পরিকল্পনামন্ত্রী : দেশে রাজনীতিবিদের চেয়ে আমলাতন্ত্রের দাপট বেশি

আগের সংবাদ

শ্যামল দত্ত’র প্রত্যয় : চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেই এগিয়ে যাবে ভোরের কাগজ

পরের সংবাদ

হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরছেন সৌরভ

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : ভারতের সাবেক অধিনায়ক ও বর্তমানে ভারতীয় ক্রিকেট নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি গত ২৮ ডিসেম্বর করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এরপর কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হন। অবশেষে গতকাল চতুর্থ দিন হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন তিনি। তবে সৌরভ বাড়ি ফিরে গেলেও ১৪ দিনের আইসোলেশনে থাকতে হবে। মেনে চলতে হবে করোনা-সংক্রান্ত যাবতীয় বিধিনিষেধ। তার পূর্ব অসুস্থতার কারণে হাসপাতালের পরিবর্তনে বাড়িতেই আইসোলেশনে থাকতে বলা হয়েছে।
এদিকে ২০২১ সালের শুরু থেকে হাসপাতালের ধকল যাচ্ছে সৌরভের। ২ জানুয়ারি সকালে বেহালায় নিজ বাড়িতে জিম করার সময় বুকে ব্যথা অনুভব করেন। এরপর ব্লক ধরা পড়ায় ডান ধমনিতে এরই মধ্যে স্টেন্ট বসানো হয়েছে। এরপর থেকে ভালোই আছেন সৌরভ। কিন্তু করোনার কারণে ফের তাকে হাসপাতালে যেতে হয়। যেহেতু তিনি একজন খেলোয়াড় তাই মানসিক শক্তি বেশি। ফলে চতুর্থ দিনই হাসপাতাল থেকে বেহালার বাড়িতে ফিরছেন সৌরভ। এ বিষয় ভারতের গণমাধ্যমে হাসপাতালের এক কর্মকর্তা বলেন, সৌরভের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। তিনি ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করেছেন এবং ভালো ঘুম হয়েছে। শারীরিক বিভিন্ন মাপকাঠিও স্বাভাবিক আছে। সেই পরিস্থিতিতে সৌরভের মেডিকেল রিপোর্ট আসার পরই হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। করোনা ভাইরাস থেকে সেরে উঠলেও চিকিৎসকদের পরামর্শে আপাতত ১৪ দিন বাড়িতে থাকতে হবে সৌরভকে। মেনে চলতে হবে করোনা-সংক্রান্ত যাবতীয় বিধিনিষেধ। খেতে হবে ওষুধ। ভিটামিন ‘সি’ জাতীয় ট্যাবলেট নিয়মিত খেতে হবে। ফুসফুস যাতে স্বাভাবিক থাকে, সেজন্য উষ্ণ ভাপ নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
গতকাল দুপুর থেকেই হাসপাতালের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে ছিল সৌরভের লাল গাড়ি। পিপিই কিট পরে তৈরি ছিলেন সৌরভের গাড়ির চালকও। হাসপাতাল থেকে বের হয়ে গাড়িতে ওঠে বসেন দাদা। এ সময় তার পরনে ছিল নীল চেক শার্ট ও নীল ফেদার জ্যাকেট। উপস্থিত জনতার উদ্দেশে হাত নেড়ে লাল গাড়িতে ঢুকে পড়েন সৌরভ। গাড়ি রওনা দেয় বীরেন রায় রোডের উদ্দেশে। তবে সৌরভ অসুস্থ হলেও তার স্ত্রী ডোনা এবং কন্যা সানার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। এর আগে গত ২ জানুয়ারি শরীরচর্চা করার সময় আচমকাই মাথা ঘুরে পড়ে যান সৌরভ। বুকে যন্ত্রণা অনুভব করেন তিনি। সঙ্গে সঙ্গে আলিপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। জানা যায়, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক। সেসময় প্রায় এক সপ্তাহ হাসপাতালে ছিলেন তিনি। তার বুকে দুটি স্টেন্ট বসানো হয়।
তারপর ৭ জানুয়ারি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যান তিনি। সেসময় হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে তিনি বলেন, জীবন ফিরে পেলাম। সেই সময় বিখ্যাত চিকিৎসক দেবী শেঠি দেখা করেন সৌরভের সঙ্গে। তারপরই জানিয়ে দিয়েছিলেন, সৌরভ একদম সুস্থ। সপ্তাহ দুয়েক বিশ্রাম নিয়েই আগের মতোই সব কাজ করতে পারবেন তিনি। কিন্তু এরপর ফের বুকের ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি। এ নিয়ে গত জানুয়ারি দ্বিতীয়বার বুকের ব্যথায় হাসপাতালে যেতে হয় তাকে। গত ২৭ জানুয়ারি সকালে তিনি বুকে ব্যথার কথা বললে পরিবারের পক্ষ থেকে কলকাতার অ্যাপোলো হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরেন সৌরভ।
এছাড়া সৌরভ ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতির দায়িত্ব কাঁধে নেবার পর এর উন্নতির জন্য নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। কিংবদন্তি এই ক্রিকেটার ৮ জুলাই ১৯৭২ সালে কলকাতার বেহালায় একটি প্রতিষ্ঠিত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম চণ্ডীদাস গঙ্গোপাধ্যায় ও মাতার নাম নিরুপা গঙ্গোপাধ্যায়। সৌরভ তার বড় ভাইয়ের সাহায্যে ক্রিকেট জীবনে প্রতিষ্ঠিত হন। তিনি ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেট ভালোবাসতেন। এমনকি বাঁ-হাতি ক্রিকেটার সৌরভ ভারতের সফলতম টেস্ট অধিনায়ক বলে বেশ পরিচিত। তার অধিনায়কত্বে ভারত ৪৯টি টেস্ট ম্যাচের মধ্যে ২১টি ম্যাচে জয়লাভ করে। ২০০৩ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে তার অধিনায়কত্বেই ভারত ফাইনালে পৌঁছে যায়। সৌরভ কেবল একজন আগ্রাসী মনোভাবাপন্ন অধিনায়কই ছিলেন না, তার অধীনে যেসব তরুণ ক্রিকেটাররা খেলতেন, তাদের কেরিয়ারের উন্নতিকল্পেও তিনি সহায়তা করতেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়