জরায়ুমুখের ক্যান্সার সচেতনতা দিবস আজ

আগের সংবাদ

উৎসবমুখর নারায়ণগঞ্জ : প্রচারণায় এগিয়ে আইভী

পরের সংবাদ

ভোট ঘিরে ফের মুখোমুখি আইভী ও শামীম ওসমান!

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৯, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
আপডেট: জানুয়ারি ৯, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কামরুজ্জামান খান : ঢাকার পাশে শিল্পনগরী খ্যাত নারায়ণগঞ্জ মহানগর দেশের অর্থনৈতিক কমর্কাণ্ডের অন্যতম কেন্দ্র। নানা কারণে এর রাজনৈতিক গুরুত্বও কম নয়। আগামী ১৬ জানুয়ারি নারায়ণ সিটি (নাসিক) নির্বাচন। এরই মধ্যে জমে উঠেছে ভোটের লড়াই। এখানে মেয়র পদে প্রার্থী সাতজন থাকলেও মূল প্রতিদ্ব›িদ্বতায় মুখোমুখি আওয়ামী লীগ মনোনীত বিদায়ী মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও বিএনপি থেকে পদচ্যুত স্বতন্ত্র প্রার্থী এডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। তবে ভোটের মাঠে না থেকেও আলোচনায় রয়েছেন নারায়ণগঞ্জের শীর্ষ রাজনীতিক শামীম ওসমান এমপি। স্থানীয় রাজনীতিতে আইভী ও শামীম বরাবরই পৃথক বলয়ে। আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ দ্ব›েদ্ব তারা পরস্পরের প্রতিপক্ষ। ভোট এলেই এই দ্ব›দ্ব বাড়ে তাদের। এবারো সিটি করপোরেশন নির্বাচন সামনে রেখে আলোচনায় দুই নেতার বিরোধ। আইভী সমর্থকদের অভিযোগ, শামীম ওসমান ও তার পরিবারের সমর্থন পাচ্ছেন তৈমূর। এতদিন বিষয়টি ওপেন সিক্রেট হলেও এখন তা একেবারেই প্রকাশ্যে। মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিস্ফোরক মন্তব্য ঘিরে ভোটযুদ্ধের মধ্যেই জমে উঠেছে ক্ষমতাসীন দলের দুই শীর্ষ নেতার বাকযুদ্ধ। ডা. আইভী গতকাল অভিযোগ করেছেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা তৈমূর আলম খন্দকার হচ্ছেন শামীম ওসমান ও তার ভাই সেলিম ওসমানের প্রার্থী। তার এ বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন শামীম ওসমান। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আইভীকে একহাত নিয়েছেন তিনিও।
নাসিক নির্বাচনকে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের হাইকমাণ্ড। বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে শেষ এই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে চোখ রাখছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বয়ং। দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানকের নেতৃত্বে গঠিত নির্বাচন কমিটি সর্বশক্তি নিয়োগ করেও যেন স্বস্তিতে নেই। তারা তৈমূর আলম খন্দকারকে এবার আইভীর শক্ত প্রতিদ্ব›দ্বী হিসেবে দেখছেন। বিএনপি তৈমূরকে দলের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিলেও সেখান সব পর্যায়ের নেতাকর্মীরা তার সঙ্গে ভোটের মাঠে সক্রিয়। এর মধ্যে প্রতিদ্ব›দ্বী দুই প্রার্থী আইভী-তৈমূরের মধ্যে চলছে বাহাস।
আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও নাগরিক পরিষদের নাম করে দাঁড়ানো

তৈমূর আলম খন্দকারের মধ্যে লড়াইয়ে জমজমাট ভোটের মাঠ। আইভীর স্বচ্ছতা ও উন্নয়ন নাকি নতুন মুখে আস্থা রাখবে মানুষ- এ নিয়ে চায়ের কাপে ঝড় বইছে। নির্বাচনের দিনক্ষণ যতই ঘনিয়ে আসছে রাজনীতির হিসাব-নিকাশ ততটা স্পষ্ট হচ্ছে। আইভীর সঙ্গে আওয়ামী লীগের কারা কারা আছেন তা নিয়ে চলছে তুমুল আলোচনা। কেন্দ্রের সর্বাত্মক চেষ্টা এবং কঠোর নির্দেশনা সত্ত্বেও শামীম ওসমান অনুসারীরা আইভীর প্রতিদ্ব›দ্বী তৈমূরকে সমর্থন দিচ্ছেন বলে চাউর রয়েছে। এছাড়া সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জোটসঙ্গী জাতীয় পার্টির নেতৃত্বও ওসমান পরিবারের হাতে। তারাও আছে আইভীবিরোধী শিবিরে। এই প্রেক্ষাপটে ভোটের রাজনীতিতে আকাশচুম্বি জনপ্রিয়তা থাকলেও আইভীকে লড়াই করতে হচ্ছে দলের খণ্ডাংশ নিয়ে। পক্ষান্তরে, তৈমূরের সঙ্গে আছে বিএনপি, হেফাজত, জামায়াত ছাড়াও জাতীয় পার্টি ও আওয়ামী লীগের একাংশ।
আইভী-শামীমের মধ্যকার সম্পর্ক প্রসঙ্গে জানতে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, যে কোনো আদর্শবাদী নেতা বা কর্মী দলীয় সিদ্ধান্তের প্রতি আস্থাশীল হওয়া উচিত। কোনো মতামত থাকলে দলীয় ফোরামে দেয়া উচিত। নারায়ণগঞ্জে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকার পক্ষে কাজ করছেন বলে দাবি করেন তিনি।
এদিকে প্রচারণা চালানোর সময় আইভী গতকাল শনিবার বলেছেন, আমি কোনো গডফাদারের দিকে তাকিয়ে নির্বাচন করি না। এই নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী এডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ও সেলিম ওসমানের প্রার্থী বলেও দাবি করেছেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। নগরীর ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের চৌরাপাড়া এলাকায় গতকাল নির্বাচনী প্রচারে নেমে সাংবাদিকদের কাছে এমন দাবি করেন তিনি। আইভীর অভিযোগ, ‘উনি (তৈমূর আলম) অন্য কারো প্রার্থী নন। উনি বিএনপিরও প্রার্থী না; স্বতন্ত্র প্রার্থীও নন। শুক্রবার বন্দরে প্রচারণা করেছেন তৈমূর আলম। ওই প্রচারণায় সেলিম ওসমানের জাতীয় পার্টির চারজন চেয়ারম্যান তৈমূর আলমের সঙ্গে ছিলেন। এতেই প্রমাণিত হয় সারা নারায়ণগঞ্জে যে গুঞ্জন ছিল তৈমূর আলম গডফাদার শামীম ওসমানের ক্যান্ডিডেট (প্রার্থী)। তৈমূরকে শামীম-সেলিমের প্রার্থী দাবি করে আইভী আরো বলেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগের দ্ব›দ্ব পরিষ্কার হয়েছে কিনা জানি না, কিন্তু তৃণমূল নেতাকর্মীরা সবাই আমার সঙ্গে আছে। ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীরা আমার সঙ্গে আছে এবং তারা আমার জন্য কাজও করছে। একমাত্র সে (শামীম ওসমান) বাইরে গিয়ে তার লোকজনদের প্রোভাইড করছে। আইভী বলেন, দলীয় হাইকমান্ড সবকিছু দেখেছে। পত্রপত্রিকায় আসছে সেই সভার চিত্র, কিন্তু আমি একটা কথা বলতে চাই, আমি নির্বাচন করি জনতার শক্তি নিয়ে। জনতাই আমার শক্তি; দলই আমার মনোবল। সবকিছু মিলিয়েই আমি নির্বাচন করি। জাতীয় পার্টি মহাজোটের অংশ জানিয়ে আইভী বলেন, তারা কালকে প্রকাশ্যে ছিল তৈমূরের পক্ষে। এতে প্রমাণিত হয় কারা তৈমূর আলম খন্দকারকে দাঁড় করিয়েছে। কারা পেছন থেকে কলকাঠি নাড়ছে।
প্রসঙ্গত, দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নেয়ায় বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে তৈমূর আলম খন্দকারকে। জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম থেকেও তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।
অন্যদিকে শামীম ওসমান গতকাল বিকালে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে দাবি করেছেন, আইভী তাকে গডফাদার বলে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার প্রতি আঙুল তুলেছেন। তিনি বলেন, দুই দিন আগে একটা ভিডিও দেখলাম সেখানে উনি (আইভী) বলছেন- শামীম ওসমান আমাদের নেতা। উনি বড় ভাই, আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য। দুদিনের মধ্যে গডফাদার হয়ে গেলাম? শামীম বলেন, আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে আমার দল। আমি যদি গডফাদার হই। তাহলে আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন কে? কাকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হলো? যে বলেছে, তার (আইভী) কাছে জিজ্ঞেস করেন আপনি দুদিন আগে এটা বলেছেন, দুদিন পরে এটা বললেন। কোনটা সঠিক। শামীম ওসমান আরো বলেন, দুদিন আগে বললেন নেতা, এমপি, বড়ভাই। এখন আজকে বললেন গডফাদার। আমি আওয়ামী লীগ করি, সেও আওয়ামী লীগ করে। আমি এমপি হয়েছি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে। এখন আমি যদি গডফাদার হই, তাহলে আঙুলটা কার দিকে তোলা হলো? তার বিরুদ্ধে যা বলা হচ্ছে এগুলো নিয়ে দুয়েক দিনের মধ্যে সংবাদ সম্মেলন করে জবাব দেবেন বলে জানিয়েছেন শামীম ওসমান। তিনি বলেন, আমি কোনো সাবজেক্ট না। প্রথম দিক থেকেই চুপচাপ ছিলাম। এখনো আছি। তাহলে আমি নিউজ হব কেন? যারা আমাকে নিউজ বানাতে চাচ্ছেন। আমিতো তাদের (কেন্দ্রীয় নেতা) বলেছি, কি আমার কারণটা। এখন ওনারা যদি কেউ কেউ ফায়দা লুটার চেষ্টা করেন। তাহলে এখন আমার দায়িত্ব হচ্ছে জনগণকে জানানো। জনগণ যদি সেটা সঠিক মনে করে, তাহলে সঠিক। এটা সম্পূর্ণ আমার ব্যক্তিগত বিষয়, কোনো রাজনৈতিক নয়।
অন্যদিকে তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, আমি শামীম ওসমানের পায়ে হাঁটি না। এখন কেউ যদি মনে করে নারায়ণগঞ্জের গণমানুষের চাহিদা পূরণের জন্য আমাকে প্রয়োজন, তারা যদি মনে করে তৈমূর আলম খন্দকারের কাছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নিরাপদ, তাহলে তারা সে অনুযায়ী কাজ করবে। আইভীকে নাকি কেউ সাপোর্ট দেয় না। এখানে আমি কী করব! তাদের এমপি ও দলের নেতাকর্মীরা তাকে সাপোর্ট না দিলে সেখানে আমার করার কিছু নেই। সিটি করপোরেশনে অতিরিক্ত তিন-চার গুণ ট্যাক্স দিতে গিয়ে তো তারাও ভুক্তভোগী। গতকাল সকালে নগরীর ৯ নম্বর ওয়ার্ডের জালকুড়ি এলাকায় গণসংযোগকালে তৈমূর বলেন, সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ও তার বড় ভাই সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান সমর্থন তিনি চান। তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জে যারা এমপি আছেন আমি তাদেরও সমর্থন চাই। আমি মাঠে নেমেছি। জনগণসহ সবার সমর্থন চাইছি। স্বতন্ত্র এই প্রার্থী বলেন, শামীম ওসমান যখন ছাত্রনেতা, তখন আমি নারায়ণগঞ্জে একজন ডাকসাইটে শ্রমিক নেতা। আমি নিজস্ব জনশক্তিতে হাঁটি। এখন কেউ যদি মনে করে নারায়ণগঞ্জের গণমানুষের চাহিদা পূরণের জন্য আমাকে প্রয়োজন, তারা যদি মনে করে তৈমূর আলম খন্দকারের কাছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নিরাপদ, তাহলে তারা সে অনুযায়ী কাজ করবে। আমার পক্ষে নারায়ণগঞ্জের সর্বস্তরের মানুষ নেমে এসেছে। তাদের কাছে ভোট চাইছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারায়ণগঞ্জের ভোটার হলে তার কাছেও ভোট চাইতে যেতাম। আমার বিশ্বাস, গত ৫০ বছরে আমার স্বচ্ছ, নির্ভেজাল গণমুখী কর্মকাণ্ড দেখে তিনি আমাকে ভোট দিতেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তৈমূর বলেন, আমি বিএনপির লোক কিনা তা নারায়ণগঞ্জের বিএনপি নেতাদের জিজ্ঞাসা করেন। বিএনপি আমাকে বহিষ্কার করেনি। তারা আমাকে সুযোগ করে দিয়েছে সব দলের সমর্থন যেন পাই।
উল্লেখ্য, আগামী ১৬ জানুয়ারি নাসিক নির্বাচন। নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে এলেও শামীম ওসমানের অবস্থান নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। গত ২০ ডিসেম্বর নির্বাচন উপলক্ষে ঢাকা বিভাগের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের সঙ্গে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর নেতাদের বৈঠকেও উপস্থিত ছিলেন না শামীম ওসমান। সম্প্রতি শামীম ওসমান জেলা প্রশাসন আয়োজিত ধলেশ্বর নদে নৌকাবাইচ অনুষ্ঠানে যোগ দেন, নারায়ণগঞ্জ রাইফেলস ক্লাবে প্রায় দুই দফা নিজ উপজেলার চেয়ারম্যান, কাউন্সিলর প্রার্থীদের সাংগঠনিক বৈঠক করেন। তবে কোনো সভায় আইভী বা সিটি নির্বাচন বা আইভীর সমর্থনে মাঠে নামা নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। অবশ্য নির্বাচন পরিচালনার সঙ্গে সম্পৃক্ত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন, শামীম সময়মতোই নৌকার জন্য মাঠে নামবেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়