টিপু হত্যা মামলা : মুসার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

আগের সংবাদ

ভিটাহীন সংসার, আকাশ মাথায় : বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এখনো পানির নিচে, সিলেট-সুনামগঞ্জে নতুন করে বাড়ছে পানি

পরের সংবাদ

নেইমার নিজেই ছাড়তে চান পিএসজি

প্রকাশিত: জুন ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : বর্তমান ফুটবল বিশ্বের অন্যতম বড় তারকা ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার নেইমার জুনিয়র। অসাধারণ শৈলী, গতি, পায়ের দক্ষতা আর নান্দনিক ফুটবলে মোহিত করে রাখেন ফুটবলপ্রেমীদের। ২০১৭ সালে রেকর্ড ২২২ মিলিয়ন ইউরোতে সাবেক ক্লাব স্পেনিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা থেকে প্যারিস সেন্ট জার্মেইতে (পিএসজি) পাড়ি জমান নেইমার। কিন্তু প্যারিসে এসেই ছন্দপতন তার। পিএসজির হয়ে লিগ শিরোপা জিতলেও জিততে পারেননি কোনো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। অনেকবার ক্লাব ছাড়ার গুঞ্জন শোনা গেলেও তা আর সম্ভব হয়নি। পিএসজি নেইমারকে ছেড়ে দিতে চায়, সমর্থকদের একাংশেরও চাওয়া এমন। কিন্তু নেইমার ক্লাব ছাড়ার কথা কখনো ভাবনাতেও আনেননি। এতদিন পর্যন্ত এটাই ছিল পিএসজি এবং নেইমারের মধ্যকার সম্পর্কের সমীকরণ।
ফরাসি সংবাদমাধ্যম আরএমসি স্পোর্ট জানিয়েছে, ক্লাব তাকে দীর্ঘদিন ধরেই ছেড়ে দিতে চাইলেও নেইমার ক্লাব ছাড়তে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। কিন্তু পিএসজি চেয়ারম্যান নাসের আল-খেলাইফির এক সাক্ষাৎকারের পর বদলে গেছে গোটা চিত্র। সেই সাক্ষাৎকারে নেইমারের পারফরম্যান্সের পরোক্ষ সমালোচনা করে তিনি বলেছেন, নেইমার গ্রীষ্মে চলে যেতে পারে কিনা? আমি এতটুকুই বলতে পারি যে, আমাদের চাওয়া হচ্ছে দলের সব খেলোয়াড় যাতে গত মৌসুমের চেয়ে আগামী মৌসুমে ভালো পারফর্ম করে। গত মৌসুমে যেমন খেলেছে, তার চেয়ে বেশি উজাড় করে দিয়ে খেলে। সবাইকে শতভাগ দিতে হবে।
পারফরম্যান্স নিয়ে পরোক্ষভাবে ক্লাব প্রধানের মন্তব্য ভালোভাবে নিতে পারছেন না নেইমার। ক্ষুব্ধ হয়ে এখন নিজেই ক্লাব ছাড়তে উদ্গ্রীব তিনি। যদিও আরএমসি স্পোর্ত জানাচ্ছে, নেইমারের দলবদল খুব সহজেই হয়ে যাবে না। এর বড় কারণ হিসেবে তারা বলেছে, পিএসজিতে নেইমারের সর্বশেষ চুক্তির মেয়াদ ২০২৫ সাল পর্যন্ত। কিন্তু সে চুক্তির শর্ত অনুযায়ী, চুক্তিটি ২০২৫ সাল পর্যন্ত থাকলেও গোপন শর্ত সাপেক্ষে সেটির মেয়াদ স্বয়ংক্রিয়ভাবে ২০২৭ সাল পর্যন্ত থাকবে। ফলে নেইমারকে কিনতে হলে আগ্রহী ক্লাবকে চড়া মূল্য দিয়েই কিনতে হবে। কিন্তু নেইমারের এমন আকাশছোঁয়া বেতন দেয়ার সামর্থ্য অনেক ফুটবল ক্লাবেরই নেই। এদিকে সংবাদমাধ্যমের খবর, নেইমার নিজেই ফিরতে চান সাবেক ক্লাব বার্সেলোনায়। কিন্তু আর্থিক দুরবস্থার কারণে তার স্পেনিশ ক্লাবটিতে যাওয়ার কোনো প্রশ্ন আসে না। আর্থিক সংকটের কারণে গত মৌসুমে তারা ছেড়ে দিয়েছিল তাদের সবচেয়ে বড় তারকা লিওনেল মেসিকে। এক্ষেত্রে তিন ইংলিশ ক্লাব চেলসি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও নিউক্যাসল ইউনাইটেড নেইমারকে দলে টানতে আগ্রহী হলেও নেইমার অনেকবার ইংল্যান্ডে না যাওয়ার ব্যাপারে মত দিয়েছিলেন।
২০২৬ বিশ্বকাপে ৩৪ বয়সে পা দেবেন নেইমার। সংশয় আছে তখন দলের হয়ে কতটা প্রভাব ফেলতে পারবেন তিনি। তাই আসন্ন কাতার বিশ্বকাপে নিজেকে প্রমাণ করার শ্রেষ্ঠ সুযোগ পাচ্ছে এই ব্রাজিলিয়ান তারকা। নেইমারের চোখও আপাতত সেদিকে। এমন সময়ে তাই ক্লাব ছাড়তে চাইলেও কোন ক্লাবে যাবেন, সেখানে মানিয়ে নেয়ার চ্যালেঞ্জ, আবহাওয়ার প্রভাব সবকিছুই বিবেচনায় নিতে হবে তাকে।
পরিসংখ্যানের দিক বিবেচনায় গত মৌসুমে পিএসজি মোটেও ভালো করতে পারেনি। নেইমার, কিলিয়ান এমবাপ্পে, লিওনেল মেসি, সের্হিও রামোসের মতো তারকাঘেঁষা দল নিয়েও চ্যাম্পিয়ন লিগে চরম ব্যর্থ ক্লাবটি। জিতেছে শুধু ফরাসি লিগ। কাতারি মালিকানাধীন হওয়ার পর থেকে ১১ বছরে এ নিয়ে ৮ বার ফরাসি লিগ জিতেছে ক্লাবটি। গত মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে শেষ ষোলোতেই বিদায় নিয়েছেন তারা। এরপর সর্মথকদের সমালোচনার মুখে পড়েন মেসি, নেইমাররা। বার্সেলোনা ছেড়ে গত মৌসুমেই পিএসজিতে যাওয়া মেসি সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে খেলেছেন ৩৪ ম্যাচ। কিন্তু তার পা থেকে আসে ‘মাত্র’ ১১টি গোল। বানিয়ে দিয়েছিলেন ১৪টি। লিগ ওয়ানের ২৬ ম্যাচে মেসির গোল ৬টি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ৭ ম্যাচে করেছেন ৫টি গোল। ফ্রেঞ্চকাপের ১ ম্যাচে কোনো গোল করতে পারেননি তিনি।
পরিসংখ্যানের দিক দিয়ে পিএসজিতে কাটানো নেইমারের পাঁচ মৌসুমের মধ্যে গত মৌসুমটাই সবচেয়ে বাজে কেটেছে। লিগ ওয়ানে নেইমার খেলেছেন ২২ ম্যাচ। ২২ ম্যাচে ১৩ গোল করেন তিনি। অবদান রেখেছেন ৬টি গোলে। অন্যদিকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৬ ম্যাচ খেললেও কোনো গোল করতে পারেননি নেইমার। তবে বানিয়ে দিয়েছিলেন ২টি গোল। অর্থাৎ পুরো মৌসুম মিলিয়ে ২৮ ম্যাচ খেলে মাত্র ১৩ বার বল জালে পাঠাতে পেরেছিলেন তিনি।
মেসি আর নেইমারের এ যখন অবস্থা, তখন ফরাসি তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে যেন পিএসজিতে যেন ‘সিংহাসন’ পেয়ে গেছেন! পিএসজির সঙ্গে চুক্তি শেষে এ মৌসুমেই রিয়াল মাদ্রিদে চলে যাওয়ার গুঞ্জন শোনা গেলেও শেষ পর্যন্ত নতুন করে তিন বছরের চুক্তিতে থেকে গেছেন তিনি। চোখ ধাঁধানো অঙ্কের বেতন-বোনাসের পাশাপাশি ক্রীড়া প্রকল্পে এমবাপ্পের সিদ্ধান্তকে গুরুত্ব দেয়ার প্রতিশ্রæতি দিয়েই তাকে থাকতে রাজি করিয়েছে ফরাসি ক্লাবটি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়