র‌্যাব মহাপরিচালক : নাশকতার তথ্য নেই তবুও সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছি

আগের সংবাদ

বাংলাদেশের গর্ব, বিশ্বের বিস্ময় : জাতীয়-আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে যেভাবে ডানা মেলল স্বপ্নের পদ্মা

পরের সংবাদ

এই স্বর্ণসেতুহার

প্রকাশিত: জুন ২৪, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ২৪, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

যারা বলেছিলো সম্ভব নয়…
দুরন্ত পদ্মার বুকে সেতু?
যাহ! অসম্ভব, এ অসম্ভব।
ওঃ’ং ধ ঢ়ড়ষরঃরপধষ ংঃঁহঃ.
এইডা হইলো মুজিবকন্যা
শেখ হাসিনার অর্থ-চুরির
এক পরিকল্পিত উৎসব।
কাজের কাজ কিছুই হবে না।
পদ্মা সেতুর এই জমকালো
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আজ আমি
তাদের হারিকেন জ্বালিয়ে খুঁজছি।
যারা ভেবেছিলেন ‘পদ্মার ঢেউরে
শাসন করার নাই কেউরে…।’
পদ্মা সেতুর এই জমকালো
উদ্বোধনী-অনুষ্ঠানে আমি
সেইসব ভাববাদীদের খুঁজছি।
যারা বলেছিলেন বিশ্বব্যাংকের অনুগ্রহ এবং অর্থভিক্ষা ছাড়া অসম্ভব এই সেতুর কল্পনা-
সেতুর অর্থ ছাড় হওয়ার আগেই
দুর্নীতির অভিযোগে যারা
কানাডার কোর্টে মামলা দায়ের করেছিলেন-
যারা দেশের বিভিন্ন দরগায় মানত
করেছিলেন মোম ও সিন্নি,
যারা অন্তর থেকে প্রার্থনা করেছেন
‘এই সেতু না হোক, এই সেতু না হোক’।
পদ্মার অতলগহ্বরে এই সেতুর
পিলার ভেসে যাক- এই জমকালো উদ্বোধনী-অনুষ্ঠানে আমি আজ সেই ‘অনর্থবিদ’দের খুঁজছি।
আমাদের বিশেষ একজনের বিশেষ বান্ধবী, মেয়াদোত্তীর্ণ মার্কিন ফার্স্ট লেডি মিস হিলারী রডহ্যাম ক্লিন্টন!
সরি ম্যাম, খুব সঙ্গত কারণেই
আমি আজ আপনাকেও খুঁজছি।
যিনি বলেছিলেন- ‘প্রিয় দেশবাসী,
আপনারা এই সেতুতে উঠবেন না,
এই সেতু ভেইঙ্গে যাবে।’
পদ্মা সেতুর এই জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমি উনাকেও খুঁজছি।
বিশ্বব্যাংককে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে
আমরা আমাদের নিজেদের টাকায়,
৬.১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ
পদ্মা সেতু তৈরি করেছি, ইনশাল্লাহ্।
আমরা দুরন্ত দুর্বার পদ্মাবতীর কণ্ঠে
পরিয়ে দিয়েছি এই স্বর্ণসেতুহার।
পদ্মা সেতু তুমি আর স্বপ্ন নও, বাস্তব।
এই সেতু উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে
আমরা পশ্চিমা বিশ্বকে বুঝিয়ে দিলাম- বাংলাদেশ পারে।
পদ্মা সেতু আমাদের মস্ত অহংকার।
আর অপেক্ষা কিসের?
যান, জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু বলে
এখন মহানন্দে, মহাসুখে,
চোখের পলকে হোন পদ্মা পার।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়