গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। বেশ জোরেশোরে আলোচিত হচ্ছে ইন্টার মিলানের নাম। ক্লাবটির সাবেক ফরোয়ার্ড দিয়াগো মিলিতো বলেন, সুযোগ থাকলে অবশ্যই দিবালাকে দলে টানা উচিত ইন্টার মিলানের।
চলতি মাসেই শেষ হয়ে যাচ্ছে জুভেন্তাসের সঙ্গে দিবালার চুক্তির মেয়াদ। সংবাদমাধ্যমের খবর, তাকে দলে টানতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে গত মৌসুমে লিগে রানার্সআপ হওয়া ইন্টার মিলান। জুভেন্তাসের হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ২৯৩ ম্যাচে ১১৫টি গোল করেছেন দিবালা। পাঁচটি সেরি আ-সহ জিতেছেন আরো বেশ কয়েকটি শিরোপা। দিবালার মাপের একজন খেলোয়াড়কে খুব করে ইন্টার মিলানে দেখতে চান মিলিতো। ২০০৯-১০ মৌসুমে ক্লাবটির হয়ে ট্রেবলজয়ী এই ফুটবলার লা গাজ্জেত্তা দেল্লো স্পোর্তকে বলেন, দিবালার উপস্থিতি ইন্টারকে আরো শক্তিশালী করবে। ব্যক্তিগত শর্তে সম্মতির পর ম্যানচেস্টার সিটি থেকে আর্সেনালে যোগ দিতে যাচ্ছেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। ম্যানচেস্টার সিটি ছেড়ে নতুন ক্লাবে পাঁচ বছরের চুক্তি করতে যাচ্ছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। দুই ক্লাবের মধ্যে সমঝোতা শেষে সাড়ে চার কোটি পাউন্ডে এই স্ট্রাইকার চলে যাচ্ছেন। আর্সেনালের ব্রাজিলিয়ান টেকনিক্যাল ডিরেক্টর এদু ও প্রধান কোচ মাইকেল আর্তেতা জেসুসকে এ প্রস্তাব গ্রহণে ভূমিকা রেখেছেন।
বরুশিয়া ডর্টমুন্ড থেকে সিটিতে আর্লিং হাল্যান্ড আসায় পরের মৌসুমে মূল স্ট্রাইকার হিসেবে খেলার সুযোগ কমে আসবে, এমনটা ধারণা করেছিলেন শেষ মৌসুমে পা রাখতে যাওয়া জেসুস। শেষ পর্যন্ত সিটিজেনদের সঙ্গে সাড়ে পাঁচ বছরের সম্পর্ক ছিন্ন করতে বাধ্য হলেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। ২০১৭ সালে পালমেইরাস থেকে ক্লাবটিতে যোগ দেন তিনি।
পেপ গার্দিওলার অধীনে জেসুস আক্রমণে নিয়মিত ছিলেন। কিন্তু নয় নম্বর হিসেবে সুযোগ পেয়েছেন খুব কম। গত মৌসুমে ২৮ প্রিমিয়ার লিগ ম্যাচে করেন ৮ গোল। মারকুইনহোস, ম্যাট টার্নার ও ফ্যাবিও ভিয়েইরার পর চতুর্থ খেলোয়াড় হিসেবে ২৫ বছর বয়সি জেসুসের সঙ্গে চুক্তি করল আর্সেনাল।
জুভেন্তাসের জার্সিতে চার মৌসুম কাটানোর পর ২০২১-২২ মৌসুমের আবারো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের জার্সি গাে তোলেন রোনালদো।
নতুন করে রেড ডেভিলদের সঙ্গে মাত্র এক মৌসুম শেষ করেছেন তিনি। কিন্তু এই গ্রীষ্মকালীন দলবদলে রোনালদোর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে অনেকটা ছাড়তে চাচ্ছে না। পুরোপুরি মনের ভাব প্রকাশ না করলেও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের শিবিরে সন্তুষ্ট নন তিনি। প্রিমিয়ার লিগে ষষ্ঠ স্থানে থেকে মৌসুম শেষ করায় চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতা সিআর সেভেন আগামী মৌসুমে ইউরোপের শীর্ষ টুর্নামেন্ট উয়েফা চ্যাম্পিয়নশিপ খেলতে পারবেন না। যেখানে অন্যান্য বিশ্বনন্দিত ফুটবলার যেমন- মেসি, নেইমার, এমবাপ্পে, সালাহ এরা সবাই অংশগ্রহণ করতে পারবে। এর পরিবর্তে খেলবেন দ্বিতীয় সারির টুর্নামেন্ট ইউরোপা লিগে। শুধু যে চ্যাম্পিয়নশিপে অংশগ্রহণ করতে না পারার আক্ষেপ তা নয়। চলতি দলবদলে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের নীরবতা তাকে আরো অস্থির করে তুলেছে। অন্যান্য দলগুলো যেখানে নতুন ফুটবলারদের সঙ্গে চুক্তি করে নতুন আঙ্গিকে দল সাজানোর দিকে মনোনিবেশ করছে সেখানে ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং থেকে শুরু করে ইউরিয়েন তিম্বার, আন্তোনি, লিসান্দ্রো মার্তিনেজের মতো একাধিক তরুণ প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের সঙ্গে ইউনাইটেডের নাম জড়ালেও কাউকে দলে টানার ব্যাপারে এখনো সফল হয়নি ইউনাইটেড। আর এটাই হয়েছে রোনালদোর বিরক্তির কারণ। যে কারণে আগামী মৌসুমে বায়ার্ন মিউনিখে নাম লিখিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে হাজির হওয়ার স্বপ্নটা এখনো টিকিয়ে রাখছেন রোনালদো। ইউনাইটেডের সঙ্গে চুক্তির এক বছর বাকি থাকলেও এখনই ক্লাব ছাড়ার বিষয়টি ভাবছেন। অপরদিকে বায়ার্ন মিউনিখের রেকর্ড গড়া পোলিশ ফরোয়ার্ড রবার্তো লেভানদোভস্কি যে কোনো মূল্যে বায়ার্ন মিউনিখ ছাড়তে চাইছেন। চুক্তির মেয়াদ অনুসারে বায়ার্নে লেভানদোভস্কির আরো এক বছর থাকার কথা থাকলেও তিনি এই গ্রীষ্মেই দল পরিবর্তন করতে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। লিওনেল মেসির সাবেক ক্লাব বার্সেলোনায় যেতে শুরু থেকেই অধীর আগ্রহের সঙ্গে আছেন লেভানদোভস্কি। কিন্তু বার্সা ও বায়ার্নের লেনদেনের চুক্তিতে সামঞ্জস্যতা অর্জন না হওয়ায় তা আরো সময় সাপেক্ষ হচ্ছে। ইতোমধ্যে বায়ার্ন মিউনিখকে সাড়ে তিন কোটি ইউরোর একটা প্রস্তাব পাঠিয়েছে বার্সা। সঙ্গে বিভিন্ন পারফরম্যান্স সংক্রান্ত শর্তপূরণ সাপেক্ষে আরো ৫০ লাখ ইউরো আয়ের সুযোগও দিয়েছে বায়ার্নকে। কিন্তু বায়ার্ন তাদের দাবি অনুযায়ী ৫ কোটি ইউরোর কমে লেভানদোভস্কিকে ছাড়বে না। সেই সঙ্গে পুরো টাকা একসঙ্গে চায় তারা। কেননা, আর্থিক সমস্যার মধ্যে দিয়ে বার্সেলোনা তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করার ফলে পরবর্তী সময় বিভিন্ন বোনাসের নামে টাকা আদৌ পরিশোধ করতে পারবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে জার্মান ক্লাবটি। এজন্য দুই অসুখী ফরোয়ার্ডকে নিজেদের মধ্যে অদল-বদল করার দাবি জানিয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়