×

খেলা

বিবর্ণ সাকিবকে অবসরের পরামর্শ শেবাগের

Icon

প্রকাশ: ১২ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

বিবর্ণ সাকিবকে অবসরের পরামর্শ শেবাগের

কাগজ প্রতিবেদক : এই বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ২ ম্যাচে মাত্র ৪ ওভার বল করেছেন সাকিব। উইকেটের দেখা পাননি এখনো। ব্যাট হাতে ২ ম্যাচে করেছেন মাত্র ১১ রান। এর মধ্যে গতকাল দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১ ওভারে ৬ রান দিয়ে আর বল হাতে নেননি। পরে দল যখন প্রচণ্ড চাপে তখন ৪ বলে মাত্র ৩ রান করে উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ব্যাটে-বলে জ¦লে উঠতে পারেননি সাকিব। ব্যাট হাতে ৩ রান এবং বল হাতে করেছেন মাত্র ১ ওভার। অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারকে আর বোলিংয়ে আনা হয়নি কেন তা নিয়ে অবাক বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক তামিম ইকবাল। চাপের মুখে তাকে আনা যেত বলেও মনে করেন তিনি।

নাসাউ কাউন্টি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৪ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। ইতিহাস গড়া সাকিব খেলছেন নিজের নবম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। তবে চলতি বিশ্বকাপে ভালো করতে পারছেন না সাকিব। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে করেছেন ১ ওভার। দিয়েছেন যদিও মাত্র ৬ রান। তবে তাকে আর বোলিংয়ে আনেননি টাইগার অধিনায়ক শান্ত।

সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচে আনরিখ নরকিয়ার বলে পুল করতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন। বাংলাদেশও চাপে পড়েছিল সেখান থেকে। এরপর তাওহীদ হৃদয় ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের জুটির সুবাদে জয়ের কাছাকাছি যায় বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশ ম্যাচ হারে ৪ রানে। আর তাতে সাকিবের দায়ও দেখছেন অনেকে। ম্যাচ শেষে ক্রিকবাজের আলোচনায় সাকিব আল হাসানের ওপর একপ্রকার ক্ষোভ ঝাড়লেন বীরেন্দ্র শেবাগ। সাকিবের অবসর নেয়া উচিত বলে সরাসরি মন্তব্য করলেন বিশ্বকাপজয়ী এই ওপেনার, আমি আগের আসরেই বলেছি, তার (সাকিব আল হাসান) আর আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলা উচিত না।

সাকিবের খেলা নিয়ে তার মন্তব্য, ‘আপনি এতই সিনিয়র খেলোয়াড়, অধিনায়ক ছিলেন দলের, এটা শেষ আসর। কিছু তো লজ্জা থাকা উচিত। বলা উচিত, আমি টি-টোয়েন্টি থেকে অবসর নিচ্ছি। আমার বোলিং ভালো হচ্ছে না, ব্যাটিং ভালো হচ্ছে না। দলের জন্য আমি কিছু করতে পারছি না। তাহলে আমি খেলে কী করব’?

সাকিবের খেলার ধরনের সমালোচনায় শেবাগ বলেন, আপনি অ্যাডাম গিলক্রিস্ট বা ম্যাথু হেইডন না। আপনি এখন বাংলাদেশি খেলোয়াড়। নিজের মাত্রা অনুযায়ী খেল। এটা তো আপনার রেগুলার শটই না। ওই পরিস্থিতিতে সে কেনো নরকিয়ার বিপক্ষে পুল শট খেলতে যাবে? ১৭ বছরের বেশি সময় ধরে যার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলার অভিজ্ঞতা আছে তারও এই সাধারণ জ্ঞান থাকা দরকার, প্রতি বলে রান নেয়াই তার দলের জন্য যথেষ্ট ছিল। এমন বিবর্ণ সাকিবকে আর বাংলাদেশ দলে দেখতে চান না ভারতের সাবেক ওপেনার বীরেন্দ্র শেবাগ। শেবাগ বলেছেন, সাকিবের আরো আগেই অবসর নেয়া উচিত ছিল। বিশ্বকাপের পর সাকিবকে আর খেলানো উচিত নয় বলেও মনে করেন শেবাগ।

ব্যাট হাতে সাকিব ধুঁকছেন অনেক দিন ধরে। টি-টোয়েন্টিতে সর্বশেষ ফিফটি পেয়েছেন ২০২২ সালে, ১৯ ইনিংস আগে। সর্বশেষ দুটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও সাকিবের ব্যাটিং পারফরম্যান্স ছিল খুবই বাজে। ২০২১ বিশ্বকাপে ৬ ম্যাচ খেলে রান করেছিলেন ১৩১। গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ৫ ইনিংসে করেছেন মাত্র ৪৪। আর এবারের বিশ্বকাপটা শুরু করেছেন বিবর্ণভাবে। তার এমন পারফরম্যান্সে ক্ষিপ্ত শেবাগ ধুয়ে দিয়েছেন সাকিবকে।

সাকিবের অবসরের সময় হয়ে গেছে কি না, এমন প্রশ্নে শেবাগ বলেছেন, ‘গত বিশ্বকাপেই আমার এমন মনে হয়েছে, ওকে আর টি-টোয়েন্টিতে খেলানো উচিত নয়। অনেক আগেই ওর অবসর নেয়ার সময় হয়েছে। তুমি এত সিনিয়র ক্রিকেটার, নিজে অধিনায়ক ছিল, তোমার পরিসংখ্যানের অবস্থা এমন, সাকিবের নিজেরই তো লজ্জা পাওয়া উচিত। নিজেরই বলা উচিত, আমি এই সংস্করণ থেকে অবসর নিচ্ছি’।

তিনি যোগ করে বলেছেন, ‘আমি তো দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় বিশ্বকাপ, যেটা শ্রীলঙ্কায় হয়েছিল। তখন ডেল স্টেইন, মরনে মরকেল, আফগানিস্তানে একটা পেসার ছিল, স্বাচ্ছন্দ্যে আমি যখন ওদের মারতে পারছি, নির্বাচকদের বলে দিয়েছিলাম, আমাকে যেন টি-টোয়েন্টি দলে রাখা না হয়। আমি ওয়ানডে ও টেস্ট খেলব। দিন শেষে নিজে তো বোঝা যায় আমার ব্যাটিং ভালো হচ্ছে না, বোলিং ভালো হচ্ছে না, দলের জন্য অবদানই রাখতে পারছি না। তাহলে খেলে কী হবে? আমার হিসাবে তো ওর (অবসরের) সময় আগেই হয়েছে’।

টানা দুই ম্যাচ জয়ের পর বাংলাদেশের কাছে প্রথম হার দেখার অপেক্ষায় ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। ভাগ্য সঙ্গী হওয়ায় শেষ পর্যন্ত ৪ রানের জয় নিয়ে তারা মাঠ ছেড়েছে। প্রোটিয়া অধিনায়ক এইডেন মার্করামও স্বীকার করেছেন, তারা ভাগ্যবান ছিলেন বলেই বৈতরণী পার হতে পেরেছেন।

শেষ তিন বলে বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল মাত্র ৭ রানের। এই সময়ে জাকের আলী ও মাহমুদউল্লাহ বড় শট নেয়ার চেষ্টা করলেও বাউন্ডারি লাইনে তাদের ক্যাচ নিয়েছেন মার্করাম। অবিশ্বাস্য এই জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে সুপার এইটের পথে প্রোটিয়া দল। কিন্তু ম্যাচ জয়ের পর দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক স্বীকার করেছেন, ‘বেশ কিছু বিষয় আমাদের পক্ষেই গেছে। তাই বলতে পারেন আমরা ভাগ্যবান ছিলাম’।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App