মাহমুদুর রহমান মান্না : খালেদা জিয়া এখন তিলে তিলে মৃত্যুর দিকে যাচ্ছেন

আগের সংবাদ

ওমিক্রন ঠেকাতে চার সুপারিশ

পরের সংবাদ

‘ওমিক্রন’ নিয়ে সতর্ক সরকার

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৮, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৮, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

** সব বিমানবন্দরে ‘স্ক্রিনিং’ জোরদার ** দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ ** পরামর্শক কমিটির বৈঠক আজ **
কাগজ প্রতিবেদক : দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যার গ্রাফ নিম্নমুখী থাকলেও স্বস্তির যে কোনো সুযোগ নেই সে কথা বারবারই জানিয়েছিলেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ তাদের আশঙ্কা ছিল অদৃশ্য এই ভাইরাসের নতুন ধরন যে কোনো সময় দেখা দিতে পারে এবং তা পরিস্থিতিকে সংকটের দিকে নিয়ে যেতে পারে। সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকায় দেখা দেয়া করোনার নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ ভাবিয়ে তুলেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞদের। এ নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। নতুন এই ধরন নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উদ্বেগ ছড়িয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারতসহ বিভিন্ন দেশ আফ্রিকার কয়েকটি দেশের নাগরিকদের ভ্রমণে কড়াকড়ি আরোপ করেছে। ওমিক্রন নিয়ে বাংলাদেশেও দেখা দিয়েছে উদ্বেগ। তাই পরিস্থিতি নিয়ে এখনই সতর্ক হচ্ছে সরকার।
বাংলাদেশও দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। গতকাল শনিবার সকালে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় ওয়ার্ল্ড হেলথ অ্যাসেম্বলি সেকেন্ড স্পেশাল সেশনে অংশ নিতে যাত্রাকালে এক অডিও বার্তায় এ কথা জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।
তিনি বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকান নতুন ধরন নিয়ে আমরা অবহিত হয়েছি। এই ধরন খুবই মারাত্মক। এ কারণে দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে যোগাযোগ এখনই স্থগিত করা হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে এরই মধ্যে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে দেশের সব বিমানবন্দর এবং স্থলবন্দরে ‘স্ক্রিনিং’ আরো জোরদার করা হচ্ছে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, সারাদেশে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়ে আরো কঠোর হওয়ার জন্য জেলা পর্যায়ে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। অন্যান্য দেশ থেকে আসা নাগরিকদের বিষয়েও সতর্কতা অবলম্বন করা হবে। তাদের টিকা নেয়া এবং তাদের আরটিপিসিআর টেস্ট করা আছে কিনা দেখা হবে।
তবে রোগতত্ত্ববিদ ও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাস্তবে সীমান্ত আটকে ভাইরাসের বিস্তার ঠেকানো প্রায় অসম্ভব। তবে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়ে বিস্তারের গতি ধীর করা যেতে পারে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, মাস্কের ব্যবহার শতভাগ নিশ্চিত করা এবং স্বাস্থ্য সেবার ক্ষেত্রে যে কমতিগুলো ছিল সেগুলো কাটিয়ে উঠতে এখনই উদ্যোগ নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।
এদিকে আজ দুপুরে কোভিড-১৯ মোকাবিলায় গঠিত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি বৈঠকে বসবেন। জানা গেছে, বৈঠকে ভাইরাসের নতুন ধরনটি প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে দিকনির্দেশনামূলক কিছু সুপারিশ থাকবে।
নতুন ধরনের বিস্তার ঠেকাতে করণীয় সম্পর্কে জানতে চাইলে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য, বিশিষ্ট ভাইরোলজিস্ট ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম ভোরের কাগজকে বলেন, স্বাস্থ্যবিধি ও মাস্কের সঠিক ব্যবহারই একমাত্র অস্ত্র। মূল অস্ত্রকে উপেক্ষা করে

টিকার ওপর নির্ভর করে কিংবা যাতায়াত বন্ধ করে ভাইরাসটির সংক্রমণ ঠেকানো যাবে না। এর আগে আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে যেসব দুর্বলতা ও কমতিগুলো ছিল সেগুলো কাটিয়ে উঠা জরুরি। এর আগেও সময় পাওয়ার পর আমাদের প্রস্তুতিতে ঘাটতি ছিল। এখন যখন বলা হচ্ছে নতুন এই ধরনটি আরো বেশি মারাত্মক। বেশি মাত্রায় সংক্রমণ ঘটাবে এবং এর আগে অন্য ধরনের কারণে যাদের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা তৈরি হয়েছে তারা পুনরায় আক্রান্ত হতে পারেন। তাই আমাদের প্রস্তুতিতে আর কোনো কমতি রাখা যাবে না।
দক্ষিণ আফ্রিকার সেন্টার ফর এপিডেমিক রেসপন্স এন্ড ইনোভেশনের পরিচালক টুলিও ডি অলিভিয়োরা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, নতুন এই ধরনের মিউটেশনের ধারা অস্বাভাবিক এবং অন্যান্য ধরনের থেকে এটি অনেক ভিন্ন। তিনি বলেন, এই ধরন আমাদের অবাক করেছে। বিবর্তনের হিসেবে এবং পরবর্তী মিউটেশনের হিসাব করলে এটি কয়েক ধাপ লাফ দিয়েছে। সব মিলিয়ে এই নতুন ধরনে ৫০টি মিউটেশন রয়েছে যার মধ্যে ৩০টি মিউটেশেনই স্পাইক প্রোটিনে। অধিকাংশ টিকাই স্পাইক প্রোটিনের এই ধরনগুলোকে আক্রমণ করে। ভাইরাসের যে অংশটি আমাদের শরীরের কোষের সঙ্গে প্রথম সংযোগ ঘটায়, নতুন ধরনে সেটির ১০টি মিউটেশন রয়েছে। ভয়াবহ ক্ষতিকর হিসেবে আলোড়ন তৈরি করা ডেল্টা ধরনে এই মিউটেশন ছিল মাত্র দুইটি।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ওমিক্রনকে তালিকাভুক্ত করেছে ‘উদ্বেগজনক ধরন’ হিসেবে। তবে তারা এটাও বলছে, করোনা ভাইরাসের নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ কতটা প্রভাব ফেলতে পারে সেটি বুঝতে কয়েক সপ্তাহ সময় লাগবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়