×

প্রবাস

কনসাল জেনারেল

আমিরাতের কোম্পানিগুলো বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগে আগ্রহী

Icon

সাইফুল ইসলাম তালুকদার, ইউএই

প্রকাশ: ১৫ জুন ২০২৪, ০৯:২০ পিএম

আমিরাতের কোম্পানিগুলো বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগে আগ্রহী

সংযুক্ত আরব আমিরাতের আজমান নাইমিয়ায় বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান পদ্মা রেস্টুরেন্ট উদ্বোধনের সময় কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেন, কমার্শিয়াল কাউন্সিলর আশীষ কুমার সরকার, কাউন্সিলর কাজী ফয়সালসহ অতিথিবৃন্দ। ছবি: ভোরের কাগজ

আরব আমিরাতের কোম্পানিগুলো বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগে আগ্রহী উল্লেখ করে দুবাই নিযুক্ত বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল বি এম জামাল হোসেন বলেছেন, সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশীদের ভিসা কঠিন হয়েছে, এখানে আসতে পারছে না আসলে বিষয়টা এমন নয়। এখানে সরকারের পলিসি অনুযায়ী দক্ষ পুরুষ ও নারী কর্মী নিয়োগ সব সময় উম্মুক্ত রয়েছে । অদক্ষ কর্মীদের ক্ষেত্রে কিছু কিছু পলিসি আছে। এছাড়া দুবাই ট্যাক্সি, ট্র্যান্স-গার্ডসহ আরব আমিরাতের বড় বড় কোম্পানিগুলো প্রচুর পরিমাণে বাংলাদেশী কর্মী এখানে আসছে।

শুক্রবার (১৪ জুন) সংযুক্ত আরব আমিরাত আজমান নাইমিয়া এলাকায় বাংলাদেশী মালিকানাধীন পদ্মা রেস্টুরেন্ট উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির  বক্তব্যে তিনি  এ কথা বলেন ।

তিনি বলেন, সম্প্রতি আমিরাতে কাজের বেশ কিছু নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে যেমন বাইক রাইডার হিসেবে "দুবাই ট্যাক্সি" আমিরাত ৩ হাজার বাংলাদেশী আনতে আগ্রহী। এছাড়া বাংলাদেশী কর্মীদের সততা ও নিষ্ঠার কারণে এখানকার কোম্পানিগুলো বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। সুতরাং বাংলাদেশ থেকে কর্মী আসছে আরব আমিরাতে।

বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল বলেন, প্রবাসীদের প্রেরিত রেমিটেন্স দেশের অর্থনীতিতে বড় একটি চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করছে। প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে উন্নত সমৃদ্ধশালী দেশ গড়তে আরো ব্যাপকভাবে রেমিটেন্স পাঠানোর আহ্বান জানিয়ে আরব আমিরাতের আইন-কানুনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার কথা বলেন তিনি।

এ সময় তিনি আরো বলেন, রেমিট্যান্স প্রেরণের ক্ষেত্রে আরব আমিরাত এখন শীর্ষ অবস্থানে আছে এবং এর ফলে যে শ্রমবাজার সৃষ্টি হয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে দিন দিন এটি আরো সম্প্রসারিত হচ্ছে। দক্ষ কর্মী ও আসছে অদক্ষ কর্মী ও আসছে। সুতরাং ভিসা জটিলতার বিষয়গুলো সঠিক নয়। বাংলাদেশী কর্মীদের জন্য দুবাই ও উত্তর আমিরাতের শ্রমবাজার উন্মুক্ত আছে। 

শেষে এক সংক্ষিপ্ত  আলোচনায় বুলবুল আহমেদ মুকুলের সভাপতিত্বে এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমার্শিয়াল কাউন্সিলর আশীষ কুমার সরকার, কনস্যুলেটের প্রথম সচিব মোহাম্মদ কাজী ফয়সাল, প্রকৌশলী আবু জাফর চৌধুরী সিআইপি, বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের সিনিয়র সহ-সভাপতি সিআইপি আইয়ুব আলী বাবুল, কনস্যুলেট লেডিস ক্লাবের প্রেসিডেন্ট আবিদা হোসেন, কাজী শাফায়েত উল্লাহ, হাসান জাকির, শওকত মোল্লা, মোতাহার হোসেন, মামুনুর রশিদ, আবুল বাশার, মামুন আজাদ।

আরো উপস্থিত ছিলেন, তুহিত হোসেন, আব্দুল জলিল,জুয়েল রানা লিটন, ফখরুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান, সরফরাজ মিজান সাইদ, মাসুম হাওলাদার, শফিকুল ইসলাম, সরোয়ার হোসেন প্রমুখ । 

লেডিস ক্লাবের প্রেসিডেন্ট আবিদা হোসেন বলেন, রেস্টুরেন্টে খাবারের মান, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা এবং যে সমস্ত নিয়মকানুন ঠিকমতো পালন করার ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতার অভাবে সেগুলো অনেকেই ধরে রাখতে পারে না। এই বিষয়গুলো তারা যদি নজর দেয় তাহলে এটি বাংলাদেশী একটি জনপ্রিয় রেস্টুরেন্ট হিসেবে পরিচয় লাভ করবে।  

প্রতিষ্ঠানের পরিচালক বুলবুল আহমেদ মুকুল জানান, প্রবাসী বাংলাদেশীদের স্বল্পমূল্যে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার পরিবেশনের অঙ্গীকার নিয়ে এই প্রতিষ্ঠানের যাত্রা করেছে বলে জানান উদ্যোক্তারা। তিনি সবার দোয়া ও সহযোগিতা কামনার পাশাপাশি আমিরাতে বন্ধ সব ধরণের ভিসার দ্বার উন্মুক্ত করার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

দুবাই নিযুক্ত বাংলাদেশের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর আশীষ কুমার সরকার বলেছেন, প্রবাসীদের প্রেরিত রেমিটেন্স দেশের অর্থনীতিতে বড় একটি চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করছে। উন্নত সমৃদ্ধশালী দেশ গড়তে সবাইকে বৈধ চ্যানেলে আরো ব্যাপকভাবে রেমিটেন্স পাঠানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, গত বছর প্রায় বিশ্বে ১৭০টি দেশের ১ কোটি ৫০ লাক্ষ প্রবাসীদের পাঠানো ২২ মিলিয়ন ইউএস ডলার রেমিটেন্স জমা পড়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশে রেমিটেন্স পাঠানোর ক্ষেত্রে প্রথম সারিতে রয়েছে আরব আমিরাত। 

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App