জামালদের বিদায় করে ফাইনালে শ্রীলঙ্কা

আগের সংবাদ

বাস মালিক-শ্রমিকরা বেপরোয়া : এখনো অতিরিক্ত ভাড়া আদায় > গেটলক-সিটিং সার্ভিস বহাল > বিআরটিএর তৎপরতা লোক দেখানো

পরের সংবাদ

আদালতের নিষেধ অমান্য : চরফ্যাশনে হিন্দু পরিবারের জমি দখলের চেষ্টা

প্রকাশিত: নভেম্বর ১৮, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১৮, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

চরফ্যাশন (ভোলা) প্রতিনিধি : আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে হিন্দু পরিবারের জমি দখলের পাঁয়তারা করছে বলে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। চরফ্যাশন উপজেলার পৌরসভা ৬নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা চিন্তাহরণের ছেলে ভুক্তভোগী রতিস সরকার অভিযোগ করে বলেন, জিন্নাগড় মৌজায় আমার ১০ শতাংশ জমি রয়েছে, যা আমি ও আমার পরিবার দীর্ঘ বছর ধরে ভোগদখলে থাকলেও প্রতিপক্ষ প্রতিবেশী সালাউদ্দিন মাস্টার আমাকে বেদখলের পাঁয়তারা করছেন। তিনি আরো বলেন, জমিদাতা গোপাল চন্দ্র শীল ৯২ সালে নগদ অর্থের বিনিময়ে ১০ শতাংশ জমি বিক্রি করে দখল দেয়। জমিদাতা ২০১২ সালে আমাকে ২২৫৩নং সাব-কবলা দলিল দেন। একই দাতার কাছ থেকে সালাউদ্দিন মাস্টারের বাবা সোলাইমান পণ্ডিত ১৯৯২-৯৩ সালে দিয়ারা ১৫২০নং খতিয়ানের ৬টি দাগে এক একর ৬৫ শতাংশ জমি ক্রয় করে। তবে আমার এসএ ২২৮নং খতিয়ানের ৩৮৩১নং দাগের দিয়ারা ১৭৬৪ খতিয়ানের ৬৬১১নং দাগের ১০ শতাং জমি সালাউদ্দিন গং অবৈধভাবে রেকর্ড করে নেয়। পরবর্তী সময়ে বিষয়টি আমি জানতে পারলে গত ২০১৮ সালে আদালতে একটি বণ্টন মামলা দায়ের করলে আদালত ওই জমিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। সম্প্রতি আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সালাউদ্দিন মাস্টার, শামসউদ্দিন, নুর উদ্দিন, জান্নাতুল ফেরদাউস ও বিলকিসসহ অন্তত ১০-১২ জন একত্রিত হয়ে আমার বাড়িঘরে হামলা করে ওই জমিতে থাকা আমার টিনশেডের ঘরটি কুপিয়ে ও আমাকে বাড়ি ছাড়া করার হুমকি-ধমকি দিয়ে যায়। তবে হামলার কথা অস্বীকার করে সালাউদ্দিন মাস্টার বলেন, আমি একই খতিয়ানে গোপাল শীলের কাছ থেকে এক একর ৬৫ শতাংশ ও স্থানীয় কুদ্দুস ডাক্তারের কাছ থেকে ৮০ শতাংশ জমি ক্রয় করেছি। কাগজপত্র অনুযায়ী আদালতের সিদ্ধান্তই আমি মেনে নেব।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়