নতুন রাজনৈতিক দল নিবন্ধনের গণবিজ্ঞপ্তি

আগের সংবাদ

অনুমোদনহীন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার : অভিযানে বন্ধ অনেক প্রতিষ্ঠান

পরের সংবাদ

প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে চুরি : ২০ ভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ গৃহকর্মী গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: মে ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মে ২৮, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : জোছনা আক্তার পেশায় গৃহকর্মী। কিন্তু এর আড়ালে তার আসল নেশা চুরি করা। গৃহকর্তা-গৃহকর্ত্রীর বিশ্বস্ততা অর্জনের পর সুযোগ বুঝেই স্বর্ণালঙ্কার, অর্থকড়ি নিয়ে চম্পট দেন তিনি। সর্বশেষ বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি বাসায় গৃহকর্মী প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে ২০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, টাকা ও মোবাইল চুরি করে পালিয়ে যান জোছনা। গৃহকর্তার দায়ের করা মামলার তদন্তে নেমে জোছনাকে এবং তার প্রেমিক জামালকে গ্রেপ্তারের পর গতকাল শুক্রবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছে ভাটারা থানা পুলিশ।
ভাটারা থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজেদুর রহমান বলেন, গত ২১ মে বসুন্ধরা এলাকার এক বাসিন্দা থানায় অভিযোগ করেন তার বাসা থেকে স্বর্ণালঙ্কারসহ নগদ ১০ হাজার টাকা চুরি হয়েছে। এ ঘটনায় তিনি তার বাসার গৃহকর্মী জোছনা আক্তারকে সন্দেহভাজন উল্লেখ করে একটি মামলা করেন। ভুক্তভোগী জানান, তারা স্বামী-স্ত্রী দুজনই চাকরিজীবী। বাসায় তার বৃদ্ধা মা ছাড়া কেউ থাকেন না। গৃহকর্মী সাপ্লাই দেয়া সোর্সের মাধ্যমে জোছনা আক্তার তার বাসায় কাজ নেন। এ সুযোগে জোছনা বাসার আলমারি থেকে স্বর্ণালঙ্কারসহ নগদ টাকা চুরি করে পালিয়ে যান।
মামলা দায়েরের পর চুরি যাওয়া মালামাল উদ্ধার ও আসামি গ্রেপ্তারে ভাটারা থানার একটি দল কাজ শুরু করে। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় জোছনা ও তার প্রেমিক জামালকে রাজধানীর খিলক্ষেত থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাটে জোছনার এক স্বজনের বাসার পরিত্যক্ত টয়লেট থেকে স্বর্ণালঙ্কারগুলো উদ্ধার করা হয়। প্র্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জোছনা পুলিশকে জানিয়েছে, তিনি গৃহকর্মী পেশার আড়ালে চুরির সঙ্গে জড়িত। এর আগেও এভাবে চুরি করেছেন। তাকে চুরি শেষে পালাতে সহায়তা করেছেন প্রেমিক জামাল।
ওসি সাজেদুর জানান, গ্রেপ্তার জামাল পেশায় একজন গাড়িচালক। তিনি বিভিন্ন ভাড়া করা গাড়ি চালাতেন। জোছনার চুরির বিষয়ে শুরু থেকে তিনি নানাভাবে সহযোগিতা করেছেন। জোছনার বিরুদ্ধে আরো একটি মামলায় ওয়ারেন্টও রয়েছে।

ওসি বলেন, অনেকেই বাসার কাজের লোকদের বিষয়ে উদাসীন। কেউ কেউ বাসার মূল্যবান সম্পদের চাবি দিয়ে রাখেন গৃহকর্মীদের কাছে। এসব বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, গৃহকর্মী নিয়োগ দেয়ার আগে তাদের বিষয়ে খোঁজখবর নিতে হবে। নিয়োগের পরে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র ও ছবি তুলে রাখতে হবে। যে সোর্সের মাধ্যমে গৃহকর্মী নিয়োগ করা হবে, সেই সোর্সের তথ্যও সংরক্ষণ করতে হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়