×

খেলা

সেমিফাইনালে রোহিত রশিদদের প্রতিপক্ষ যারা

Icon

প্রকাশ: ২৬ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

সেমিফাইনালে রোহিত রশিদদের প্রতিপক্ষ যারা

কাগজ ডেস্ক : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শেষ হলো সুপার এইট পর্ব। এরই মধ্য দিয়ে সেমিফাইনালের জন্য চার দল নির্ধারিত হয়ে গেছে। যেখানে গতকাল সবার শেষে যোগ দিয়েছে আফগানিস্তান। বাংলাদেশকে ১১৬ রানের লক্ষ্য দিয়ে বৃষ্টি আইনে ৮ রানের ব্যবধানে হারিয়েছে আফগানরা। আর এমন জয়ের পর প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠল আফগানিস্তান ক্রিকেট দল। এদিকে সমীকরণের ভেড়াজালে বাংলাদেশের হারে বিদায় নিশ্চিত হলো অস্ট্রেলিয়ারও। এর আগে বিশ্বকাপের গ্রুপপর্বে অপরাজিত থেকে সুপার এইটে উঠা ভারত সুপার এইটের প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তান, এরপর বাংলাদেশ এবং সর্বশেষ অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সুপার এইটেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালের টিকেট নিশ্চিত করেছে। তাতে সেমিফাইনালে লড়াই করবে চার দল। ভারত ছাড়া ফাইনালে উঠার লড়াইয়ে টিকে থাকা চার দল হলো ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফগানিস্তান।

এবারে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের লাইনআপ অনুযায়ী, এই চার দলের মধ্যে প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফগানিস্তান। ত্রিনিদাদ ও টোবাগোতে প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে এই দুই দল। এরপর দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড। এই ম্যাচটি হবে গায়ানাতে। সেমিফাইনালে চার দলের মধ্যে ফেভারিট দক্ষিণ আফ্রিকা। সুপার এইটে কোনো ম্যাচ হারেনি তারা। গ্রুপ ২ এর শীর্ষে থেকে সুপার এইট পর্ব শেষ করা প্রোটিয়ারা ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর ব্রায়ান লারা ক্রিকেট একাডেমিতে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হয়ে টুর্নামেন্টে তাদের অপরাজিত যাত্রা বজায় রাখতে চাইবে। এদিকে আসরে দুর্দান্ত গতিতে ছুটছে আরেক ফেভারিট ভারত। গায়ানায় অপরাজেয় রোহিত শর্মাদের বিপক্ষে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডের লড়াই হবে।

তাতে কে কাকে হারাবে সেটা বলা মুশকিল। কেননা দুই দলই আছে ফর্মের চূড়ায়। তবে আফগানিস্তান-দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম সেমিফাইনালের জন্য রিজার্ভ ডে রাখা হলেও কিন্তু ভারত-ইংল্যান্ড খেলবে দ্বিতীয় সেমিফাইনাল। ওই ম্যাচের কোনো রিজার্ভ ডে নেই। তবে প্রয়োজনে ২৫০ মিনিট পর্যন্ত অতিরিক্ত সময় ম্যাচ মাঠে গড়ানোর চেষ্টা করা হবে। তবে যদি বৃষ্টিতে একটি বলও না হয়ে ম্যাচটি বৃষ্টিতে ভেসে যায় বা অতিরিক্ত বরাদ্দ সময়ের পরেও কোনো ফলাফল সম্ভব না হয়, তাহলে ভারত ফাইনালে যাবে। সুপার এইটে তাদের ভালো পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে ফাইনালে উঠবে দলটি। সুপার এইটে গ্রুপ ওয়ানের চ্যাম্পিয়ন ভারত। আরেকদিকে ভারতের প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড এসেছে গ্রুপ টুর রানার্স আপ হয়ে শেষ চারে। এজন্য এগিয়ে থাকবে ভারত। মূলত ফাইনালের আগে যেন পর্যাপ্ত বিশ্রাম পায় দ্বিতীয় সেমিফাইনাল খেলা দল, এ কারণে রিজার্ভ ডে না রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এবারের বিশ্বকাপের প্রায়ই সব ম্যাচেই বৃষ্টি হানা দিয়েছে। তাতে সেমিফাইনালের দিন বৃষ্টির সম্ভাবনা কতটুকু তা নিয়েও দুঃশ্চিতা রয়েছে। একিউআই ওয়েদারের তথ্য মতে, গায়ানায় বৃহস্পতিবার সকালের পূর্বাভাসে বৃষ্টির সম্ভাবনা ৮৮% এবং বজ্রঝড়ের সম্ভাবনা ১৮% রয়েছে। ম্যাচটি স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হওয়ার কথা, যা বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টায়। এদিকে সুপার এইটে ভারতের কাছে হারার পর আফগানিস্তানের জয়ে স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার। এবারের বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিশ্চিতের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অস্ট্রেলিয়া তাদের ভেরিফাইড অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট দিয়ে ধন্যবাদ জানিয়েছে সমর্থকদের। সেখানে বলা হয়, ‘এটাই আমাদের ভাগ্যে লেখা ছিল। ক্রিকেটে ফলাফল সব সময়ই অপ্রত্যাশিত। অস্ট্রেলিয়া দলকে সমর্থন দেয়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ’। গতকালের বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচের ওপর নির্ভর করছিল অস্ট্রেলিয়ার ভাগ্য। আফগানিস্তানকে ১২.১ ওভারের মধ্যে হারাতে পারলে রান রেটের হিসাবে সেমিফাইনালে যেত বাংলাদেশ। অন্য ব্যবধানে বাংলাদেশ-আফগানিস্তানকে হারাতে পারলে সেমিফাইনালে যেত অস্ট্রেলিয়া। তবে জয় নিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে আফগানিস্তান। বাংলাদেশের যখন সেমিফাইনালে উঠার রাস্তা বন্ধ হয়ে যায় তখন নিজেদের ফেসবুক পেজে বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়ে পোস্ট করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশকে জয়ের জন্য শুভকামনা জানিয়ে পোস্ট করেছিল তারা। কারণ তাতে তাদেরই লাভ হতো। তবে শেষ পর্যন্ত স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে দুই দলেরই। এদিকে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠায় আফগানিস্তানজুড়ে উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে পড়ছে।

ক্যারিবিয়ান দ্বীপ সেন্ট ভিনসেন্টে যখন আফগানিস্তানের খেলোয়াড়রা ব্যস্ত উৎসবে, ঠিক একই সময়ে অনেকটা দূরে প্রখর সূর্যের তাপে দাঁড়িয়ে পুড়ছিলেন আরো অনেকেই। কিন্তু তারা সবাই আনন্দে মেতেছেন একই কারণে। ক্রিকেট যেন কান্দাহার আর সেন্ট ভিনসেন্টকে যোগ করেছে একই টাইম ফ্রেমে। হোটেলে বা খোলা আকাশের নিচে দাঁড়িয়ে তারা দেখেছেন দেশের ইতিহাস গড়ার মুহূর্তটাকে। ম্যাচ শেষে অধিনায়ক রশিদ খানের কণ্ঠেও শোনা গেল দেশের মানুষের কথা, ‘আমরা ঘরের লোকদের খুশি করতে চেয়েছি। সবাই এটার জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছে। আফগানিস্তানে এখন দারুণ উৎসব চলছে। আমাদের জন্যও এটা অনেক বড় অর্জন। আমার বলার ভাষা নেই যে আফগানিস্তানে এখন কত বড় উৎসব চলছে’।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App