গ্যালারি কায়া : বাংলাদেশ-ভারতের শিল্পীদের নিয়ে ‘এপিক ১৯৭১’

আগের সংবাদ

স্বস্তির ভোটে আইভীর হ্যাটট্রিক : সব শঙ্কা উড়িয়ে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট, শামীম ওসমানের কেন্দ্রে হেরেছে নৌকা

পরের সংবাদ

বাড়ছে করোনা সংক্রমণ : চট্টগ্রামে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৬, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৬, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রাম অফিস : করোনার ক্রমবর্ধমান সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের ১১ দফা নির্দেশনা প্রতিপালনে অভিযানে নেমেছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এদিকে গতকাল শনিবার সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রকাশিত প্রতিবেদনে চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরো ২৩৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ১২ দশমিক ২৯ শতাংশ। এ নিয়ে গত চার দিনে ১ হাজার ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হলো।
স্বাস্থ্যবিদরা বলছেন, চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণের হার উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। মানুষের উদাসীনতা ও অবহেলায় সংক্রমণ বাড়ছে। এর আগে এত দ্রুত সংক্রমণ বাড়তে দেখা যায়নি। চট্টগ্রামে নতুন বছরের প্রথম দিনে (১ জানুয়ারি) ৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়। গত ১৪ জানুয়ারি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৯৬ জন এবং গত ১৩ জানুয়ারি শনাক্ত হয়েছে ২৬০ জনের। ১ জানুয়ারি শনাক্তের হার ছিল ০.৬০ শতাংশ। ১১ দিনের ব্যবধানে (১২ জানুয়ারি) শনাক্তের হার বেড়ে দাঁড়ায় প্রায় সাড়ে ১২ শতাংশ। চিকিৎসকরা বলছেন, করোনার উপসর্গ হিসেবে সামান্য জ্বর-সর্দি দেখা দিচ্ছে, যা ৩/৪ দিনের ব্যবধানে আবার সেরেও যাচ্ছে। এ ধরনের মৃদু উপসর্গ থাকলেও অনেকেই নমুনা পরীক্ষা করাচ্ছেন না। তারা এটিকে স্বাভাবিক সর্দি-জ্বর মনে করছেন। তবে যারা করোনা টেস্ট করাচ্ছেন, তাদের বেশির ভাগেরই করোনা পজেটিভ পাওয়া যাচ্ছে। নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বাড়লে শনাক্তের সংখ্যা আরো বাড়বে।
করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে গতকাল শনিবার নগরের পাহাড়তলী বাজার দিয়েই শুরু হয় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান। অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুবল চাকমা বলেন, দিন দিন করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। তাই মানুষকে সচেতন করতে আমরা অভিযান পরিচালনা করছি। পাশাপাশি মানুষের মধ্যে মাস্কও বিতরণ করছি। প্রতিদিন সকাল-বিকাল দুই দফায় অভিযান পরিচালনা করে নগরবাসীকে সচেতন হতে হবে। কারণ করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বিকল্প নেই।
অন্যদিকে চট্টগ্রামে গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি বিধিনিষেধ মানা হচ্ছে কিনা তা তদারকি করতে সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছেন বিআরটিএর দুইজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। গতকাল শনিবার সকাল থেকে তারা চট্টগ্রামের বিভিন্ন সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। চট্টমেট্রো সার্কেল-১ ও চট্টমেট্রো সার্কেল-২ এর বাস টার্মিনাল এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত-১১ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট একি মিত্র চাকমার নেতৃত্বে অভিযান পরিচালিত হয়। চট্টগ্রাম জেলা সার্কেল এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত-১৩ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসিন মনিরার নেতৃত্বে অভিযান পরিচালিত হয়।
জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের গতকাল শনিবারের প্রতিবেদনে বলা হয়, চট্টগ্রামের ১০টি ল্যাবে ১ হাজার ৯৪৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৩৯ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ২১৮ জনই চট্টগ্রাম নগরের বাসিন্দা। বাকি ২১ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা।
চট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৪ হাজার ৪২৭ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে নগরের বাসিন্দা ৭৫ হাজার ৮৩২ জন। বাকি ২৮ হাজার ৫৯৫ জন বিভিন্ন উপজেলার। করোনায় আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত মোট ১ হাজার ৩৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৭২৫ জন নগরের, বিভিন্ন উপজেলায় মৃত্যু হয়েছে ৬১০ জনের।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়