নৌপুলিশের অভিযান : ৩৫ লাখ মিটার জাল জব্দ

আগের সংবাদ

পঞ্চম দফায়ও সারাদেশে ব্যাপক সহিংসতা > ভোটে ঝরল আরো ১১ প্রাণ : পুলিশের গাড়িতে আগুন, আহত শতাধিক, আটক অর্ধশত

পরের সংবাদ

করোনা সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী : ওমিক্রন নয়, দেশে এখনো ডেল্টার প্রাধান্য

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৫, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ৫, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : নতুন ধরন ওমিক্রন নিয়ে উদ্বেগ ও শঙ্কার মধ্যে প্রতিদিনই বেড়ে যাচ্ছে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ। বাড়ছে সংক্রমণের হার, রোগীর সংখ্যা, দৈনিক মৃতের সংখ্যা এক অঙ্কের ঘরে থাকলেও সংখ্যায় বেড়ে চলছে। সংক্রমণ বাড়ার পেছনে ওমিক্রন, স্বাস্থ্যবিধি না মানাকে দায়ী করছেন কেউ কেউ। তবে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) বলছে, ওমিক্রন নয় দেশে এখনো প্রাধান্য বিস্তার করছে ডেল্টা ধরন। সঙ্গে মাস্ক না পরা, সামাজিক ও রাজনৈতিক সমাগম বাড়ায় সংক্রমণও বেড়েছে। প্রতিষ্ঠানের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. এ এস এম আলমগীর এ তথ্য জানান। ডা. আলমগীর বলেন, বাংলাদেশে এখনো করোনার ডেল্টা ধরনেরই প্রাধান্য চলছে। ওমিক্রনের বিস্তার এখনো সেভাবে দেখা যাচ্ছে না। ওমিক্রনের দুয়েকজন লোক পাওয়া যাচ্ছে। তবে যখন ওমিক্রন পাওয়া যাবে, তখন দেখা যাবে আক্রান্ত সবাই ওমিক্রনে আক্রান্ত। এটা শুধু বাংলাদেশ নয়, দক্ষিণ এশিয়ায় একই অবস্থা। আমাদের এখানেও ওমিক্রন ছড়াবে। হয়তো আরো দুই-এক সপ্তাহ পর সার্বিক পরিস্থিতি কী তা বোঝা যাবে।
এদিকে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তির তথ্য পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, ওমিক্রন কিংবা ডেল্টা ধরন যাই হোক করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের চিত্র ঊর্ধ্বমুখী।
গতকাল মঙ্গলবার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেয়া প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা কমলেও শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। বেড়েছে শনাক্তের হারও। গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৫২টি পরীক্ষাগারে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৯ হাজার ৮৩৮টি। রোগী শনাক্ত হয়েছে ৭৭৫ জন। একদিনে এর চেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছিল ৪ অক্টোবর। ওই দিন ৭৯৪ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। শনাক্ত ৭৭৫ জনের মধ্যে ৬৫৫ জন ঢাকা বিভাগের বাসিন্দা। যা মোট আক্রান্তের ৮৪ শতাংশের বেশি। দেশের ২৫টি জেলায় কোনো রোগী শনাক্ত হয়নি। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৩ দশমিক ৯১ শতাংশ। এর বেশি শনাক্তের হার সর্বশেষ ছিল গত ২৯ সেপ্টেম্বর। সেদিন এই হার ছিল ৪ দশমিক ১১ শতাংশ। বিজ্ঞপ্তির তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে ১৮৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের।
প্রসঙ্গত, সোমবার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২০ হাজার ৭৮টি। রোগী শনাক্ত হয়েছে ৬৭৪ জন। শনাক্তের হার ছিল ৩ দশমিক ৩৭ শতাংশ। মৃত্যু হয়েছে ৪ জনের। রবিবার ১৯ হাজার ১৩০টি নমুনা পরীক্ষায় রোগী শনাক্ত হয় ৫৫৭ জন। মৃত্যু হয় ১ জনের। আর নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় রোগী শনাক্তের হার ছিল ২ দশমিক ৯১ শতাংশ। শনিবার নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল ১৫ হাজার ২১৪টি। রোগী শনাক্ত হয় ৩৭০ জন। মৃত্যু হয় ৪ জনের। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২ দশমিক ৪৩ শতাংশ।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সরকারি হিসাব অনুযায়ী দেশে এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১ কোটি ১৫ লাখ ৬৫ হাজার ৬৫০ জনের। এর মধ্যে রোগী শনাক্ত হয় ১৫ লাখ ৮৭ হাজার ৯১৫ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৪৯ হাজার ৯৫৬ জন। আর মোট প্রাণহানির সংখ্যা ২৮ হাজার ৮৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১৭ হাজার ৯৬৪ জন এবং নারী ১০ হাজার ১২৩ জন। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা অনুযায়ী শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৩ শতাংশ। মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৭৭ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৬ জনের মধ্যে ২ জন নারী ও ৪ জন পুরুষ। ৩ জন সরকারি হাসপাতালে এবং ৩ জন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। বিভাগ বিবেচনায় ঢাকা বিভাগে ৩ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ২ জন আর রাজশাহী বিভাগে ১ জন। বয়স বিবেচনায় পঞ্চাশোর্ধ্ব ২ জন আর সত্তরোর্ধ্ব ৪ জন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়