টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সফল পাঁচ অধিনায়ক : তাইফ রহমান রাফি

আগের সংবাদ

সড়কে নেই ‘ডিজিটাল’ ছোঁয়া

পরের সংবাদ

বাংলাদেশিদের প্রেরণা দিতে ঢাকায় স্বর্ণজয়ী মার্গারিতা

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৪, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৪, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : অলিম্পিকে বাংলাদেশের হয়ে স্বর্ণ জয় তো দূরে থাক এখন পর্যন্ত কোনো পদকই জিততে পারেননি কোনো অ্যাথলেট। সেই ১৯৮৪ সাল থেকে বাংলাদেশ অলিম্পিকে অংশ নিচ্ছে। পর্যায়ক্রমে ১০ আসরের সবকটিতে অংশ নিলে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা ব্যর্থ হয়েছেন দেশকে একটি পদক এনে দিতে। তবে বাংলাদেশের প্রতিনিধিরা না পারলেও বাঙালির রক্ত শরীরে নিয়ে অলিম্পিকে স্বর্ণপদক জিতেছেন মার্গারিতা মামুন। ২০১৬ সালে রিও অলিম্পিকে জিমন্যাস্টিক স্বর্ণ জিতেছিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই রাশিয়ান তরুণী। সেই মার্গারিতা মামুন এখন ঢাকায় অবস্থান করছেন। তবে নাড়ির টানে নয়, বাংলাদেশ জিমন্যাস্টিক ফেডারেশনের আমন্ত্রণে তিনি এখন ঢাকায় অবস্থান করছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ জিমন্যাস্টিক ফেডারেশন আয়োজন করছে ‘বঙ্গবন্ধু পঞ্চম সেন্ট্রাল সাউথ এশিয়ান আর্টিস্টিক জিমন্যাস্টিক্স চ্যাম্পিয়নশিপ-২০২১’ প্রতিযোগিতা। সেখানে বাংলাদেশি জিমন্যাস্টদের অনুপ্রেরণা জোগাতে ফেডারেশনের আমন্ত্রণে ঢাকায় এসেছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রাশিয়ান এই জিমন্যাস্ট।
আগামী ২৭ অক্টোবর মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে শুরু হবে ‘বঙ্গবন্ধু পঞ্চম সেন্ট্রাল সাউথ এশিয়ান আর্টিস্টিক জিমন্যাস্টিক্স চ্যাম্পিয়নশিপ-২০২১’ প্রতিযোগিতা। বাংলাদেশ, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, ভারত, উজবেকিস্তান ও পাকিস্তান-এই ছয় দেশের ৬৭ জিমন্যাস্ট অংশ নেবে বলে গতকাল লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠানে জানান ফেডারেশনের সভাপতি শেখ বশির আহমেদ মামুন। আফগানিস্তানের অংশ নেয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তারা আসছে না। তিন ক্যাটাগরিতে (পুরুষ সিনিয়র ও জুনিয়র এবং মহিলা) ২২টি ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হবে। তিনটি ইভেন্টে বাংলাদেশের ১২ জন জিমন্যাস্ট অংশগ্রহণ করবেন।
টুর্নামেন্টের সার্বিক বিষয়ে বাংলাদেশ জিমন্যাস্টিক ফেডারেশনের সভাপতি শেখ বশির আহমদে মামুন বলেন, ‘আমরা সাংগঠনিক দিক থেকে সব কিছু প্রস্তুত করেছি। আমাদের দলের প্রস্তুতিও ভালো। মেডেল জিতবই এটা দৃঢ়ভাবে বলছি না। আমরা ভালো কিছু করব।’ সংবাদ সম্মেলনে ফেডারেশন সভাপতি আরো বলেন, ‘মার্গারিতা মামুন এখন ঢাকায়। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনের দিন তিনি থাকবেন। পরের দিনও তিনি খেলা দেখবেন।’ মার্গারিতা মামুন সম্পর্কে তিনি আরো বলেন, ‘তার সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ রয়েছে। তাকে এই টুর্নামেন্টে বিশেষ আমন্ত্রণে আনার কারণ হচ্ছে তাকে দেখে যেন আমাদের মেয়েরা উজ্জীবিত হয়। মার্গারিতা মামুন রাশিয়ায় থাকলেও তার শরীরে বাংলাদেশের রক্ত। বাংলাদেশের প্রতি তার টানও রয়েছে।’
২০১১ সালে সর্বশেষ সেন্ট্রাল সাউথ এশিয়ান জিমন্যাস্টিক্স হয়েছিল। দশ বছর পর আবার হচ্ছে এই প্রতিযোগিতা। জিমন্যাস্টিকের ভেন্যু সংকট। এবার এই প্রতিযোগিতা হচ্ছে মিরপুরের শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে। জিমন্যাস্টদের ক্রীড়াশৈলী দর্শকদের মুগ্ধ করবে বলে লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠানে সরকারের যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘মহামারির কারণে দীর্ঘদিন অবরুদ্ধ থাকার পর আমাদের দেশে একটি আন্তর্জাতিক আসর আয়োজিত হচ্ছে, এটা নিঃসন্দেহে খুশির খবর। এবারের আসরের নামকরণ করা হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে।
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে তার নামে আসর আয়োজন করে তাকে সত্যিকারের শ্রদ্ধা জানানোর প্রয়াস পেয়েছে বাংলাদেশ জিমন্যাস্টিক্স ফেডারেশন।
এই আসরে বিভিন্ন দেশের ক্রীড়াবিদরা তাদের অনন্য ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শন করে দর্শকদের মুগ্ধ করবেন বলেই আমার বিশ্বাস।’ এ সময় রাসেল আরো বলেন, ‘জিমনিস্ট্যাকিসের জন্য আমরা জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের নিচ তলায় একটি অংশ দিয়েছিলাম অনুশীলনের জন্য। সামনে অনেক ইনডোর স্টেডিয়াম হচ্ছে। সেখানে ফেডারেশনের চাহিদা মোতাবেক আমরা ভেন্যু বরাদ্দের ব্যবস্থা করব।’
পঞ্চম বঙ্গবন্ধু সাউথ সেন্ট্রাল জিমনাস্টিক টুর্নামেন্টের সফল হওয়ার জন্য পৃথক পৃথক ভিডিও বার্তা দিয়েছেন লন্ডন অলিম্পিক খেলা সাইক সিজার ও বাংলাদেশ ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। লন্ডনপ্রবাসী সাইক সিজার এখন আমেরিকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কোচ হিসেবে কাজ করছেন। আজ রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আহমেদুর রহমান বাবলুসহ বিভিন্ন ফেডারেশনের শীর্ষ কর্মকর্তারা।
২০১৬ রিও অলিম্পিকে জিমন্যাস্টিক স্বর্ণ জিতেছিলেন রাশিয়ান তরুণী মার্গারিতা মামুন। তিনি রাশিয়ান হলেও তার বাবা বাংলাদেশি। রাজশাহীর পৈতৃক বাড়িতে এসেছেন কয়েকবার। তবে এবার বাংলাদেশ জিমন্যাস্টিক ফেডারেশনের আমন্ত্রণেই এসেছেন ঢাকা। মার্গারিতার বাবার নাম আব্দুল্লাহ আল মামুন। আশির দশকে ইন্টারমিডিয়েট পাস করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন মামুন। কিন্তু মেডিকেলে মানুষের কাটা-ছেঁড়া সহ্য করতে পারতেন না তিনি। সেখানে কয়েক মাস পড়ার পরই অসুস্থ হয়ে পড়েন। এর মধ্যে খবর আসে স্কলারশিপের। চলে যান তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নে। সেখানেই আন্না নামের এক নারীকে বিয়ে করে স্থায়ী হন। মার্গারিতারও জন্ম রাশিয়াতে এই দম্পতি থেকে। সেখানে বসবাস করা শুরু করলেও মামুন মাঝেমধ্যেই আসতেন তার গ্রামের বাড়ি রাজশাহীতে। পেশায় একজন প্রকৌশলী ছিলেন তিনি। ২০১৬ সালের ২৬ আগস্ট মামুন রাশিয়াতে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়