×

ভিডিও

যে কারণে কঙ্গনাকে চড় মেরেছেন কনস্টেবল

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ০৭ জুন ২০২৪, ০৭:৪৭ পিএম

সদ্য সমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে হিমাচল প্রদেশের মান্ডি আসনে বিজেপির টিকিটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন বলিউড তারকা কঙ্গনা। তিনি প্রথমবার নির্বাচনে অংশ নিয়েই জয় পেয়েছেন। তাঁর কাছে হেরেছেন কংগ্রেস নেতা বিক্রমাদিত্য সিং।

নির্বাচনে জয়লাভ করে বেশ আলোচনায় কঙ্গনা। এবার আরও একটি বিষয়ে আলোচনায় এসেছেন এই বলিউড তারকা।নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য কঙ্গনাকে চড় মেরেছেন সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সের কনস্টেবল কুলবিন্দর কৌর। তিনি হয়তো কখনো ভাবেননি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার ২ দিনের মাথায় এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হবেন।

তবে এ ঘটনায় কনস্টেবলকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।অভিনেত্রী থেকে রাজনীতিবিদ বনে যাওয়া কঙ্গনাকে ৬ জুন ভারতের চণ্ডীগড় বিমানবন্দরে সিআইএসএফ কনস্টেবল কুলবিন্দর কষে চড় মারেন। পরিবারের সাথে দিল্লি যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। সময় তাকে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। এ ঘটনায় তাঁকে আটক করা হয়েছে এবং তাৎক্ষণিকভাবে সাময়িক বরখাস্ত করেছে কর্তৃপক্ষ। ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করেছে সিআইএসএফ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে চণ্ডীগড় থেকে দিল্লির উদ্দেশে রওনা দেন কঙ্গনা। স্থানীয় সময় বিকাল ৩টায় বিস্তারার বিমানে ওঠার কথা ছিল তার। সেখানেই নিরাপত্তাজনিত কারণে তল্লাশির সময়ে ওই নিরাপত্তারক্ষীর সঙ্গে অভিনেত্রীর তর্কবিতর্ক হয় ।

বিমানবন্দরে তল্লাশির সময়ে নিজের মোবাইল ফোনটি নির্দিষ্ট ট্রে-তে রাখতে রাজি হননি কঙ্গনা। তাতে আপত্তি করেন নিরাপত্তারক্ষী। তিনি অভিনেত্রীকে জানান, বিমানবন্দরের নিরাপত্তার নিয়ম অনুযায়ী, মোবাইল ওই ট্রে-তে রাখতে হবে। তার জেরেই ঝামেলা শুরু হয়। বিমানবন্দরের পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। কঙ্গনা ওই নারী নিরাপত্তারক্ষীকে ধাক্কা মারেন। এরপরেই ওই নিরাপত্তারক্ষী তাকে চড় মারেন।

সূত্রের খবর, দিল্লিতে নেমে সিআইএসএফের ডিরেক্টর জেনারেল নীনা সিংহ এবং অন্যান্য শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করেছেন কঙ্গনা। চণ্ডীগড় বিমানবন্দরে কী কী ঘটেছে, তা কর্মকর্তাদের কাছে ব্যাখ্যা করেন। নিরাপত্তারক্ষীর বিরুদ্ধে হেনস্থার অভিযোগও করেছেন তিনি।

বলা হচ্ছে, ভারতে ২০২০-২১ সালের কৃষক বিক্ষোভের সময় আন্দোলনে অংশ নেওয়া পাঞ্জাবের নারীদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন কঙ্গনা। এ কারণে তাঁর ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন পাঞ্জাবের অধিবাসী কুলবিন্দর। এই ক্ষোভ থেকেই তিনি কঙ্গনাকে চড় মেরেছেন।

কথিত ঘটনার পর একটি ভিডিওতে কনস্টেবল কুলবিন্দরকে বলতে শোনা যায়, তাঁর মা-ও বিক্ষোভকারীদের একজন ছিলেন। কুলবিন্দর পাঞ্জাবের সুলতানপুর লোধির বাসিন্দা তিনি। দুই বছর ধরে চণ্ডীগড় বিমানবন্দরে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন এই নারী।

কুলবিন্দরের স্বামীও সিআইএসএফের একজন সদস্য। এই দম্পতির দুটি সন্তান রয়েছে। কুলবিন্দরের ভাই শের সিং। তিনি একজন কৃষকনেতা। তিনি কিষান মজদুর সংগ্রাম কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App