নতুন রাজনৈতিক দল নিবন্ধনের গণবিজ্ঞপ্তি

আগের সংবাদ

অনুমোদনহীন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার : অভিযানে বন্ধ অনেক প্রতিষ্ঠান

পরের সংবাদ

রূপগঞ্জ : মিলাদ মাহফিলে ভাঙচুর গুলি আহত ১২

প্রকাশিত: মে ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মে ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি : রূপগঞ্জে একটি মিলাদ মাহফিলে তাণ্ডব চালানো হয়েছে। হামলাকারীরা বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি করে। এ সময় দুজন গুলিবিদ্ধসহ ১২ জন আহত হয়েছেন। হামলার সময় কায়েতপাড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রফিক অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। পরে পুলিশ তাকে থেকে উদ্ধার করে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের নাওড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কায়েতপাড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলামের সঙ্গে নাওড়া এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য মোশারফ ভূঁইয়ার দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে নাওড়া এলাকায় মুসা নামে এক ব্যক্তি বাড়িতে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেন। মাহফিলে রফিকুল ইসলামকে দাওয়াত করায় মোশারফ ভূঁইয়ার ভাই আনোয়ার ভূঁইয়া মুসা রাগারাগি করেন। এ সময় বাকবিতণ্ডার সৃষ্টি হয়। পরে আনোয়ার হোসেন ও মোশারফ হোসেন লোকজন নিয়ে সশস্ত্র অবস্থায় মুসার বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। হামলাকারীরা বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। হামলায় লিখন ও লিয়াকত নামে দুজন গুলিবিদ্ধ ও কাউসারসহ ১২ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হামলাকারীরা রফিকুল ইসলাম ও তার লোকজনকে অবরুদ্ধ করে রাখে। এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। সাধারণ মানুষ ভয়ে ছোটাছুটি শুরু করেন। খবর পেয়ে রূপগঞ্জ থানার ওসির নেতৃত্বে বিপুলসংখ্যক পুলিশ অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে রফিকুল ইসলাম ও তার লোকজনকে উদ্ধার করে।
রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে পরিকল্পিতভাবে এ হামলা করেছে মোশারফ বাহিনী।
মোশারফ হোসেন বলেন, রফিকসহ তার লোকজন হামলার উদ্দেশ্যে আমার বাড়ির দিকে এলে এলাকাবাসী তাদের ঘিরে ফেলেন।
ওসি এ এফ এম সায়েদ বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরুদ্ধদের উদ্ধার করে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়