×

ভিডিও

রাজধানীতে রাস্তার মাঝে বাড়ি, পথচারী ও যানবাহনের জন্যে হুমকি

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ২২ জুন ২০২৪, ০৮:১৩ এএম

আগারগাঁও থেকে শিশুমেলা পর্যন্ত সৈয়দ মাহবুব মোর্শেদ ছয় লেনের  সুপ্রশস্ত রাস্তার মধ্যে একটি ব্যক্তিমালিকানাধীন ভবন রেখেই শেষ করা হয়েছে এর নির্মাণ কাজ। সড়কের মধ্যে ভবনটির জমি আগে অধিগ্রহণ না করায় এবং ভবনের মালিক তার জমি ছাড়তে রাজি না হওয়ায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন ভবনটি রেখেই রাস্তার উন্নয়ন কাজ করেছে। তাহলে ক্ষমতা কার বেশি সরকার নাকি বাড়ি মালিকের এমন প্রশ্ন এখন জনসাধারণের?  

আগারগাঁও মোড় থেকে শিশুমেলা পর্যন্ত সড়কটির পাশেই রয়েছে অন্তত ১২টি সরকারি হাসপাতাল, ২৫টির মতো সরকারি অফিস, ৫টি জাদুঘরসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। কিন্তু এই বাড়িটি এখন বড় সংকট হয়ে দাঁড়িয়েছে এই রাস্তায় চলাচলকারি জনসাধারণের জন্য।

একতলা  এই ভবনটির মালিক নূরজাহান বেগম। ভবনটির দেয়ালে সাঁটানো আছে ভবন মালিকের করা রিটের এবং আদালতের দেওয়া রায়ের নোটিশ। রাস্তার বাড়িটি ৬ শতাংশ জমি দখল করে আছে। যা হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে পথচারী থেকে শুরু করে বিভিন্ন যানবাহনের জন্য।

১৫০ ফুট প্রস্থের ছয় লেনের মধ্যে ৬ শতাংশ জমিটি নূরজাহান বেগম ১৯৬৪ সালে ক্রয় করেন। রাস্তায় তার জমির অংশ পড়লেও সরকার কেনো এখনো জায়গা নিতে পারেনি বিষয়টি নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন। তাহলে কি সরকারের চেয়ে মালিকের ক্ষমতা বেশি?

এ বিষয়ে জানতে বাড়ির মালিকের সাথে কথা বলতে বাড়িতে গেলে গেটে তালা লাগানো দেখা যায়।

জানা গেছে, বাড়িটি অবৈধ বলে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন রিট করলেও সেটি গ্রহণযোগ্যতা পায়নি। পরবর্তীতে বাড়ির মালিক ঢাকা উত্তর সিটিসহ সড়কের সাথে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর বিরুদ্ধে রিট করেন এবং এর প্রেক্ষিতে আদালত ভবন মালিকের বৈধতা দেন ও ভবনটির বিষয়ে স্থিতাবস্থা জারি করেন। 

সড়কটির উত্তর পাশে অবস্থিত এই বাড়িটি সড়কের প্রায় অর্ধেকটাই দখল করে আছে। ফলে ফুটপাতও অনেকটা সংকুচিত হয়েছে। রাস্তা দিয়ে যেমন যান চলাচলে সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে তেমনি ফুটপাত দিয়েও হাঁটাচলায় সমস্যায় পড়ছেন পথচারীরা। 

দ্রুত বিবাদমান এই সমস্যাটি সমাধান করা হোক এমনটাই প্রত্যাশা জনসাধারনের।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App