নৌপুলিশের অভিযান : ৩৫ লাখ মিটার জাল জব্দ

আগের সংবাদ

পঞ্চম দফায়ও সারাদেশে ব্যাপক সহিংসতা > ভোটে ঝরল আরো ১১ প্রাণ : পুলিশের গাড়িতে আগুন, আহত শতাধিক, আটক অর্ধশত

পরের সংবাদ

ইরানে বিমান ভূপাতিত : ছয় নিহতের ক্ষতিপূরণ ১১ কোটি ডলার

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৫, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ৫, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : ২০২০ সালে তেহরানের কাছে ভূপাতিত বিমানের নিহত ছয় আরোহীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন কানাডার একটি আদালত। রায়ে এই পরিবারগুলোকে সুদসহ ১০ কোটি ৭০ লাখ কানাডীয় ডলার ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।
অন্টারিওর সুপিরিয়র কোর্ট অব জাস্টিসের দেয়া রায় অনুযায়ী নিহতদের স্বামী বা স্ত্রী, ভাই, সন্তান, ভাইপো এবং ভাইঝি এই ক্ষতিপূরণ পাবেন। তেহরান থেকে উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরই ইউক্রেন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট পিএস৭৫২ কে আঘাত করে দুটি ক্ষেপণাস্ত্র। ইরান জানায়, মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র ভেবে ভুলবশত বিমানটি লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়।
এতে বিমানের ১৭৬ আরোহীর সবাই নিহত হন। এদের মধ্যে ৫৫ জন ছিলেন কানাডার নাগরিক এবং ৩৫ জন কানাডার স্থায়ী আবাসিকতার অনুমোদনপ্রাপ্ত। নিহতদের স্বজনরা ইরান এবং এই ঘটনার জন্য দায়ী বলে চিহ্নিত অন্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।
ক্ষতিপূরণের অর্থ ইরানের কাছ থেকে কীভাবে আদায় করা হবে তা তাৎক্ষণিকভাবে স্পষ্ট নয়। স্বজনদের আইনজীবী মার্ক আরনল্ড জানান, তারা কানাডা এবং বাইরে থাকা ইরানিয়ানদের সম্পদ জব্দ করে অর্থ আদায় করার কথা ভাবছে। কানাডার সংবাদমাধ্যম সিবিসি জানায়, আদালতে ইরান আত্মপক্ষ সমর্থন করেনি। আর এবারই প্রথমবার হতাহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ এলো। গত বছর কানাডা সরকারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিমানটি ভূপাতিতের পুরো দায় ইরানের। এটি অযোগ্যতা এবং বেপরোয়া আচরণের ফলাফল।
২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি বিমানটি ভূপাতিতের পর প্রাথমিকভাবে ইরানি কর্তৃপক্ষ নিজেদের দায় অস্বীকার করে। পরে প্রমাণ সামনে আসতে থাকলে ইরানের বিপ্লবী বাহিনীর এরোস্পেস উইং জানায়, বোয়িং ৭৩৭-৮০০ বিমানটিকে ভুলবশত মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র ভেবে বসে তাদের একটি আকাশ প্রতিরক্ষা ইউনিট। ওই সময়ে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় ছিল ইরান। কারণ এর কয়েক দিন আগে ইরাকের দুই মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। বাগদাদে মার্কিন ড্রোন হামলা চালিয়ে জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ নিতে ওই ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়। এর আগে ৩ জানুয়ারি মার্কিন হামলায় নিহত হন সোলাইমানি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়