সিদ্ধান্ত পরিবর্তন : শতভাগ যাত্রী নিয়ে চলবে গণপরিবহন

আগের সংবাদ

উৎসব-উৎকণ্ঠার ভোট আজ : সবার দৃষ্টি নারায়ণগঞ্জে > আইভী-তৈমূরের লড়াইয়ে বাড়তি মাত্রা শামীম ওসমান

পরের সংবাদ

নতুন নায়িকাদের প্রত্যাশা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৫, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৫, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

গত বছরটি ছিল চলচ্চিত্রের জন্য আরেকটি মন্দার বছর। করোনা মহামারির জন্য সারা বছরই সিনেমা মুক্তির সংখ্যা ছিল হাতেগোনা। সেভাবে কোনো সিনেমাই তেমন ব্যবসা সফল হতে পারেনি।
তবে বছরের শেষ দিকে কিছু গল্পনির্ভর সিনেমা মুক্তি পেয়েছিল। এই অল্প সংখ্যক সিনেমার মধ্য দিয়ে কয়েকজন নতুন নায়িকার অভিষেক হয়েছে বড়পর্দায়। নোভা ফিরোজ, প্রার্থনা ফারদিন দীঘি,
জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী, সাদিয়া নাবিলা, সাদিয়া মাহি ও তাহমিনা অথৈ- এই ৬ নায়িকা চলচ্চিত্রে অভিষেকের অনুভূতি এবং প্রত্যাশার কথা জানালেন। শুনলেন রোমান রায়
আমার আত্মবিশ্বাসকে আরো এক
ধাপ বাড়িয়ে দিয়েছে
নোভা ফিরোজ

টিভি জগতে পরিচিত মুখ নোভা ফিরোজ। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে কাজ করেছেন অসংখ্য নাটক, টেলিফিল্ম আর বিজ্ঞাপনে। পাশাপাশি তিনি উপস্থাপনাও করেন। এত বছর টিভি মাধ্যমে কাজ করলেও গত বছর প্রথমবারের মতো চলচ্চিত্রে তার অভিষেক হয়। গত ২৪ ডিসেম্বর ‘মৃধা বনাম মৃধা’ সিনেমার মধ্যে দিয়ে বড়পর্দায় অভিষিক্ত হন। রনি ভৌমিকের পরিচালনায় এসিনেমায় আরো অভিনয় করেছেন সিয়াম আহমেদ, তারিক আনাম খান। প্রথম সিনেমা দিয়ে করেন বাজিমাত। সিনেমার অন্য শিল্পীদের পাশাপাশি তার অভিনয়ও সবার কাছে বেশ প্রশংসিত হন। প্রথম সিনেমা দিয়ে সবার নজর কাড়তে সক্ষম হন তিনি। সিনেমায় অভিষেক হওয়া নিয়ে তিনি বলেন, কম-বেশি সব শিল্পীরই আশা থাকে বড়পর্দায় কাজ করা। অবশেষে নিজেকে বড়পর্দায় দেখতে পেরে খুবই ভালো লেগেছে। আসলে এতদিন ভালো একটা গল্প ভালো একটা চরিত্রের জন্য অপেক্ষায় ছিলাম। সেটা আমার ‘মৃধা বনাম মৃধা’ দিয়ে মিলে গিয়েছে। জানিনা কতটা ভালো করতে পেরেছি, তবে যারা দেখে প্রশংসা করেছেন। এটা আমার আত্মবিশ্বাসকে আরো এক ধাপ বাড়িয়ে দিয়েছে। চলচ্চিত্র নিয়ে আমার প্রত্যাশা হচ্ছে এমন ভালো গল্প নির্ভর চরিত্র পেলে অবশ্যই সিনেমায় অভিনয় করব।
হুট করেই নায়িকা হয়ে যাওয়া
প্রার্থনা ফারদিন দীঘি

২০০৬ সালে কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘কাবুলিওয়ালা’ দিয়ে শিশুশিল্পী হিসেবে আগমন ঘটে। চলচ্চিত্রে একজন শিশুশিল্পী হিসেবে দীঘি ছিলেন তুমুল জনপ্রিয় ও তুখোড় অভিনয়শিল্পী। শিশুশিল্পী হিসেবেই অর্জন করে নিয়েছেন তিনবার রাষ্ট্রীয় সম্মাননা। ছোটবেলায় তিনি নিয়ে নিয়েছেন তারকা তকমা। গত বছরের ১২ মার্চ ‘তুমি আছ তুমি নেই’ সিনেমার মাধ্যমে নায়িকা হিসেবে চলচ্চিত্রে তার অভিষেক হয়। নায়িকা হিসেবে তার অভিষেক মোটেও আশাব্যঞ্জক হয়নি। একই বছরে তার অভিনীত দ্বিতীয় সিনেমা ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ মুক্তি পায়।
চলচ্চিত্রে অভিষেক নিয়ে দীঘি বলেন, আমার আসলে হুট করে নায়িকা হয়ে যাওয়া হয়েছে। হুট করেই সিনেমায় কাজ শুরু করা, হুট করেই আমার নায়িকা হওয়া। ২০২০ সাল থেকেই সিনেমার সঙ্গে কাজ শুরু, বার সিনেমাটা মুক্তি পেল ২০২১ সালে। যদিও আমার আরো আগে কাজ করার কথা ছিল ‘বঙ্গবন্ধু’ সিনেমা দিয়ে। করোনা মহামারির জন্য বুঝতে পারছিলাম না কবে কাজ শুরু করতে পারব। হুট করেই এই কাজটা করা। নিজের প্রত্যাশা নিয়ে বলেন, ছোটবেলা থেকে আমি কাজ দিয়ে সবার যে, ভালোবাসাটা পেয়েছি বড় হয়েও আমি সে ভালোবাসাটা পেতে চাই। সেটা হোক দেরি, তবুও আমি এটা পেতে চাই।
চেষ্টা থাকবে আরো ভালো করার
জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী

‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-২০১৮’ জয়ী জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। গত ৩ ডিসেম্বর ‘মিশন এক্সট্রিম’ দিয়ে প্রথমবারের মতো চলচ্চিত্রে পর্দাপণ হয় ঐশীর। সানী সানোয়ার-ফয়সাল আহমেদের যৌথ পরিচালনায় এ ছবিতে আরিফিন শুভর বিপরীতে ছিলেন তিনি। প্রথম ছবি দিয়েই পেয়েছেন সাফল্য। পাশাপাশি তার সাবলীল অভিনয় মন জয় করে নিয়েছেন। ৩১ ডিসেম্বর তার অভিনীত দ্বিতীয় ছবি ‘রাত জাগা ফুল’ মুক্তি পায়। এই সিনেমার গল্প অভিনয় সবার কাছে বেশ প্রশংসিত হয়। বর্তমানে তার হাত ‘নূর’ এবং ‘আদম’ সিনেমা রয়েছে মুক্তির অপেক্ষায়, রয়েছে ‘মিশন এক্সট্রিম-২’। চলচ্চিত্রে অভিষেক নিয়ে ঐশী বলেন, আমার অভিষেক সাফল্যের সঙ্গে হল অবশ্যই ভালো লাগছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশেও ‘মিশন এক্সট্রিম’ ভালো যাচ্ছে এটা খুবই ভালো লাগছে। আমার দ্বিতীয় সিনেমা ‘রাত জাগা ফুল’ দেখে সবাই প্রশংসা করেছেন, কেউ একটা নেতিবাচক মন্তব্য করেননি। আমার দুটো সিনেমাই সফল হয়েছে। প্রত্যাশার কথা জানিয়ে ঐশী বলেন, যতটুকু করতে পেরেছি চেষ্টা থাকবে আরো ভালো করার। আমার এই কাজগুলো যেমন সফল হয়েছে, তেমনি সামনের কাজগুলোও সফল হয় এই প্রত্যাশা করি।

বছরে একটা কাজ করলেও সেটা
ভালো কাজ করব
সাদিয়া নাবিলা

সাদিয়া নাবিলা অস্ট্রেলিয়াতে পড়াশোনা করেছেন। তিনি অভিনয়ের পাশাপাশি একজন নৃত্যশিল্পী। ঢাকাই সিনেমাতে অভিষেকের আগেই বলিউডে তার অভিষেক ঘটে গিয়েছে। ২০১৮ সালে দেবেশ প্রতাব সিং পরিচালিত ‘প্যারেসান’ দিয়ে বলিউড যাত্রা শুরু করেন। গত ৩ ডিসেম্বর ‘মিশন এক্সট্রিম’ দিয়ে ঢাকাই সিনেমায় তার অভিষেক হলো। প্রথম সিনেমায় সফল হয়েছেন সাদিয়া নাবিলা। সিনেমাটা ব্যবসা সফলতার সঙ্গে পুলিশ অফিসার ইরা চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন তিনি। নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে সাদিয়া বলেন, নিজের দেশের প্রথম সিনেমায় কাজ করেছি, সেটা হলে মুক্তি পেয়েছে। আসলে এই অনুভূতি বলে বুঝানো যাবে না। অনেক ভালো লাগছে এত গুণী মানুষেদের সঙ্গে কাজ করেছি। সবার ভালোবাসা পেয়ে খুব ভালো লেগেছে। যারা আমাকে এত ভালোবাসা দিয়েছেন তাদের বলতে চাই এটা ছিল পার্ট ওয়ান, পার্ট ২ আরো ধামাকা হবে। আশা করছি সবাই পার্ট ২ দেখতে যাবেন। প্রত্যাশার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, আমি অবশ্যই সিনেমায় কাজ করতে চাই। তবে সেটা নির্ভর করবে ভালো গল্প ভালো প্রজেক্টের ওপর। বছরে একটা কাজ করব তবে সেটা ভালো কাজ করব। আর সবার ভালোবাসাটা ধরে রাখতে চাই।

সব মিলিয়ে একটা ভালো সময় পার করলাম
সাদিয়া মাহি

গত ৮ অক্টোবর রাশিদ পলাশের ‘পদ্মাপুরান’ সিনেমা দিয়ে চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে সাদিয়া মাহির। এসিনেমায় আরো ছিলেন, শম্পা রেজা, প্রসূন আজাদ, সুমিত সেন, কায়েস চৌধুরী, জয়রাজ প্রমুখ। প্রথম সিনেমায় বেশ সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। সিনেমায় অভিনয়ের জন্য নিজের মাথার চুল ফেলে দিয়ে ন্যাড়া হয়ে ছিলেন। পেয়েছেন প্রশংসা। চলচ্চিত্রে অভিষেক নিয়ে সাদিয়া বলেন, আমার প্রথম চলচ্চিত্র ‘পদ্মাপুরান’ নিয়ে অনেক বেশি প্রত্যাশা ছিল। এই সিনেমা দিয়ে চলচ্চিত্রে আমার অভিষেক হলো এটা অনেক আনন্দের ছিল। এই সিনেমাটার জন্য আমি চারটা বছর অনেক কষ্ট করেছি। সিনেমা শুরু থেকে মুক্তির সময় পর্যন্ত। অবশেষে আমার সিনেমাটা মুক্তি পেয়েছে খুব ভালো লেগেছে। এ সময়ে আমার বাচ্চা হয়েছে সব মিলিয়ে একটা ভালো সময় পার করলাম। প্রত্যাশার কথা জানিয়ে সাদিয়া মাহি বলেন, সিনেমায় কাজ করার ব্যাপারে অনেকের সঙ্গে কথা হচ্ছে। সামনে ভালো কিছু করব এই প্রত্যাশা।

প্রথম চলচ্চিত্র সব শিল্পীর জন্যই একটা সুখকর
তাহমিনা অথৈ

‘ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি-২০১৭’ জয়ী তাহমিনা অথৈ। পড়াশোনা করছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি উপস্থাপনা করেন। তার হাতে আরো দুটি সিনেমা রয়েছে ছেলেটি অদ্ভুত এবং চটলা এক্সপ্রেস। প্রয়াত নির্মাতা সাইদুল আনাম টুটুলের ‘কালবেলা’ সিনেমা দিয়ে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় তাহমিনা অথৈর। সিনেমাটা গত ১০ ডিসেম্বর মুক্তি পায়। চলচ্চিত্রে অভিষেক হওয়া নিয়ে তাহমিনা অথৈ বলেন, প্রথম চলচ্চিত্র তো সব শিল্পীর জন্য একটা সুখকর হয়। সিনেমাটা নিয়ে একটা ভয় কাজ করে, একটা ভালোবাসা কাজ করে। কাজটা তো ভালোবাসা নিয়েই করে থাকে। সিনেমাটা মুক্তির আগে টেনশন ছিল দর্শকরা কীভাবে নিবেন, আমার অভিনয় পছন্দ করবেন কিনা। কিন্তু সিনেমা মুক্তির পর সবার ভালো লেগেছে, সবাই আমার অভিনয়ের প্রশংসা করেছেন তখন খুব ভালো লেগেছে। সঙ্গে কিছুটা আশাহত হয়েছি। সেটা হলো সিনেমার ট্রেলার থেকে সবকিছু আমরা যখন প্রচার করেছি, তখন সবাই বেশ ভালো বলেছে। ভালো একটা সিনেমা আসছে। কিন্তু সিনেমা মুক্তির পর দেখা গেল সিনেমাটা দেখতে সে পরিমাণ দর্শক আসেনি। প্রত্যাশার জায়গায় পূরণ হয়নি। সেজন্য একটু মন খারাপ লেগেছিল। প্রত্যাশা নিয়ে অথৈ বলেন, এই সিনেমায় কাজ করার মধ্য দিয়ে সামনে আমার আরো ভালো ভালো সিনেমায় কাজ করার দায়িত্ব বেড়ে গিয়েছে। যেহেতু আমার শুরুটা একজন গুণী মানুষের হাত ধরে হয়েছে। একটা ভালো কাজ দিয়ে। সেহেতু চেষ্টা করব সেটা ধরে রাখার।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়