চকবাজারে প্লাস্টিক গোডাউনে আগুন

আগের সংবাদ

তথ্যপ্রযুক্তি সম্মেলনে রাষ্ট্রপতি : বাংলাদেশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তর ফ্রিল্যান্সার দেশ

পরের সংবাদ

মতবিনিময় সভায় বক্তারা : দলিত জনগোষ্ঠীর অধিকার ও উন্নয়ন নিশ্চিত করুন

প্রকাশিত: নভেম্বর ১১, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১১, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : বাংলাদেশের সংবিধানের মূল সুরকে ধারণ করে সমতলে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ-তাত্ত্বিক জাতিসত্তা এবং দলিত জনগোষ্ঠীর অধিকার ও উন্নয়ন নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন বিশিষ্টজনরা। গতকাল বুধবার সকালে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেড ও হ্যাকস এপার বাংলাদেশ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় এ দাবি জানান তারা।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থনীতিবিদ আবুল বারকাত। ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেডের চেয়ারম্যান সাংবাদিক বোরহান কবীরের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল, নাট্যব্যক্তিত্ব পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়, কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সাদেকা হালিম, অর্থনীতিবিদ এম এম আকাশ, রাজনীতিবিদ সুভাষ সিংহ রায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক রোবায়েত ফেরদৌস, অধ্যাপক খন্দকার মোফাজ্জল হোসেন, অধ্যাপক মিল্টন বিশ্বাস, অধ্যাপক রাশেদ মাহমুদ। অনুষ্ঠানে ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন ক্রিয়েটিভ মিডিয়ার প্রকল্প কর্মকর্তা সিফাত ইমরানুর রউফ। স্বাগত বক্তব্য দেন হ্যাকস এপার বাংলাদেশের প্রকল্প ব্যবস্থাপক ইসরাত জাহান বিজু।
ঐক্যবদ্ধ গণআন্দোলন ছাড়া কোনো সমস্যার সমাধান সম্ভব নয় মন্তব্য করে অর্থনীতিবিদ আবুল বারকাত বলেন, আমরা যুদ্ধ করেছিলাম একটি বৈষম্যহীন অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের জন্য। যেখানে সব ধর্মের মানুষের অধিকার থাকবে। কিন্তু বাংলাদেশে এখন আইন বা নীতিমালা সম্পূর্ণ একপেশে চলছে। যেখানে সর্ষের মধ্যেই ভূত রয়ে গেছে। এ ভূত তাড়াতে হলে ঐক্যবদ্ধ গণআন্দোলন প্রয়োজন।
মিডিয়া নেটওয়ার্ক করার পরামর্শ দিয়ে মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, যারা গণমাধ্যমের ভেতরে কর্মরত, টকশোতে কথা বলেন এবং সম্পাদকীয় পর্যায়ের নীতি-নির্ধারক; তাদের সচেতন করতে হবে। অন্য সব কিছুরই পরিবর্তন করা হলে ১৯৭২-এর সংবিধান কেন পরিবর্তন করা যাবে না?
একটা বন্ধনহীন অদ্ভুতুড়ে সামাজিক পরিবেশ বিরাজ করছে উল্লেখ করে পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, প্রতি বছর দুর্গাপূজা আসে আর আমি শঙ্কায় থাকি। এবারের সিম্পটম আর মোটিফ ছিল একেবারেই ভিন্ন! কুমিল্লায় এত বড় সহিংসতার ঘটনা ঘটার তিন চার দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও কেউ গেলেন না, কেন?
আদি পাপের মীমাংসা না হলে আদিবাসীদের ওপর সহিংসতার ঘটনাগুলো ঘটবেই মন্তব্য করে এম এম আকাশ বলেন, আদিবাসীদের জাতিসত্তার স্বীকৃতি দিতেই হবে। এই আইনগত স্বীকৃতি দিতে সরকারের সমস্যা কোথায়?
নঈম নিজাম বলেন, মূলধারার সঙ্গে আদিবাসীদের সম্পৃক্ত করতে না পারলে সমস্যার সমাধান হবে না। আর এ সুযোগটা তৈরির জন্য আরো বেশি আওয়াজ তুলতে হবে।
বাংলাদেশ একটি বহুমাত্রিক দেশ, এখানে বহুজাতির বাস উল্লেখ করে সাদেকা হালিম বলেন, এখানে প্রত্যেকেরই স্বাধীনভাবে বাঁচা এবং আদমশুমারিতে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার অধিকার আছে।
রোবায়েত ফেরদৌস বললেন, বাংলাদেশ কেবল বাঙালির বা মুসলমানের নয়, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সবারই। এমনকি যারা ধর্ম পালন করে না তাদেরও। তাই রাষ্ট্রকে হতে হবে ধর্ম নিরপেক্ষ। প্রয়োজনে যৌনতা নিরপেক্ষও।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়