পরিকল্পনামন্ত্রী : দেশে রাজনীতিবিদের চেয়ে আমলাতন্ত্রের দাপট বেশি

আগের সংবাদ

শ্যামল দত্ত’র প্রত্যয় : চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেই এগিয়ে যাবে ভোরের কাগজ

পরের সংবাদ

স্বাস্থ্যঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা : বরিশালে সরকারি কলেজ গেটে ময়লার ভাগাড়

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

এম. কে. রানা, বরিশাল থেকে : বরিশালে ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে কলেজের প্রবেশপথ। এতে একদিকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে, অন্যদিকে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ফেলছে শিক্ষার্থীদের। দীর্ঘদিন এ অবস্থা চলতে থাকায় শিক্ষার্থী-অভিভাবকসহ স্থানীয়দের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তাদের দাবি দ্রুত সময়ের মধ্যে ময়লা ফেলার স্থান পরিবর্তন করে কলেজের পরিবেশ রক্ষা করা হোক। ঘটনাটি নগরীর সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজের পেছনের গেটে। এদিকে কলেজ কর্তৃপক্ষ বলছে বিষয়টি সিটি করপোরেশনের মেয়রসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে চিঠি দিয়ে প্রতিকার চেয়েও প্রতিকার পায়নি। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে কলেজের উদ্যোগে ময়লা অপসারণ করা হবে।
সরজমিন বরিশাল নগরীর চৌমাথা সংলগ্ন সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজের পিছনের গেটে গিয়ে দেখা গেছে, কলেজের প্রবেশমুখ ময়লার স্তূপে পরিণত হয়েছে। কেউ কেউ সেখানে দাঁড়িয়ে মূত্র ত্যাগ করছে। এছাড়া ময়লা নিয়ে পশু-পাখি টানাটানি করছে এবং ময়লা পেরিয়েই শিক্ষার্থীরা কলেজে প্রবেশ করছে। পরিবেশ দূষণের ফলে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তিও বাড়ছে। নির্বিঘেœ যাতায়াতের সমস্যা হচ্ছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ পথচারীদের।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে কলেজে প্রবেশের গেটের সামনেই স্থানীয় বাসিন্দা, ছোট-বড় চায়ের দোকান ও রেস্তোরাঁ ময়লা ফেলছে। এছাড়া কলেজ গেটের সামনে ময়লা-আবর্জনার স্তূপ হওয়ায় বেশির ভাগ সময় গেটটি ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ায় বন্ধ রাখে কলেজ কর্তৃপক্ষ। এদিকে গেটের সামনে ডাস্টবিন থাকায় বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের মাঝে।
ফলে যে কোনো সময় এ বিষয়টি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে রূপ নিতে পারে। আর এ বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষও মনে করছে দ্রুত সময়ের মধ্যেই ময়লা ডাস্টবিনটি অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হোক। ফয়সাল, রাকিব, রিফাত নামের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, খেলার মাঠ সংলগ্ন ময়লার স্তূপ অনেক বছর ধরে এভাবেই পড়ে আছে, এর প্রভাবে খেলাধুলায় বিঘœ ঘটছে। তারা আরো জানান, ময়লার স্তূপের কারণে গেটটি বন্ধ থাকায় রাতের আধারে এখানে মাদকের আড্ডা বসে।
এদিকে হাতেম আলী কলেজের এক প্রভাষক জানিয়েছেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ গেটের সামনে ময়লা-আবর্জনা এবং প্রসাব না করার জন্য সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু তাতেও কোনো লাভ হচ্ছে না। শিক্ষাঙ্গন যদি পরিষ্কার না রাখা যায়, তাহলে শিক্ষার্থীরা কি শিখবে এমন প্রশ্ন রেখে তিনি এ বিষয়ে সিটি করপোরেশনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল ভোরের কাগজকে বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পবিত্র স্থান। এটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা সবার কর্তব্য। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, করোনার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় হঠাৎ করেই সেখানে ময়লা ফেলার ডাস্টবিন করা হয়। তবে কলেজ খোলার পর বিষয়টি নজরে আসায় এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য স্থানীয় কাউন্সিলর, বিসিসির সংশ্লিষ্ট বিভাগসহ মেয়রকে লিখিত এবং মৌখিকভাবে অবহিত করা হয়েছে। তবে কী কারণে এখনো ময়লা ফেলার স্থানটি সরানো হয়নি তা তিনি বলতে পারেননি। আগামীতে কেউ যেন কলেজের প্রবেশমুখে ময়লা ফেলতে না পারে সেজন্য খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
বরিশাল সিটি করপোরেশনের ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ সাঈয়েদ আহম্মেদ মান্না ভোরের কাগজকে জানান, সিএন্ডবি সড়কের ওই স্থানে (কলেজ গেট সংলগ্ন) সিটি করপোরেশনের একটি স্থায়ী ডাস্টবিন রয়েছে। কিন্তু সাধারণ মানুষ ময়লা-আবর্জনা ডাস্টবিনে না ফেলে অসচেতনতার কারণে বাহিরে ফেলছে, তাই দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। তবে খুব শিগগিরই কলেজসংলগ্ন ওই ডাস্টবিনটি অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা বিসিসির রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, স্থানীয় মানুষ যেন নির্ধারিত স্থানে ময়লা ফেলে, এজন্য তাদের সতর্ক করা হবে এবং কেউ নিয়ম উপেক্ষা করলে তাদের বিরুদ্ধে সিটি করপোরেশনের আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়