নাটকীয় জয়ে চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি

আগের সংবাদ

বাড়ছে সম্ভাবনা, তবুও শঙ্কা! রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধসহ নানা কারণে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাওয়ায় পশ্চিমা ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতায় প্রভাব পড়েছে > পোশাক খাত

পরের সংবাদ

শীর্ষ পাঁচ লিগে সর্বোচ্চ গোলদাতা যারা

প্রকাশিত: মে ২৪, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মে ২৪, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলে শীর্ষ লিগগুলোর ২০২১-২২ মৌসুম শেষ হয়েছে গতকাল। শেষ রাউন্ডের নাটকীয়তায় জমে উঠেছিল ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ও সিরি আ। শীর্ষ পাঁচ লিগের তিনটিতেই আগেই শিরোপা নিশ্চিত হয়েছে। ফরাসি লিগ ওয়ান চ্যাম্পিয়ন পিএসজি, জার্মান বুন্দেসলিগা চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ, লা লিগা চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ তাদের লিগ ম্যাচ হাতে রেখেই শিরোপাটা নিশ্চিত করে। এদিকে শেষ রাউন্ডের খেলায় শিরোপা জিতেছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি ও ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়ন এসি মিলান। ১১ বছর পর শিরোপা পুনরুদ্ধার করেছে মিলানের ক্লাবটি। লিগের শেষ রাউন্ডের খেলা শেষ হওয়ার পর লিগগুলো পেয়ে গেছে মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলদাতাদেরও। তুমুল প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ২৩ গোল দিয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা যৌথভাবে লিভারপুলের মোহাম্মদ সালাহ ও টটেনহ্যামের হিউন-মিন সন, লা লিগায় ২৭ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা রিয়াল মাদ্রিদ তারকা করিম বেনজেমা, সিরি আ-তে সর্বোচ্চ ২৭ গোল করেছেন লাৎসিওর চিরো ইমোবিলে, লিগ ওয়ানে পিএসজি তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে ২৮ গোল করে হয়েছেন সর্বোচ্চ গোলদাতা এবং বুন্দেসলিগায় সর্বোচ্চ ৩৫ গোল করেছেন বায়ার্ন স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানদোভস্কি।
ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুটের দৌড়ে সব থেকে এগিয়ে আছেন বায়ার্ন মিউনিখের পোলিশ স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানদোভস্কি। বুন্দেসলিগায় ২০২১-২২ মৌসুমে ৩৪ ম্যাচে গোল করেছেন ৩৫টি এবং সতীর্থদের দিয়ে গোল করিয়েছেন আরো তিনটি। লিগে সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার পাশাপাশি ইউরোপিয়ান শীর্ষ পাঁচ লিগেও সর্বোচ্চ গোলদাতা তিনি। বায়ার্ন মিউনিখের টানা দশম শিরোপা জয়ে তিনি অনেক গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। বায়ার্নের জার্সিতে বুন্দেসলিগায় সব মিলিয়ে পঞ্চম মৌসুমে ৩০ বা এর বেশি এবং এই নিয়ে টানা তৃতীয়বার লিগে ৩০ গোল পার করেছেন এই পোলিশ স্ট্রাইকার।
ফরাসি লিগ ওয়ানে পিএসজির শিরোপা নিশ্চিতে সবচেয়ে বেশি অবদান রেখেছেন ফরাসি স্ট্রাইকার কিলিয়ান এমবাপ্পে। লিগে পিএসজির জার্সিতে এই মৌসুমে ৩৫ ম্যাচে গোল করেছেন ২৮টি এবং সতীর্থদের দিয়ে গোল করিয়েছেন আরো ১৭টি।
শুধু গোল করার দিক থেকেই লিগে শীর্ষ নন তিনি, গোলে সহায়তা করার দিক থেকে শীর্ষে রয়েছেন এই তারকা। তবে লিগে এককভাবে শীর্ষ গোলদাতা হতে তাকে বেশ লড়াই করতে হয়েছে তারই স্বদেশি মোনাকো স্ট্রাইকার বেন ইয়েদারের সঙ্গে।
লিগের ৩৭তম রাউন্ডের পর বেন ইয়েদারের গোলসংখ্যা ছিল ২৪টি এবং এমবাপ্পের ২৫টি। কিন্তু লিগের ৩৮তম রাউন্ডে এসে বেন ইয়েদার একটি গোল করলেও কিলিয়ান এমবাপ্পে হ্যাটট্রিক করে হয়েছেন লিগ ওয়ানের শীর্ষ গোলদাতা। সম্প্রতি পিএসজির সঙ্গে নতুন করে ২০২৫ সাল পর্যন্ত চুক্তি করেছেন এই ফরাসি স্ট্রাইকার।
লা লিগায় দুর্দান্ত মৌসুম কাটিয়ে রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি স্ট্রাইকারই করিম বেনজেমা পেয়েছেন লা লিগায় সর্বোচ্চ গোলের পুরস্কার ‘পিচিচি ট্রফি।’ রিয়ালের শিরোপা পুনরুদ্ধারে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখা বেনজেমা ৩২ ম?্যাচে করেছেন ২৭ গোল। মৌসুমে তার সঙ্গে প্রতিদ্ব›িদ্বতাপূর্ণ করার মতোও আর কেউ ছিল না। দ্বিতীয়স্থানে থাকা সেল্টা ভিগোর ইয়াগো আসপাস করেছেন ১৮ গোল। ২০০৯ সালে রিয়ালে যোগ দেয়ার পর এই প্রথম পিচিচি ট্রফি জিতলেন বেনজেমা। চলতি মৌসুমে চ?্যাম্পিয়ন্স লিগেও ১৫ গোল দিয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার পথে এগিয়ে আছেন এই ফরাসি স্ট্রাইকার। রিয়ালের হয়ে বেনজেমার আগে ক্রিস্টিয়ানো রেনালদোই সর্বশেষ পিচিচি অ্যাওয়ার্ড জিতেছিলেন। রিয়ালের চতুর্দশ খেলোয়াড় হিসেবে এই ট্রফি জিতলেন বেনজেমা। রিয়ালের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতাও তিনি। ১৩ বারের ইউরোপ চ?্যাম্পিয়নদের হয়ে সবচেয়ে বেশি- পাঁচবার পিচিচি ট্রফি জিতেছেন আলফ্রেড ডি স্টেফানো। লা লিগায় সবচেয়ে বেশি আটবার পিচিচি ট্রফি জয়ের রেকর্ড লিওনেল মেসির।
ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের শেষ রাউন্ডের খেলায় এসে যেমন শিরোপার নিষ্পত্তি হয়েছে তেমনি সর্বোচ্চ গোলদাতা হিসেবে গোল্ডেন বুটের লড়াইটাও হয়েছে শেষ ম্যাচেই।
৩৭তম রাউন্ডের শেষে শীর্ষে থাকা লিভারপুলের মিসরীয় ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহর গোল ছিল ২২টি এবং টটেনহ্যামের দক্ষিণ কোরিয়ান তারকা হিউন-মিন সনের গোলসংখ্যা ছিল ২১। নরউইচের বিপক্ষে লিগের শেষ ম্যাচে টটেনহ্যাম ৫-০ গোলের বড় জয়ের ম্যাচে সন জোড়া গোল করেছেন। এদিক থেকে সনের ২৩ গোল নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল। কিন্তু অ্যানফিল্ডে সালাহও করেছেন একটি গোল। এতেই সালাহ ও সন দুজনেরই গোলসংখ্যা হয় ২৩। যে কারণে যৌথভাবে প্রিমিয়ার লিগ গোল্ডেন বুট জিতে নিয়েছেন এই দুজন। গোল্ডেন বুট জেতা প্রথম এশিয়ান ফুটবলার এখন টটেনহ্যামের এই দক্ষিণ কোরিয়ান তারকা। ৩৫ ম্যাচে ২৩ গোলের পাশাপাশি সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেন আরো সাতটি গোল। মোহাম্মদ সালাহ আরো একটি পুরস্কার জিতেছেন। ২০২১-২২ মৌসুমের ‘প্লেমেকার অফ দ্য ইয়ার’ হয়েছেন এই মিসরীয় ফরোয়ার্ড। প্রিমিয়ার লিগে সবচেয়ে বেশি গোলের পাশপাশি সবচেয়ে বেশি ১৩ অ্যাসিস্টও যে তারই।
ইতালিয়ান লিগ সিরি আ-তে ১১ বছর পর শিরোপা জিতেছে এসি মিলান। কিন্তু মৌসুমে ২৭ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছেন টেবিলের পাঁচ নম্বরে থাকা দল লাৎসিওর স্ট্রাইকার চিরো ইমোবিলে। দ্বিতীয়স্থানে থাকা জুভেন্টাসের ভøাহোভিচের গোলসংখ্যা ২৪। ২০২১-২২ মৌসুমে ৩১ ম্যাচে ২৭ গোলের পাশাপাশি সতীর্থদের দিয়ে দুটি গোল করিয়েছেন এই ইতালিয়ান স্ট্রাইকার।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়