×

খেলা

নামিবিয়াকে উড়িয়ে সুপার এইটে অস্ট্রেলিয়া

Icon

প্রকাশ: ১৩ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

নামিবিয়াকে উড়িয়ে সুপার এইটে অস্ট্রেলিয়া

কাগজ ডেস্ক : সবার আগে দক্ষিণ আফ্রিকা সুপার এইট নিশ্চিত করেছে। এবার ‘বি’ গ্রুপ থেকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার এইট নিশ্চিত হয়েছে জায়ান্ট অস্ট্রেলিয়ার। নামিবিয়াকে ৯ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই পরের পর্বে উঠেছে তারা। জিতলেই ‘বি’ গ্রুপ থেকে সুপার এইট পর্বে খেলা নিশ্চিত, এমন সমীকরণ নিয়ে নামিবিয়ার বিপক্ষে খেলতে নেমেছিল অস্ট্রেলিয়া। তাই বলে অস্ট্রেলিয়া এতটা দাপট দেখাবে, সেটা হয়তো অনেকেই ভাবেননি। অ্যান্টিগায় নামিবিয়াকে মাত্র ৭২ রানে গুটিয়ে দিয়ে পাওয়ারপ্লেতেই ম্যাচ জিতে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ট্রাভিস হেড, ডেভিড ওয়ার্নার, মিচেল মার্শদের তাণ্ডবে দলটি লক্ষ্য তাড়া করেছে মাত্র ৫.৪ ওভারেই।

অর্থাৎ ৮৬ বল বাকি থাকতেই জিতেছে অস্ট্রেলিয়া, হারিয়েছে শুধু ওয়ার্নারের উইকেট। এর আগে ওমান ও ইংল্যান্ডকেও বড় ব্যবধানে হারিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। টানা ৩ জয়ে ‘বি’ গ্রুপ থেকে সুপার এইট পর্বে পৌঁছে গেল তারা। এই গ্রুপপর্ব থেকেই বাদ পড়া নিশ্চিত হলো নামিবিয়ার।

ছোট পুঁজির সামনে আগ্রাসি মেজাজেই খেলেছে অস্ট্রেলিয়া। নেমেছেন তিন ব্যাটার। প্রত্যেকেই ব্যাট করেছেন ২০০ বা তার বেশি স্ট্রাইকরেটে। ডেভিড ওয়ার্নার করেছেন ৮ বলে ২০। তার স্ট্রাইকরেট ২৫০। ডেভিড উইসার বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে আউট হয়েছেন তিনি। এরপর বাকি কাজ সেরেছেন ট্রাভিস হেড এবং অধিনায়ক মিচেল মার্শ। হেড করেছেন ১৭ বলে ৩৪, আর মার্শের ৯ বলে এসেছে ১৮ রান। দুজনেরই স্ট্রাইক রেট ২০০। নামিবিয়ার বোলারদের ওপর কেমন ঝড় গিয়েছে, তা টের পাওয়া যায় বোলারদের ইকোনমিতে চোখ রাখলে। অধিনায়ক গেরহার্ড এরাসমাস এক ওভারে দিয়েছেন ৬ রান। সেটাই সর্বনিম্ন। ডেভিড উইসা এক ওভারে দিয়েছেন ১৫ রান। বেন সিকোঙ্গো দিয়েছেন ১৯ রান। রুবেন ট্রাম্পেলম্যানের ২ ওভারে এসেছে ১৯ রান। সব মিলিয়ে, নামিবিয়ার জন্য রাতটা বিভীষিকারই ছিল।

বিশ্বকাপের ২৪তম ম্যাচে ক্রিকেটের সবচেয়ে সফল দল অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হয় নামিবিয়া। অজিদের শক্তিশালী বোলারদের সামনে টিকতেই পারেনি নামিবিয়ার ব্যাটাররা। অ্যাডাম জাম্পা, জস হ্যাজলউড ও মার্কাস স্টয়নিসদের বোলিং তোপে মাত্র ৭২ রানেই গুটিয়ে যায় অজিরা।

৭৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে নামিবিয়ার বোলারদের বেদম পিটিয়ে মাত্র ৩৪ (৫.৪ ওভার) বলে ৯ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছে ডেভিড ওয়ার্নার, ট্রাভিস হেড ও অধিনায়ক মিচেল মার্শ। ৩ ম্যাচের ৩টিতেই জিতে বি গ্রুপ থেকে সবার আগে সেরা আট এক রকম নিশ্চিত করে ফেলেছে অজিরা।

এদিন ৮৬ বল হাতে রেখে অস্ট্রেলিয়ার জয়টি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইতিহাসে দ্বিতীয় দ্রুততম জয়। এর আগে ২০০৯ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দ্বিতীয় আসরে ৯০ বল হাতে রেখে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। সেটিও ছিল ৯ উইকেটের জয়।

গতকাল বাংলাদেশ সময় অ্যান্টিগুয়ার স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে হ্যাজলউড ও প্যাট কামিন্সের তোপের মুখে মাত্র ২১ রানের মাথায় ৫ উইকেট হারায় নামিবিয়া। নামিবিয়ার হয়ে সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেন অধিনায়ক গারহাস ইরাসমাস। আর ১০ রান করেন মাইকেল ফন লিনজেন। বাকিদের কেউ আর দুই অঙ্কের ঘর স্পর্শ করতে পারেননি। ১৭ ওভারে ৭২ রানে গুটিয়ে যায় আফ্রিকার দেশটি। নামিবিয়া ম্যাচে নিজের শেষ ওভারের শেষ বলে বার্নার্ড শুলজকে বোল্ড আউট করে অজিদের জার্সিতে শততম উইকেটের দেখা পান এডাম জাম্পা। ৮৩ ম্যাচের ৮২ ইনিংসে ১০০ উইকেটের দেখা পেলেন তিনি। ১০০ উইকেটের এই রেকর্ডে জাম্পার আগে নাম লিখিয়েছেন আরো ১৪ জন। তবে স্পিনারদের মধ্যে তিনি সপ্তম। এর মধ্যে লেগ স্পিনার হিসেবে তিনি সপ্তম। তালিকায় পেসার আছেন ৭ জন। বাকি দুজন বাঁহাতি স্পিনার- সাকিব আল হাসান ও মিচেল স্যান্টনার।

বাংলাদেশের জার্সিতে সাকিব ছাড়াও ১০০ উইকেট পেয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তবে সাকিব ১২৪ ম্যাচে ১৪৬ উইকেট নিয়ে এখন পর্যন্ত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি। শীর্ষে আছেন নিউজিল্যান্ডের টিম সাউদি। ১২৩ ম্যাচে ১২০ ইনিংসে তার উইকেট সংখ্যা ১৫৭টি। ৯৮ ম্যাচে ১২৩ উইকেট নিয়ে তালিকার পঞ্চম স্থানে আছেন মোস্তাফিজ।

জাম্পা গতকাল আরো কিছু রেকর্ড গড়েছেন। ছেলেদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে সর্বোচ্চ উইকেট (৩১) তার। তার সতীর্থ মিচেল স্টার্কের ঝুলিতে আছে ২৯ উইকেট। এবারের বিশ্বকাপে ৩ ম্যাচে ৮ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারির তালিকায় তৃতীয় জাম্পা। শীর্ষে থাকা আফগান পেসার ফজলহক ফারুকি ২ ম্যাচে নিয়েছেন ৯ উইকেট।

এছাড়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচসেরা হওয়ার তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছেন জাম্পা। এখন পর্যন্ত ৫ বার ম্যাচসেরা হয়েছেন তিনি। তার সমানসংখ্যক ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন শ্রীলঙ্কার মাহেলা জয়াবর্ধনে, অস্ট্রেলিয়ার শেন ওয়াটসন এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইল। এই তিনজনই সাবেক ক্রিকেটার। ফলে জাম্পার হাতে সুযোগ রয়েছে বিরাট কোহলিকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। ভারতের শীর্ষ ব্যাটার এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৭ বার ম্যাচেসেরা হয়েছেন।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App