গুলশানের ইউনিমার্ট ভবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে

আগের সংবাদ

ধাক্কা কাটিয়ে চাঙ্গা অর্থনীতি

পরের সংবাদ

টাইগ্রেসদের উড়ন্ত সূচনা পাকিস্তানকে হারিয়ে

প্রকাশিত: নভেম্বর ২২, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২২, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : ২০২২ সালে নিউজিল্যান্ডে নারী ওয়ানডে বিশ্বকাপ খেলার দৃঢ় প্রত্যয় বাংলাদেশ নারী দলের। তার আগে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে গতকাল জিম্বাবুয়েতে পাকিস্তানকে ৩ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা করেছে টাইগ্রেসরা। ঢাকায় টাইগাররা না পারলেও জিম্বাবুয়ে পাকিস্তানকে হারিয়ে বাংলার মেয়েরা এবার বিশ্বকাপে খেলার পূর্বাভাস দিচ্ছে। গতকাল পাকিস্তানের দেয়া ২০২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেট হারিয়ে ২ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় টাইগ্রেসরা। দলের জয়ে অবদান রাখা রোমানা আহমেদ ৪৪ বলে ৫০ রান করে অপরাজিত ইনিংস খেলেছেন। ৬টি বাউন্ডারিতে নিজের ইনিংস সাজান তিনি। এছাড়া ফারজানা হক ৯০ বল খেলে করেন ৪৫ রান।
নারী বিশ্বকাপ ক্রিকেট বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচ ছিল এটি। বাংলাদেশ রয়েছে ‘বি’ গ্রুপে। বাংলাদেশ, পাকিস্তান ছাড়াও এই গ্রুপের বাকি দলগুলো হলো যুক্তরাষ্ট্র, জিম্বাবুয়ে এবং থাইল্যান্ড। আগামী বছরের মার্চ-এপ্রিলে নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হবে মেয়েদের ওয়ানডে বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসর। আট দলের টুর্নামেন্টের পাঁচটি দল এরই মধ্যে নিশ্চিত হয়ে গেছে। স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের সঙ্গী হয়েছে আইসিসি উইমেন্স চ্যাম্পিয়নশিপের (আইডব্লিসি) আগের চক্রের শীর্ষ চারদল অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারত।
মেয়েদের ক্রিকেটে বরাবরই খুব শক্তিশালী দল পাকিস্তান। অথচ এই দলটির বিপক্ষে এ নিয়ে তৃতীয় জয় পেল বাংলাদেশ। পাকিস্তানিদের বিপক্ষে সর্বশেষ চারম্যাচের তিনটিতেই জয় নিগার সুলতানা-সালমা খাতুনদের। পাকিস্তানের ঘরের মাঠ থেকেও জিতে এসেছিল নারী ক্রিকেটাররা। আরেকটি ম্যাচ জিতেছিল কক্সবাজারে। এবার জিম্বাবুয়ে জিতল তিন নম্বর ম্যাচে।
গতকাল টস হেরে ব্যাট করতে নামার পর শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ের শিকার হয় পাকিস্তানের মেয়েরা। ১৪ রানের মাথায় রানআউট হয়ে যান আয়েশা জাফর। আরেক ওপেনার মুনিবা আলি আউট হন ২২ রান করে। ১২ রান করে বিদায় নেন অধিনায়ক জাভেরিয়া খান। মিডল অর্ডারে ওমাইমা সোহাইলকে শূন্য রানেই ফিরিয়ে দেন বাংলাদেশের বোলার রিতু মনি। ইরাম জাভেদকে ৩ রানে সাজঘরের পথ দেখান নাহিদা আকতার। ৪৯ রানে ৫ উইকেট পড়ার পর বাংলাদেশ যখন আশায় ছিল খুব দ্রুত বাকিদেরকেও প্যাভিলিয়নে পাঠাবেন, তখনই দৃঢ়তার সঙ্গে দাঁড়িয়ে যান নিদা দার এবং আলিয়া রিয়াজ। এ দুজন ১৩৭ রানের জুটি গড়েন। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তান করে ২০১ রান। বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে রিতু মনি এবং নাহিদা আক্তার নেন ২টি করে উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন সালমা খাতুন এবং রুমানা আহমেদ।
পাকিস্তানের চ্যালেঞ্জের জবাব দিতে নেমে ১০ রানের মাথায় ওপেনার মুর্শিদা খাতুনকে হারায় টাইগ্রেসরা। ৯ রান করেন তিনি। এরপর ৭০ রানের জুটি গড়েন শারমিন আক্তার এবং ফারজানা হক। ৬৭ বলে ৩১ রান করে আউট হন শারমিন আক্তার। অধিনায়ক নিগার সুলতানা মাঠে নেমে কিছুই করতে পারেননি। ২৬ বল খেলে করেন মাত্র ৪ রান। ৯৮ রানের মাথায় ৪র্থ উইকেট পড়ার পর ঘুরে দাঁড়ান রোমানা আহমেদ এবং রিতু মনি। এ দুজনের ব্যাটে গড়ে ওঠে ৬১ রানের জুটি। ৩৭ বলে ৩৩ রান করে আউট হন রিতু। সালমা এবং রোমানা- এ দুজন মিলে গড়েন ৪২ রানের দারুণ একটি জুটি। অপরাজিত ৫০ রান এবং এক উইকেট লাভ করায় ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন রোমানা আহমেদ।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়