শাহজালাল বিমানবন্দর : পাকস্থলীতে করে ইয়াবা পাচারের সময় গ্রেপ্তার ১

আগের সংবাদ

নেতৃত্বের দ্বন্দ্বে বাড়ছে সহিংসতা

পরের সংবাদ

নানা আয়োজনে প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপন

প্রকাশিত: অক্টোবর ২২, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২২, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : প্রতি বছরের ন্যায় এবারো দেশের বিভিন্ন স্থানে বৌদ্ধধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপিত হয়েছে। এ উপলক্ষে গত বুধবার সকাল থেকেই সারাদেশের বিভিন্ন স্থানে পঞ্চশীল গ্রহণ, প্রার্থনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, মোমবাতি ও ফানুস উড়ানোসহ প্রদীপ প্রজ্বালন করেছেন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা। এরপর অষ্ট পরিষ্কার দান, অষ্টশীল গ্রহণ, বুদ্ধ পূজা প্রভৃতি আচার শেষে দেব-মানবের তথা সব প্রাণীর হিতার্থে ধর্ম নির্দেশনা দেয়া হয়।
বৌদ্ধ ধর্ম মতে, এই পুণ্যময় পূর্ণিমা তিথিতে মহামানব গৌতম বুদ্ধ ভারতের সাংকাশ্য নগরে অবতরণ করেন। মানবজাতির সুখ, শান্তি ও কল্যাণের লক্ষ্যে দিকে দিকে স্বধর্ম প্রচারের জন্য তিনি ভিক্ষু সংঘকে নির্দেশ দেন। একইদিনে তার তিন মাসের বর্ষাবাসের পরিসমাপ্তি ঘটে। দিনটি উপলক্ষে বৌদ্ধ স¤প্রদায়ের নানা ধরনের উৎসবের আয়োজন রয়েছে। এই দিন বৌদ্ধ ভিক্ষুরা আত্মার অপবিত্রতা ও কলুষতা থেকে পবিত্র হওয়ার জন্য তিন মাসব্যাপী নির্জন আশ্রমে বাস শেষে প্রবারণা পূর্ণিমার মাধ্যমে লোকারণ্যে ফিরে আসেন। একে আশ্বিনী পূর্ণিমাও বলা হয়।
জানা গেছে, রাজধানীর সবুজবাগের বৌদ্ধ মন্দির, রাঙ্গামাটি ও বান্দরবানসহ বিভিন্ন জায়গায় যথাযথ ধর্মীয় গাম্ভীর্যে মঙ্গলসূত্র পাঠের মধ্য দিয়ে প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপন করা হয়েছে। এ উৎসবকে ঘিরে জেলার বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারগুলোতে বিরাজ করছে এক উৎসব মুখর পরিবেশ। বৌদ্ধ বিহারগুলোতে সমাবেশ ঘটে বৌদ্ধ ভিক্ষুসহ বৌদ্ধ নর-নারীদের।

এছাড়াও প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বিশেষ ধর্মীয় আলোচনা সভা ও সন্ধ্যায় রিছিমি অর্থাৎ প্রদীপ জ্বালিয়ে নদীতে ভাসিয়ে দেয়ার কর্মসূচি পালন করা হয়। প্রবারণা পূর্ণিমায় আসা পুণ্যার্থীরা জানান, পৃথিবীতে সব মানুষ যেন শান্তিতে একসঙ্গে বসবাস করতে পারে। যার যার ধর্ম সঠিকভাবে পালন করতে পারে এবং বিশ্ব যেন মহামারি করোনা থেকে মুক্তি পায় সেই প্রার্থনা করেন।
উল্লেখ্য, আড়াই হাজার বছর আগে গৌতম বুদ্ধ বুদ্ধত্ব লাভের পর আষাঢ়ী পূর্ণিমা থেকে আশ্বিনী তিথি পর্যন্ত তিন মাস বর্ষাবাস পালন শেষে প্রবারণা উৎসব পালিত হয়। প্রবারণা পূর্ণিমার পরদিন থেকে এক মাস প্রতিটি বৌদ্ধবিহারে শুরু হয় দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দান উৎসব।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়