×

খেলা

ইংল্যান্ডকে পাত্তাই দিল না অস্ট্রেলিয়া

Icon

প্রকাশ: ১০ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ইংল্যান্ডকে পাত্তাই দিল না অস্ট্রেলিয়া

কাগজ ডেস্ক : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শুরু থেকেই রানখরা। অবশেষে শনিবার রাতে ১৭তম ম্যাচে দেখা মিলেছে দুইশ রানের। ব্রিজটাউনে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া ৭ উইকেটে ২০১ রান তোলে। যে রান তাড়া করতে নেমে ইংল্যান্ডের ইনিংস আটকে যায় ৬ উইকেটে ১৬৫-তে। এবারের আসরের অন্যতম ফেভারিট ভাবা হয়েছিল ইংল্যান্ডকে। তবে গ্রুপ পর্বের দুই ম্যাচ খেলে এখনো জয়হীন জস বাটলারের দল। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটি বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ায় এক পয়েন্ট পেয়েছিল ইংল্যান্ড। এবার অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হেরেছে তারা। ২ ম্যাচ থেকে এক পয়েন্ট পাওয়ায় সুপার এইটে কোয়ালিফাই করা নিয়ে শঙ্কায় পড়েছে ইংলিশরা। দুই ওপেনারের দুর্দান্ত শুরুতেও অস্ট্রেলিয়ার রানের পাহাড় টপকাতে পারেনি ইংল্যান্ড। ফলে এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আসরের দুই ম্যাচ শেষেও কাক্সিক্ষত জয় অধরাই থেকে গেল থ্রি লায়ন্সদের। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৩৬ রানে ম্যাচ জিতে সুপার এইটের পথে একধাপ এগিয়ে গেল অজিরা। দুই ম্যাচের দুটিতেই জিতে দলটির পয়েন্ট ৪। তিন পয়েন্ট নিয়ে এখন গ্রুপের দ্বিতীয় স্থানে স্কটল্যান্ড। আর ইংল্যান্ডের সম্বল অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারের আগে স্কটিশদের সঙ্গে বৃষ্টিবিঘিœত ম্যাচে পাওয়া এক পয়েন্ট।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড, আর গত বছর ওয়ানডেতে বিশ্ব জয় করেছিল অস্ট্রেলিয়া। দুই বিশ্বচ্যাম্পিয়নের লড়াইয়ের ঝাঁজ টের পাওয়া যাচ্ছিল কদিন ধরেই। ম্যাচের শুরুটাও হয়েছে আক্রমণাত্মক। আগে ব্যাটিংয়ে নেমে পাওয়ার প্লেতে ঝড় তোলে অস্ট্রেলিয়ার দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও ট্র্যাভিস হেড। মাত্র ৫ ওভারে ৭০ রান তুলে এই জুটি ভেঙে যায় মঈন আলীর কাছে। ১৬ বলে ২ চার ও ৪ ছয়ে ৩৯ রান করে বোল্ড হন ওয়ার্নার। পরের ওভারে হেডকে বোল্ড করে আরেকটি ধাক্কা দেন জোফরা আর্চার। ১৮ বলে ২ চার ও ৩ ছয়ে ৩৪ রান করেন এই ওপেনার।

জোড়া আঘাতে ভেঙে পড়েনি অস্ট্রেলিয়া। অধিনায়ক মিচেল মার্শ ও গেøন ম্যাক্সওয়েল দাঁড়িয়ে যান। তাদের জুটিতে দশম ওভারে দলীয় স্কোর একশ ছোঁয়। আদিল রশিদকে ছক্কা মেরে গ্যালারি স্ট্যান্ডের সোলার প্যানেল ভেঙে ফেলেন মার্শ। এই শক্ত জুটি ভেঙে দেন লিয়াম লিভিংস্টোন। তৃতীয় উইকেটে ৬৫ রান যোগ করে বিদায় নেন মার্শ। ২৫ বলে দুটি করে চার ও ছয়ে ৩৫ রান করেন তিনি। পরের ওভারে ম্যাক্সওয়েল প্যাভিলিয়নে ফেরেন রশিদের বলে। ২৫ বলে তার ব্যাটে আসে ২৮ রান।

এরপর ক্রিস জর্ডান তোপ দাগালেও মার্কাস স্টয়নিসের ক্যামিওতে দুইশ ছোঁয় অস্ট্রেলিয়া। ১৭ বলে দুটি করে চার ও ছয়ে ৩০ রান করেন এই ব্যাটার। টিম ডেভিড ১১ ও ম্যাথু ওয়েড ১৭ রান করে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ৭ উইকেটে ২০১ রান করে অজিরা। ইংল্যান্ডের পক্ষে দুটি উইকেট নেন জর্ডান।

লক্ষ্যে নেমে যেমন শুরু করা দরকার, তেমনটাই করেছিল ইংল্যান্ড। ফিল সল্ট ও জস বাটলার আগ্রাসী ব্যাটিং করেন। পাওয়ার প্লেতে ওপেনিং জুটিতে আসে ৫৪ রান। তাতে লড়াইয়ের আভাস দেয় তারা। অ্যাডাম জাম্পা বল হাতে নিয়ে ব্রেকথ্রæ আনেন। মোমেন্টাম হারায় ইংল্যান্ড। অজি লেগ স্পিনারের বলে সল্ট ও বাটলার প্যাভিলিয়নে হাঁটেন। ৭৩ রানের জুটি ভেঙে যায় অষ্টম ওভারের প্রথম বলে। ২৩ বলে ৪ চার ও ২ ছয়ে ৩৭ রানে জাম্পার শিকার সল্ট। এই স্পিনার তার পরের ওভারে বাটলারকে প্যাট কামিন্সের ক্যাচ বানান। ২৮ বলে ৫ চার ও ২ ছয়ে ৪২ রান করেন অধিনায়ক।

তারপর আর ইংল্যান্ডের ব্যাটাররা তাল মেলাতে পারেননি। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে তারা। মিচেল স্টার্ক খরুচে বোলিং করলেও জশ হ্যাজেলউড, কামিন্স ও স্টয়নিস আঁটসাঁট বোলিং করেন।

সর্বোচ্চ দুটি করে উইকেট নেন কামিন্স ও জাম্পা। তবে দুই ওপেনারকে ফিরিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ এনে দেয়ায় ম্যাচসেরা হন জাম্পা, ৪ ওভারে ২৮ রান দেন তিনি।

এ নিয়ে টানা দুই জয়ে অস্ট্রেলিয়া এখন গ্রুপ ‘বি’ এর শীর্ষে। পক্ষান্তরে জয়হীন টানা দুই ম্যাচের বদৌলতে খাদের কিনারায় ইংল্যান্ড।

শেষ আট নিশ্চিত করতে নামিবিয়া এবং ওমানের বিরুদ্ধে তো জিততে হবেই, সঙ্গে তাকিয়ে থাকতে হবে দুর্বল স্কটল্যান্ডের দিকে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App