×

ভিডিও

রাইসিকে বিদায় জানাতে ইরানে ৬৮ দেশের প্রতিনিধি

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২৪, ০৬:২০ পিএম

তিনি একজন বিচারক, ছিলেন সফল রাষ্ট্র নায়ক আর শেষ বিচারে একটি জাতির আপোষহীন নেতা। তাই তো লাখো কোটি মানুষের অশ্রুসিক্ত নয়নে শেষ বিদায়ের শব। শিয়াদের হৃদয়ে কত শত ভালোবাসা আর বীরত্বের গল্প জড়িয়ে আছে ইরানের ইসলামী বিপ্লব থেকে শুরু করে মধ্যপ্রাচ্যের পরাশক্তি রূপান্তরিত হওয়া ইতিহাসে।

বলছি সদ্য প্রয়াত ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির কথা। গতকাল ২২ মে তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে তার জানাজায় লাখো মানুষ অংশ নেয়। এ দিন রাইসিকে সম্মান জানাতে অংশ নিয়েছেন বিদেশি গণ্যমান্য ব্যক্তিসহ ৬৮ দেশের প্রতিনিধি। জাতির শ্রেষ্ঠ বীরকে শেষ বিদায়ে নারী-পুরুষ সবাই মিলে ছিল এক মোহনায়।

আনাদোলু এজেন্সির জানিয়েছে, বিদেশি গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অভ্যর্থনা জানান ইরানের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ মোখবার, ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলী বাগেরি এবং অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তারা, সংকটকালে ইরানের পাশে থাকায় বিদেশি রাষ্ট্রের নেতাদের ধন্যবাদ জানান।

জানাজায় অংশ নেওয়া বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা ইব্রাহিম রাইসির রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে দক্ষতা ও বন্ধুত্বভাবাপন্ন মনোভাব স্মরণ করেন। নিহত সবার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন। জানাজায় ইমামতি করেন সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি তেহরানে অনুষ্ঠিত।

রাইসির জন্ম দেশটির দ্বিতীয় বড় শহর মাশাদে ১৯৬০ সালে। রাইসির বাবা ছিলেন একজন ধর্মীয় নেতা। তার বয়স যখন পাঁচ তখন তার বাবা মারা যান। শিয়া ধর্মীয় ঐতিহ্য অনুযায়ী তিনি ইসলামের নবীর বংশধরদের মতো কালো পাগড়ি পরেন। 

বাবার পথ অনুসরণ করে তিনি ১৫ বছর বয়সে পবিত্র কুম শহরে এক শিয়া মাদ্রাসায় যোগ দেন। সেখানে শিক্ষার্থী থাকা অবস্থায় তিনি পশ্চিমা সমর্থিত শাহ-এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদে অংশ নেন। অবশেষে ১৯৭৯ সালে আয়াতুল্লাহ আলী খামেনির নেতৃত্বে ইসলামি বিপ্লবের মাধ্যমে শাহ-এর শাসনের পতন ঘটে।

বিপ্লবের পর তিনি যোগ দেন বিচার বিভাগে এবং আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে বেশ কয়েকটি শহরে কৌঁসুলির দায়িত্ব পালন করেন। ২০২১ সালের ৩ আগস্ট প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছিলেন ৬৩ বছর বয়সি রাইসি।

একজন কট্টরপন্থি ধর্মীয় নেতা হিসেবে বিবেচনা করা হতো তাকে। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা হিসেবে আয়াতুল্লাহ আলী খামেনির উত্তরসূরি হিসেবে স্থলাভিষিক্ত হওয়ার জন্য রাইসি নিজেকে প্রস্তুত করছিলেন বলে অনেকে মনে করেন।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App