মাহমুদুর রহমান মান্না : খালেদা জিয়া এখন তিলে তিলে মৃত্যুর দিকে যাচ্ছেন

আগের সংবাদ

ওমিক্রন ঠেকাতে চার সুপারিশ

পরের সংবাদ

প্যাটেল-অশ্বিন ঘূর্ণিতে গুঁড়িয়ে গেল কিউইরা

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৮, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৮, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : ভারতের কানপুরে সিরিজের প্রথম টেস্টে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে স্পিনেই পর্যদুস্থ নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। ভারতের ৩৪৫ রানের জবাবে গতকাল প্রথম ইনিংসে কিউইরা গুঁড়িয়ে যায় ২৯৬ রানে। অ্যাক্সার প্যাটেল ৫ উইকেট এবং রবিচন্দ্রন অশ্বিন ৩ উইকেট শিকার করেন। তৃতীয় দিন শেষে ৬৩ রানে এগিয়ে স্বাগতিকরা। ১৪ রানে ১ উইকেট হারিয়ে দিন শেষ করেছে ভারত। মায়াঙ্ক আগারওয়াল ৪ রানে ও চেশ্বর পূজারা ৯ রানে অপরাজিত ছিলেন।
এর আগে কানপুরে দুই টেস্ট প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ম্যাচের সবটুকু আলো কেড়ে নিয়েছিল নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। ভারতের বোলারদের কোনো উইকেট না দিয়ে তারা দিন শেষ করেছিল ১২৯ রানে। দুই ওপেনার টম লাথাম ও উইল ইয়ং ফিফটি তুলে নিয়ে মাঠ ছেড়েছিল। কিন্তু তৃতীয় দিনে গতকাল দৃশ্যপটে হাজির হয় ভারতের বোলাররা। দলীয় ১৫১ রানে প্রথম উইকেটের দেখা পায় স্বাগতিকরা। ২১৪ বলে ৮৯ রানের ইনিংস খেলে মাঠ ছাড়েন ইয়ং। তাকে শ্রীকর ভারতের ক্যাচের শিকার বানিয়ে উইকেট তুলে নেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। এরপর অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গে জুটি গড়ে তুলেন টম লাথাম। তবে তাদের ৪৬ রানের বেশি জুটি গড়তে দেননি উমেশ যাদভ। কেন উইলিয়ামসনকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন এই পেসার। এরপর মাঠে নেমে লাথামকে সঙ্গ দিতে পারেনি অভিজ্ঞ রস টেইলর। তিনি ২৮ বলে ১১ রান করে অক্ষর প্যাটেলের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন। টেইলরকে বিদায় করে ক্ষান্ত হননি প্যাটেল, হেনরি নিকোলসকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলে সফল হন এই স্বাগতিক স্পিনার। নিকোলস ৯ বলে ২ রান করেন। তবে প্যাটেলে চোখ তখনো ক্রিজে আধিপত্য বিস্তার করতে থাকা টম লাথামের ওপর। সেঞ্চুরির খুব কাছে গিয়েও হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়েন লাথাম। ব্যক্তিগত ৯৫ রানে সাজঘরের পথ ধরেন এই কিউই ওপেনার। প্যাটেলের ঘূর্ণির চেয়ে বেশি নির্বুদ্ধিতার পরিচয় দেন লাথাম। অফ স্টাম্পের বল ডাউন দ্য উইকেটে বের হয়ে মারতে গিয়ে স্টাম্পিংয়ের শিকার হন তিনি। ২৮২ বল মোকাবিলা করে ১০টি বাউন্ডারি হাঁকান তিনি। দুই স্পিনার অশ্বিন ও প্যাটেল যখন উইকেট উৎসবে মাতছিলেন তখন কী করে হাত গুটিয়ে বসে থাকেন রবিন্দ্র জাদেজা। আক্রমণে এসে বোল্ড আউট করে রাচিন রবিন্দ্রকে সাজঘরে ফেরান এই স্পিনার। ততক্ষণে প্রায় শেষ নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং লাইন আপ। তবে বাকি কাজটা অন্যদের জন্য আর রাখেন অশ্বিন ও প্যাটেল। বলা যায় নিজেদের শিকারে আর কাউকে ভাগ বসাতে দেননি তারা। প্যাটেল টিম সাউদিকে আর অশ্বিন উইল সমারবাইল ও কাইল জেমিসনকে সাজঘরে ফেরান। তবে অ্যাজাজ প্যাটেল নিজেকে কারো শিকারে পরিণত হতে দেননি। দুই ওপেনারের ব্যাটে বড় সংগ্রহের পথে থাকা নিউজিল্যান্ড দিন শেষ হওয়ার আগেই গুঁড়িয়ে গেল ২৯৬ রানে। তখনো সফরকারীরা পিছিয়ে ৪৯ রানে। এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে দিনের বাকি থাকা ৫ ওভারও শেষ করতে পারেননি ভারতীয় ওপেনার মায়াঙ্ক আয়ারওয়াল ও শুবমান গিল। প্রথম ইনিংসে ফিফটি করা গিলকে এদিন রানের খাতা খুলতে দিয়েই বোল্ড আউট করেন কাইল জেমিসন। গিল ৩ বলে ১ রান করেন। তবে মাঠে নেমে আর কোনো উইকেট পড়তে দেননি ভারতীয় টেস্ট অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান চেতশ্বর পূজারা। দিন শেষে তিনি ২ বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ১৪ বলে ৯ রান করে অপরাপজিত ছিলেন। আয়ারওয়াল বাউন্ডারি হাঁকানোর জন্য চতুর্থ দিনের অপেক্ষায় রইলে। তিনি ১৩ বলে ৪ রানে অপরাজিত ছিলেন। ভারত দ্বিতীয় ইনিংসে ১৪ রান তুলতেই কিউইরা ৬৩ রানে পিছিয়ে গেল। প্যাটেল ৬২ রানের বিনিময়ে ৫ উইকেট শিকার করেন। অশ্বির ৩ উইকেট তুলতে খরচা করেন ৮২ রান। বাকি দুই উইকেট ভাগাভাগি করে নেন উমেশ যাদভ ও রবিন্দ্র জাদেজা।
টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দল নিউজিল্যান্ড। ভারত আছে র‌্যাঙ্কিংয়ের দুইয়ে। তবে ঘরের মাঠে সব সময় সুবিধাজনক অবস্থানে থাকে চেতশ্বর পূজারা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অতীত ইতিহাস তাই বলে। এর আগে কানপুরে সিরিজের প্রথম টেস্টে দ্বিতীয় দিনের শুরুটা করেছিল ভারতের অভিষিক্ত ব্যাটসম্যান শ্রেয়াস আয়ার।
নিজের অভিষেক ম্যাচেই তিনি পেয়ে যান সেঞ্চুরির স্বাদ। শুধু তাই নয় কানপুর টেস্টের প্রথম দিন বিপদে পড়া ভারতকে আয়ার ও জাদেজা মিলে উদ্ধার করেন। ১৪৫ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়া ভারতের দিন শেষ করেন ২৫৮ রানে। এই দুইজন জুটি গড়ে হতাশায় পড়ান কিউই বোলারদের। দুইজনের ১২১ রানের জুটিটি দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনেই ভাঙেন টিম সাউদি। আগের দিন ৫০ করা জাদেজা এদিন ব্যাট হাতে স্কোর বোর্ডে আর কোনো রান যোগ করতে পারেননি। সাউদির বলে বোল্ড হয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। একপ্রান্তে দাঁড়িয়ে দলের হাল আগলে ধরে রাখা আয়ারকে সঙ্গ দিতে পারেননি ভারতের শেষ জাত ব্যাটসম্যান ঋদ্ধিমান সাহা। ১২ বল খেলে ১ রান করে তিনি সাজঘরের পথ ধরেন। দিনের শুরুতেই দুই উইকেট তুলে নিয়ে ভারতের শিবিরে ভীতি ছড়ান টিম সাউদি। অবশ্য অশ্বিন এসে দলের হাল ধরতে আয়ারকে সঙ্গ দেন।
এর মধ্যে আয়ার কানপুরে অভিষেক টেস্টেই তুলে নেন সেঞ্চুরি। তবে তাকে বেশিক্ষণ উল্লাসে মাততে দেননি টিম সাউদি। তার গতি ও সুইংয়ে পরাস্ত ভারতের পরপর তিন উইকেট। মাঠ ছাড়ার আগে আয়ারের ব্যাট থেকে ১৭১ বলে আসে ১০৫ রান। ১৩টি বাউন্ডারির পাশপাশি তার ইনিংসে ছিল ২টি ওভার বাউন্ডারির মার। আয়ারকে বিদায় করেই ক্ষান্ত হননি সাউদি। সাজঘরে ফেরান আরেক ভারতীয় ব্যাটসম্যান অ্যাক্সার প্যাটেলকে। বোলিং বিভাগে বাকি কাজটা সারেন কিউই স্পিনার অ্যাজাজ প্যাটেল। ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিতে থাকা অশ্বিনকে বোল্ড আউট করে মাঠ ছাড়েন তিনি। অশ্বিন ৫৬ বলে ৩৮ রানের ইনিংস খেলেন। ইনিংসে তিনি ৫টি বাউন্ডারি হাঁকান। তবে ইশান্ত শার্মাকে রানের খাতা খুলতে দেননি অ্যাজাজ। এর আগে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের মধ্যে ফিফটির দেখা পায় ওপেনার শুবমান গিল। তিনি ৯৩ বলে ৫২ রান করে জেমিসনের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন।
কিউই বোলারদের মধ্যে ইনিংসে সবচেয়ে সফল সাউদি ৬৯ রানের বিনিময়ে শিকার করেন ৫ উইকেট। এটি তার টেস্ট ক্যারিয়ারে ১১তম বার পাঁচ উইকেট শিকারের মাইলফলক। প্রথম দিন ভারতের টপ অর্ডারে থস নামানো আরেক কিউই পেসার কাইল জেমিসন ৯১ রানের বিনিময়ে শিকার করেন ৩ উইকেট। তিন কিউই স্পিনারের মধ্যে একমাত্র সফল অ্যাজাজ ৯০ রানের বিনিময়ে ২ উইকেট শিকার করেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়