চকবাজারে প্লাস্টিক গোডাউনে আগুন

আগের সংবাদ

তথ্যপ্রযুক্তি সম্মেলনে রাষ্ট্রপতি : বাংলাদেশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তর ফ্রিল্যান্সার দেশ

পরের সংবাদ

আজ গতিতে ঝড় তুলবেন যারা

প্রকাশিত: নভেম্বর ১১, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১১, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মরুভূমিতে গতির ঝড় উঠবে, তা আঁচ করা যায়। পাকিস্তানের শাহিন আফ্রিদি, হারিস রউফ ও হাসান আলি প্রস্তুত অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং দুর্গ ভেঙে দিতে। অন্যদিকে অজিদের সেরা ফাস্ট বোলিং বিভাগ মিচেল স্টার্ক, জশ হ্যাজেলউড ও প্যাট কামিন্সরা প্রস্তুত দুবাইয়ের মাঠে পাক ব্যাটসম্যানদের ধসে দিতে। তবে দুই দলের স্পিনাররাও ম্যাচের ভাগ্য পরিবর্তন করে দিতে পারে তাদের ঘূর্ণিতে। এবার সুপার টুয়েলভে দুই দলের গতির বোলারদের বোলিং পারফরম্যান্স পর্যবেক্ষণ করা যাক।
শাহিন আফ্রিদি : বিশ্বকাপে ৫ ম্যাচে তার উইকেট সংখ্যা ৬। পাকিস্তান সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে জয় পেয়েছিল ১০ উইকেটের বড় ব্যবধানে। সে ম্যাচে ভারতের শক্তিশালী টপঅর্ডার একাই ধসিয়ে দিয়েছিলেন আফ্রিদি। ওই ম্যাচে তিনি তুলে নেন ভারতের দুই ওপেনার লোকেশ রাহুল ও রোহিত শর্মাকে। ম্যাচে তার তৃতীয় শিকার বিরাট কোহলি। ৪ ওভার বল করে শাহিন আফ্রিদি ৩১ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ৩ উইকেট। পরবর্তী ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৪ ওভারের বলে এক ওভার মেইডেন দেন। ২১ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ১ উইকেট। তার শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন টিম সেইফার্ট। সুপার টুয়েলভের তৃতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১ উইকেট শিকার করেন শাহিন। তার বলে আউট হয়ে মাঠ ছাড়েন হার্ডহিটার আফগান ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শেহজাদ। চতুর্থ ম্যাচে নামিবিয়ার বিপক্ষে উইকেটশূন্য থাকেন শাহিন আফ্রিদি। ৪ ওভার বল করে তিনি ৩৬ রান খরচ করেন। সুপার টুয়েলভের শেষ ম্যাচে শাহিন আফ্রিদি ২৪ রানের বিনিময়ে স্কটল্যান্ডের ১ উইকেট শিকার করেন।
হাসান আলি : বিশ্বকাপের চলতি আসরে ৫ ম্যাচে তিনি ৫টি উইকেট শিকার করেন। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে বেশ খরুচে ছিলেন হাসান আলি। ওই ম্যাচে ৪৪ রানের বিনিময়ে ২ উইকেট উইকেট তুলে নেন তিনি। তার শিকার দুই ভারতীয় মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদভ ও রবীন্দ্র জাদেজা। ব্ল্যাক ক্যাপসদের বিপক্ষে ৩ ওভারে ২৬ রান দিলেও কোনো উইকেট শিকার করতে পারেননি হাসান আলি। তৃতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে এক ওভার মেইডেন দিলেও বেশ খরুচে ছিলেন হাসান আলি। ৪ ওভার বল করে ৩৮ রানের বিনিময়ে তিনি শিকার করেন ১ উইকেট। তিনি সাজঘরে ফেরান রহমানউল্লাহ গুরবাজকে। নামিবিয়ার বিপক্ষে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে ২২ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ১ উইকেট। শেষ ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৩ রানের বিনিময়ে ১ উইকেট শিকার করেন হাসান আলি।
হারিস রউফ : চলতি বিশ্বকাপে হারিসের শিকার ৮ উইকেট। পাকিস্তানি ফাস্ট বোলারদের মধ্যে ভারতের বিপক্ষে কম খরুচে ছিলেন হারিস রউফ। তিনি ২৫ রান খরচায় তুলে নেন ১ উইকেট। তার শিকার ভারতের হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান হার্দিক পান্ডিয়া। হারিস রউফের বোলিংয়ে দিশেহারা কিউইরা হারায় ৪ ব্যাটসম্যানকে। তার শিকার মার্টিন গাপটিল, ডেবন কনওয়ে, গেøন ফিলিপস ও মিচেল স্যান্টনার। সুপার টুয়েলভের তৃতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে বেশ খরুচে হারিস ৩৭ রানের বিনিময়ে শিকার করেন হজরতউল্লাহ জাজাইয়ের উইকেটটি। তিনি নামিবিয়ার বিপক্ষে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে ২৫ রানের বিনিময়ে শিকার করেন ১ উইকেট। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে ২৭ রানের বিনিময়ে ১ উইকেট তুলে নেন হারিস।
মিচেল স্টার্ক : অজি বোলারদের মধ্যে পাকিস্তানের বিপক্ষে সুইং ও গতির ঝড় তুলতে পারেন মিচেল স্টার্ক। বিশ্বকাপের চলতি আসরে ৫ ম্যাচে তার উইকেট সংখ্যা ৭। সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার ২ উইকেট শিকার করেন তিনি। ৪ ওভার বল করে তিনি ৩২ রান খরচ করেন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সুপার টুয়েলভের দ্বিতীয় ম্যাচে ২৭ রান খরচয় ২ উইকেট শিকার করেন স্টার্ক। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে উইকেটশূন্য থাকেন তিনি। ৩ ওভার বল করে খরচ করেন ৩৭ রান। বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে ২১ রানের বিনিময়ে ২ উইকেট শিকার করেন স্টার্ক। সুপার টুয়েলভের শেষ ম্যাচে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে তিনি ৩৩ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ১ উইকেট।
জশ হ্যাজেলউড : অজি ফাস্ট বোলারদের মধ্যে বিশ্বকাপে দুর্দান্ত জশ হ্যাজেলউড। বিশ্বকাপের চলতি আসরে তার উইকেট সংখ্যা ৮। প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানদের সুইংয়ে কাবু করে মেইডেন নেয়ার পাশাপাশি ১৯ রানের বিনিময়ে ২ উইকেট শিকার করেন হ্যাজেলউড। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪ ওভার বল করে ২৬ রান খরচ করলেও কোনো উইকেটের দেখা পাননি তিনি। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২ ওভার বল করে ১৮ দিলেও উইকেটের দেখা পাননি তিনি। বাংলাদেশের বিপক্ষে ২ ওভার বল করে ৮ রান খরচায় তুলে নেন ২ উইকেট। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে কিছুটা খরুচে থাকলেও ৪ উইকেট তুলে নেন হ্যাজেলউড।
প্যাট কামিন্স : গতিতে পাক ব্যাটসম্যানদের দিশাহারা করে দিতে পারেন অজি ফাস্ট বোলার প্যাট কামিন্স। বিশ্বকাপে ৫ ম্যাচে তিনি ৪ উইকেট শিকার করেন। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে প্যাট কামিন্স কিপটে বোলিং করে ১৭ রানের বিনিময়ে শিকার করেন ১ উইকেট।
কামিন্স লঙ্কানদের বিপক্ষে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ম্যাচে ৩৪ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ২ উইকেট। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১ ওভার বল করে ১৪ রানের বিনিময়ে উইকেটশূন্য থাকেন কামিন্স। বাংলাদেশের বিপক্ষে চতুর্থ ম্যাচে ৩ ওভারে ১৮ রান দিয়ে উইকেটশূন্য থাকেন তিনি। সুপার টুয়েলভের শেষ ম্যাচে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ৩৭ রানের বিনিময়ে ১ উইকেট শিকার করেন তিনি।
পেসারদের গতির ঝড়ের সঙ্গে স্পিন ঘূর্ণিতে ব্যাটসম্যানদের দিশাহারা করতে পারেন অজি লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পা ও পাক লেগ স্পিনার সাদাব খান। বিশ্বকাপে ৫ ম্যাচে ১১ উইকেট শিকার করে আসরের দ্বিতীয় সেরা উইকেট শিকারি জাম্পা। আসরের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার উইকেট সংখ্যা ১৬। সাদাব খানের চলতি আসরে উইকেট সংখ্যা ৫।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়