দিতির কথা

আগের সংবাদ

গণভবনে ডাকসুর নেতারা

পরের সংবাদ

জীবন ও রাজনৈতিক বাস্তবতা

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ১৬, ২০১৯ , ৪:৩১ অপরাহ্ণ | আপডেট: মার্চ ১৬, ২০১৯, ৪:৩১ অপরাহ্ণ

Avatar

বাংলাদেশের নাট্যাঙ্গনের এক অনন্য নাম সৈয়দ জামিল আহমেদ। ‘বিষাদ সিন্ধু’, ‘বেহুলার ভাসান’ মঞ্চে নির্দেশনা দিয়ে খ্যাতি কুড়িয়েছেন তিনি। সবশেষ ‘রিজওয়ান’ মঞ্চে নির্দেশনা দিয়ে ঢাকার নাট্যাঙ্গনে রীতিমতো ঝড় তুলেছিলেন। এবার নতুন নাটক মঞ্চে এসেছে জামিল আহমেদের নির্দেশনায়। প্রখ্যাত সাহিত্যিক শহীদুল জহিরের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক উপন্যাস ‘জীবন ও রাজনৈতিক বাস্তবতা’ এবার মঞ্চে এলো তার নির্দেশনায়। নাটকটি মঞ্চে এনেছে প্রযোজনাভিত্তিক নাট্য সংগঠন ‘স্পর্ধা’। গত ১৪ মার্চ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় নাটকটির উদ্বোধনী প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে মঞ্চাঙ্গনে যাত্রা করে স্পর্ধা। প্রযোজনাটি পরিকল্পনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন সৈয়দ জামিল আহমেদ। ৪৮তম স্বাধীনতা দিবসকে কেন্দ্র করে অনুষ্ঠিতব্য সপ্তাহব্যাপী এ নাট্যযজ্ঞের শিরোনাম ‘মুক্তিযুদ্ধ নাট্য উৎসব’। নাটকটির মঞ্চায়নে সহযোগিতা করছে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি। শহীদুল জহিরের উপন্যাস থেকে নাটক তৈরি প্রসঙ্গে জামিল আহমেদ বলেন, ‘শহীদুল জহির মুক্তিযুদ্ধকে যেভাবে উপস্থাপন করেছেন, সেটা আমার ভেতরে দাগ কেটেছে। এ রকম দাগ খুব কম উপন্যাস বা নাটক ফেলতে পেরেছে। এ নাটক মঞ্চে আনার উদ্দেশ্য একটাই। যুদ্ধটা কেমন ছিল, যুদ্ধবিরোধীরা যুদ্ধ শেষে কীভাবে পুনর্বাসিত হয়েছিল, সেটার প্রতি রূপায়ন লেখক কত তীক্ষèভাবে করেছেন, সেটাই দেখানো। আমাদের ৪৮তম স্বাধীনতাবার্ষিকী সেটার জন্য উপযুক্ত সময়। এর মধ্য দিয়ে একাত্তরের স্বাধীনতায় শহীদদের প্রতি, শেখ মুজিবের প্রতি, যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো যাবে। এ ছাড়া ১৭ মার্চ শেখ মুজিবের ৯৯তম জন্মবার্ষিকীর দিনের প্রদর্শনীটি তাকে উৎসর্গ করা হবে।’
‘মুক্তিযুদ্ধ নাট্য উৎসব ২০১৯’ উপলক্ষে ১৪ থেকে ২০ মার্চ সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় ‘জীবন ও রাজনৈতিক বাস্তবতা’ নাটকের প্রদর্শনী হবে। প্রতিদিন একই সময়ে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে মঞ্চস্থ হবে নাটকটি। এ ছাড়া ১৫ থেকে ১৭ ও ২০ মার্চ বেলা সাড়ে তিনটায় থাকবে আরো চারটি প্রদর্শনী। দুই ঘণ্টার এ নাটকে অভিনয় করেছেন ২০ জন শিল্পী। দলটির উপদেষ্টা সৈয়দ জামিল আহমেদ। নাটকের অগ্রিম টিকেট মিলবে অনলাইনে। দাম পড়বে ১০০০, ৫০০, ৩০০ এবং শিক্ষার্থীদের জন্য ১০০ টাকা। ‘স্পর্ধা’ দলটির প্রসঙ্গে জামির আহমেদ বলেন, আমরা একটি পেশাদার দল গড়তে চেয়েছি। কয়েকজন অভিনেতাকে কর্মশালা করিয়ে একটি নাটক একটানা প্রদর্শনী করে শেষ করে ফেলব। পরে আবার নতুন কোনো নাটক নিয়ে কাজ করব। ‘জীবন ও রাজনৈতিক বাস্তবতা’ থেকে প্রাপ্ত আয় থেকে এই অভিনেতাদের সম্মানী দেয়া হবে। রেপার্টরি থিয়েটার প্রসঙ্গে সৈয়দ জামিল আহমেদ বলেন, ‘স্পর্ধা রেপার্টরি থিয়েটার নয়। রেপার্টরি থিয়েটার নিয়ে আমাদের মধ্যে বিভ্রান্তি আছে। রেপার্টরি থিয়েটার মানেই তাদের নিজেদের একটি হল থাকবে। দুই বা এক বছরের চুক্তিতে তারা অভিনেতাদের নিয়োগ দেবেন। বাড়ি থেকে পরিচালককে ডেকে এনে নাটক পরিচালনা করাবেন। তারপর দুই বা তিনটি নাটক সারা বছর ধরে প্রদর্শনী করতে থাকবে। আমাদের এখানে সেই অর্থে কোনো রেপার্টরি কোম্পানি তৈরি হয়নি।’
জানা গেছে, গত ১ জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহড়া কক্ষে শুরু হয় নাটকটির চ‚ড়ান্ত মহড়া। এর আগে অভিনেতা নির্বাচনের জন্য নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসব্যাপী চারটি অভিনয় কর্মশালা আয়োজন করে নাট্য সংগঠনটি। যেখানে দেশের বিভিন্ন নাট্য সংগঠন ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৬৬ নাট্যকর্মী অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালা পরিচালনা করেন অধ্যাপক সৈয়দ জামিল আহমেদ। কর্মশালা থেকে নির্বাচিত ২০ জন অভিনেতা অংশ নেয় চ‚ড়ান্ত মহড়ায়। উল্লেখ্য, ‘স্পর্ধা’ একটি প্রযোজনাভিত্তিক নাট্য সংগঠন। রিজওয়ান নাটকের সফলতার ধারাবাহিকতায় এ সংগঠনটি তৈরি হয়েছে। সংগঠনটির উপদেষ্টা হিসেবে আছেন অধ্যাপক সৈয়দ জামিল আহমেদ। অন্যান্য স্থায়ী সদস্য হলেন মহসিনা আক্তার, সাইফুল ইসলাম মণ্ডল, মো. সোহেল রানা এবং মো. আবদুর রাহীম খান।

  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা