×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

ভিডিও

অবৈধ অর্থ আড়াল করতে যেভাবে আত্মীয়স্বজনদেরও ফাঁসিয়েছেন ফয়সাল

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ৩০ জুন ২০২৪, ১২:৫৬ পিএম

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড যেন আলাদিনের চেরাগ। মতিউর জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদ্য সাবেক সদস্য মতিউরের নামে সম্পদের পাহাড়ের হদিস মিলেছে। অন্যদিকে সংস্থাটির প্রথম সচিব ফয়সাল। তার নামেও রয়েছে কোটি টাকার হিসেব দুদকের কাছে। শুধু তাই নয়, মতিউর ও ফয়সাল দুজনেই সম্পদ গড়তে গিয়ে জড়িয়েছেন পরিবার সদস্যদের।  

অবৈধ অর্থ আড়াল করতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের পাশাপাশি শ্বশুর-শাশুড়িসহ কাছের ও দূরের অনেক আত্মীয়স্বজনকে ফাঁসিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ১ম সচিব (কর) কাজী আবু মাহমুদ ফয়সাল।

আদালতে জমা দেওয়া দুদকের নথিতে বলা হয়েছে, ফয়সাল, তার স্ত্রী আফসানা জেসমিন, ফয়সালের ভাই কাজী খালিদ হাসান, শ্বশুর আহম্মেদ আলী, শাশুড়ি মমতাজ বেগম, শ্যালক আফতাব আলী, খালাশাশুড়ি মাহমুদা হাসান, মামাশ্বশুর শেখ নাসির উদ্দিন, আত্মীয় খন্দকার হাফিজুর রহমান, রওশন আরা খাতুন ও ফারহানা আফরোজের নামে ব্যাংক হিসাব খুলে অপরাধলব্ধ আয় লেনদেন করা হয়েছে।

এর মধ্যে ফয়সালের নামে ছয়টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৫ কোটি ২১ লাখ ও ফয়সালের স্ত্রী আফসানা জেসমিনের পাঁচটি ব্যাংক হিসাবে ২ কোটি ২৫ লাখ টাকা জমা হয়। ফয়সালের শ্বশুর আহম্মেদ আলীর আটটি ব্যাংক হিসাবে জমা হয় ১১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা।শাশুড়ি মমতাজ বেগমের নামে ১০টি ব্যাংক হিসাবে ৭ কোটি টাকা জমা হয়। 

এছাড়া ফয়সালের শ্যালক আফতাব আলীর ৬টি ব্যাংক হিসাবে জমা হয়েছে ১ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।বিভিন্ন সময়ে এসব টাকা জমা হওয়ার পর বেশিরভাগই তুলে নেওয়া হয়েছে। তবে লেনদেনের পর ফয়সাল, তার স্ত্রী, শ্বশুর ও তার স্বজনদের ১৯টি ব্যাংক ও ১টি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের হিসাবে এখনো প্রায় ৭ কোটি টাকা স্থিতি আছে। এছাড়াও তাদের নামে রয়েছে ২ কোটি ৫৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র।

দুদকের অনুসন্ধান ও আত্মীয়স্বজনদের নামে অ্যাকাউন্ট খুলে বিপুল টাকা লেনদেনের বিষয়ে জানতে ফয়সালের মোবাইল ফোনে কল করা হলে তা বন্ধ পাওয়া গেছে।শুক্রবার সিদ্ধেশ্বরীতে রূপায়ণ স্বপ নিলয়ের বাসায় গিয়েও তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি। ডিউটিরত এক নিরাপত্তারক্ষী জানান, তারা বাসায় নেই।

দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০০৫ সালে বিসিএস (কর) ক্যাডারে সহকারী কর কমিশনার হিসাবে কর্মজীবন শুরু করেন ফয়সাল। বর্তমানে তিনি এনবিআরের আয়কর বিভাগের প্রথম সচিব (ট্যাক্সেস লিগ্যাল অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট) হিসাবে দায়িত্বরত।

চাকরি জীবনে ঘুস-দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল অঙ্কের অর্থ উপার্জন করেছেন। তার অপরাধলব্ধ অর্থই শ্বশুর-শাশুড়ির নামে করা ব্যাংক অ্যাকাউন্টে লেনদেন করা হয়েছে। গত বছর থেকে দুদক ফয়সালের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করে।

প্রাথমিক অনুসন্ধান শেষে বৃহস্পতিবার ফয়সাল ও তার আত্মীয়স্বজনের নামে সম্পদের বিবরণী আদালতের কাছে তুলে ধরে তা ক্রোক ও জব্দ করার আবেদন করেন অনুসন্ধান কর্মকর্তা।

 

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App