নতুন রাজনৈতিক দল নিবন্ধনের গণবিজ্ঞপ্তি

আগের সংবাদ

অনুমোদনহীন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার : অভিযানে বন্ধ অনেক প্রতিষ্ঠান

পরের সংবাদ

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন : প্রতীক পেয়ে প্রচারে নিজাম রিফাত-সাক্কু নামছেন আজ

প্রকাশিত: মে ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মে ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক, কুমিল্লা : কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে শুরু হয় এ প্রতীক বরাদ্দ। প্রতীক বরাদ্দ পেয়েই জুমার নামাজের পর থেকে নগরীতে শুরু হয়েছে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা। মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের পক্ষে নগরীর রাস্তায় মাইকিং করে নানা সেøাগান দিতে দেখা গেছে। অনেক ওয়ার্ডে প্রার্থীদের সমর্থকদের রশি দিয়ে পোস্টার টানাতেও দেখা যায়।
বিকাল সাড়ে ৩টা থেকে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী নিজাম উদ্দিন কায়সার। তবে নৌকার প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত ও সাবেক মেয়র স্বতন্ত্র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় নামেননি। প্রচারণার প্রথম দিন বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে নগরীর ২১ নম্বর ওয়ার্ডের নোয়াগাঁও এলাকা থেকে সমর্থকদের নিয়ে প্রচারণা শুরু করেন সদ্য স্বেচ্ছাসেবক দল থেকে বহিষ্কৃত স্বতন্ত্র প্রার্থী নিজাম উদ্দিন কায়সার। পরে তিনি একই ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে ভোটারদের কাছে গিয়ে

ভোট চান এবং তাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এ সময় কায়সার সাংবাদিকদের বলেন, একটি আধুনিক নগরী গড়ার স্বপ্ন নিয়ে তিনি ভোট যুদ্ধে নেমেছেন। নগরীকে তিনি ‘ক্লিন এন্ড গ্রিন’ সিটিতে রূপান্তর করতে চান। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট হলে তিনি বিজয়ের ব্যাপারে আশাবাদী বলে জানান।
অন্যদিকে নৌকার প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত ও সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু শুক্রবার আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় নামেননি। সাক্কু প্রতীক পেয়ে বাসায় ফিরে দিনভর দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে বৈঠক করেছেন বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতের নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্বে থাকা দলের মহানগর শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবিদুর রহমান জাহাঙ্গীর বলেন, আজ (গতকাল) বাদ মাগরিব নির্বাচনী প্রধান কার্যালয় উদ্বোধন ও মিলাদ শেষে দলীয় নেতাকর্মীরা বসে কর্মপরিকল্পনা ঠিক করা হবে এবং শনিবার (আজ) সকাল থেকে আমরা আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করব। তিনি বলেন, নৌকার বিজয়ের প্রশ্নে কোনো সংশয় ও মতবিরোধ নেই। ১৫ জুন বিকালে নৌকার বিজয় মিছিলই তা প্রমাণ করবে ইনশাআল্লাহ।
মনিরুল হক সাক্কু বলেন, দুই মেয়াদে সিটির মেয়র থাকাকালীন সময়ে নগরবাসীর অধিকাংশ সমস্যাই সমাধান করা হয়েছে এবং বেশ কিছু উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পথে রয়েছে। তিনি আরো বলেন, শনিবার (আজ) সকাল থেকে প্রচারণা শুরু করব। সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন হলে তিনি বিজয়ী হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
এর আগে শুক্রবার সকালে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া শুরু হয়। রিটার্নিং অফিসার শাহেদুন্নবী চৌধুরী প্রার্থীদের হাতে প্রতীকের কাগজ হস্তান্তর করেন। মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে নৌকার প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতের পক্ষে মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবিদুর রহমান জাহাঙ্গীর ও আতিক উল্লাহ খোকন প্রতীক গ্রহণ করেন। অন্য মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে রাশেদুল ইসলাম ছাড়া অন্য তিন মেয়র প্রার্থী উপস্থিত থেকে প্রতীকের কাগজ গ্রহণ করেন। মেয়র পদে আরফানুল হক রিফাত ‘নৌকা’, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু ‘টেবিল ঘড়ি’, নিজাম উদ্দিন কায়সার ‘ঘোড়া’, কামরুল আহসান বাবুল ‘হরিণ’ এবং ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের রাশেদুল ইসলাম ‘হাতপাখা’ প্রতীক পেয়েছেন। একই অনুষ্ঠানে পরে সংরক্ষিত ওয়ার্ডে নারী ও সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়।
নির্বাচনে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকায় আছেন মেয়র পদে পাঁচজন এবং সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ১০৬ জন ও সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে ৩৬ জনসহ মোট ১৪৭ জন প্রার্থী। সিটির ২৭টি সাধারণ ও ৯টি সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে মোট ভোটার ২ লাখ ২৭ হাজার ৭৯২ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ১১ হাজার ৬শ ও নারী ১ লাখ ১৬ হাজার ১৯১ জন। ১০৫ ভোটকেন্দ্রের সবকটিতে ইভিএমে ভোট নেয়া হবে আগামী ১৫ জুন। রিটার্নিং কর্মকর্তা রাশেদুন্নবী চৌধুরী বলেন, প্রতীক বরাদ্দের সময় নির্র্বাচনী আচরণবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করতে সব প্রার্থীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একটি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে আশা করি প্রার্থীরা এ বিষয়ে সহযোগিতা করবেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়