টিপু হত্যা মামলা : মুসার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

আগের সংবাদ

ভিটাহীন সংসার, আকাশ মাথায় : বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এখনো পানির নিচে, সিলেট-সুনামগঞ্জে নতুন করে বাড়ছে পানি

পরের সংবাদ

বোরহানউদ্দিনে গাছের সঙ্গে বেঁধে শিশুকে নির্যাতন, সৎমা আটক

প্রকাশিত: জুন ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

বোরহানউদ্দিন (ভোলা) প্রতিনিধি : ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার দেউলা ইউনিয়নে সৎমা কর্তৃক শিশু মেয়ে তানিশাকে (৭) দিনভর গাছের সঙ্গে বেঁধে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সৎমা মনোয়ারা বেগমকে আটক করেছে বোরহানউদ্দিন থানা পুলিশ। শিশু নির্যাতনের গত ২৩ জুনের ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।
নির্যাতনের শিকার তানিশার বাবা হারুন জানান, গত ৬ বছর আগে আমার প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে বিয়ে বিচ্ছেদ হয়। এরপর থেকে আমি আমার মেয়ে তানিশাকে নিয়ে বসবাস করছি। আমি দ্বিতীয় বিয়ে করার এক বছর পর আমার দ্বিতীয় স্ত্রী মনোয়ারা বেগম স্বেচ্ছায় তানিশার ভরণপোষণ ও দায়িত্বভার নেয়ার জন্য আমার বাড়িতে আসে। আমি আমার মেয়ের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে মেয়েকে তার কাছে পাঠাই। কিছু দিন পর মনোয়ারা বেগম আমার মেয়েকে বিভিন্ন কাজের অজুহাতে অমানসিক নির্যাতন করে বলে সংবাদ পাই। এ বিষয়ে তার কাছে একাধিবার জানতে চাইলে সে বিষয়টি এড়িয়ে যায়। গত ২৩ জুন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মোবাইল হারানোর অজুহাতে মনোয়ারা আমার মেয়ে তানিশার মাথার চুল ধরে টেনেহিঁচড়ে এলোপাতাড়ি মাটিতে আছাড় মারে এবং লোহার প্লাস দিয়ে ডান হাতের তর্জনি আঙুল টেনে রক্তাক্ত জখম করে। এরপর গাছের সঙ্গে দিনভর বেঁধে রেখে অত্যাচার-নির্যাতন করে। আমার মেয়ের ডাকচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে তাদের খুন-জখমের হুমকি প্রদান করে। এ অত্যাচার-নির্যাতনের বিষয়টি আশপাশের লোকজন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভিডিও ধারণ করেন। এগুলো দেখে আমার গা শিউরে ওঠে। পরে আমার মেয়েকে উদ্ধার করে বোরহানউদ্দিন হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে বোরহানউদ্দিন থানার ওসি মো. শাহিন ফকির জানান, ঘটনার সত্যতা পেয়ে সৎমা মনোয়ারা বেগমকে আটক করে ভোলা কোর্টে পাঠিয়েছি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়