সেন্ট লুসিয়ায় ধীরে এগুগোচ্ছে উইন্ডিজ

আগের সংবাদ

বিধ্বস্ত শহরে ভূতুড়ে নিস্তব্ধতা : আদালতের নিয়মিত বিচারকাজ বন্ধ > অফিসপাড়া নিথর > বন্ধ হাসন রাজা মিউজিয়াম > পথে পথে ক্ষতচিহ্ন

পরের সংবাদ

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর : সাবেক প্রকৌশলী ও স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা অনুমোদন দুদকের

প্রকাশিত: জুন ২৭, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ২৭, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : নিজেকে ব্যবসায়ী দেখানোর চেষ্টা করেও পার পেলেন না সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের (সওজ) সাবেক তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. আব্দুর রউফের স্ত্রী সাহিদা ইদ্রিস। গৃহিণী হয়েও কীভাবে কোটিপতি হলেন, দুদকের এমন প্রশ্নের উত্তর না মেলায় অবশেষে স্বামীসহ অবৈধ সম্পদের মামলার আসামি হতে যাচ্ছেন তিনি। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধানে এরই মধ্যে তার নামে ৬০ লাখ ২৪ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদের প্রমাণ মিলেছে। যে কারণে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে প্রকৌশলী আব্দুর রউফ ও স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। যেকোনো সময় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করবেন দুদকের সহকারী পরিচালক আলতাফ হোসেন। দুদক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
দুদক জানায়, স্বামীর অর্জিত অবৈধ আয়কে আয়কর নথিতে প্রদর্শন করে স্ত্রী বৈধতা দেয়ার অপপ্রয়াস চালিয়েছেন বলে দুদকের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে। প্রকৌশলী আব্দুর রউফের স্ত্রী সাহিদা ইদ্রিস দুদকে দাখিল করা সম্পদ বিবরণীতে ১৯৯৯-২০০০ করবর্ষ থেকে ২০১৭-১৮ করবর্ষ পর্যন্ত মোট ১ কোটি ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৫৪৪ টাকার আয় প্রদর্শন করেছেন। যার মধ্যে ব্যবসার আয় প্রদর্শন করেছেন ২৪ লাখ ৯১ হাজার ৩৫৩ টাকা। ওই আয়ে মৌসুমি ফসল (ধান, আলু, সুপারি, পেঁয়াজ, রসুন ইত্যাদি) ক্রয়-বিক্রয়ের লাভ দেখিয়েছেন। কিন্তু এর গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা দিতে পারেননি।
তাছাড়া পূর্বে ব্যবসা ও সঞ্চয় থেকে আয় দেখিয়েছেন ২১ লাখ টাকা, বিভিন্ন সময়ে দান ও উপহার হিসেবে বৈদেশিক মুদ্রা প্রাপ্তি দেখিয়েছেন ১৩ লাখ ৩০ হাজার ৫০০ টাকা। সবকিছু মিলিয়ে দুদকের অনুসন্ধানে মোট ১ কোটি ৬ লাখ ৮৭ হাজার ৯০০ টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের প্রমাণ পাওয়া যায়। যার মধ্যে ৪৫ লাখ ৫২ হাজার ৬৯১ টাকা আয়ের বৈধ ও গ্রহণযোগ্য প্রমাণ পাওয়া গেলেও ৬০ লাখ ২৪ হাজার টাকা আয়ের সপক্ষে কোনো বৈধ উৎস বা রেকর্ডপত্র প্রদর্শন করতে পারেননি এই দম্পতি। তাই সাহিদা ইদ্রিস ও তার স্বামী মো. আব্দুর রউফের বিরুদ্ধে দুদক আইন, ২০০৪ এর ২৭(১) এবং দণ্ডবিধির ১০৯ ধারায় মামলা অনুমোদন দিয়েছে কমিশন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়