×

খেলা

হৃদয়ের আবেগঘন পোস্ট

Icon

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

হৃদয়ের আবেগঘন পোস্ট

কাগজ প্রতিবেদক : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে গতকাল বহুল কাক্সিক্ষত জয়ের দেখা পেয়েছে বাংলাদেশ। ডালাসের গ্র্যান্ড প্রেইরি স্টেডিয়ামে গতকাল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২ উইকেটের স্বস্তির জয় দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শুভসূচনা করেছে টাইগাররা। এই জয়ে শ্রীলঙ্কার দেয়া ১২৫ রানের টার্গেট তাড়ায় নেমে বড় অবদান রেখেছেন তাওহিদ হৃদয়। গতকাল দলীয় সর্বোচ্চ ৪০ রান সংগ্রহ করেছেন তিনি। ২০ বলের ইনিংসটিতে মেরেছেন ১টি চার ও ৪টি ছয়। তার হাঁকানো একটি ছক্কার বল লেগেছে গ্যালারিতে বসে থাকা এক বাংলাদেশি ভক্তের গায়ে, ঝরেছে রক্তও। এ কথা হৃদয় জানার পরই আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন তিনি। সেটির জানান দিয়েছেন ফেসবুকে পোস্ট করে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের পথে বাংলাদেশের ইনিংসের ১২তম ওভারে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে টানা তিন বলে তিন ছক্কা মারেন তাওহিদ হৃদয়। সেই ছক্কার হ্যাটট্রিক গড়ার পথে হৃদয়ের মারা বলে গ্যালারিতে রক্ত ঝরেছে এক টাইগার সমর্থকের। আর এ নিয়েই ম্যাচপরবর্তী সময়ে এক আবেগঘন পোস্ট দিয়েছেন টাইগার ক্রিকেটার। হাসারাঙ্গার ১২তম ওভারের দ্বিতীয় বলটি হৃদয় সøগ সুইপে ডিপ স্কয়ারের ওপর দিয়ে ৮৮ মিটারের বিশাল ছক্কা হাঁকান। বলটি গ্যালারিতে থাকা এক বাংলাদেশি সমর্থকের পায়ের এসে পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে জখম হয়ে রক্ত জমাট বাঁধে সেখানে। ম্যাচ শেষে সেই ভক্ত সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। টাইগারদের জয়ের পর ম্যাচ শেষে সংবাদমাধ্যমকে সে সমর্থক হেসে বলেন, ‘আমি অনেক খুশি বাংলাদেশ জেতায়। বাংলাদেশের ক্যাচ ধরতে পারিনি, ব্যথা পেয়েছি কোনো ব্যাপার না এটি।’ কথা বলার সময় সেই দর্শকের ছবি তুলে কেউ একজন হৃদয়ের কাছে পাঠান। নিজের হাঁকানো ছক্কায় দর্শক এমন মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন জেনে মন ভারাক্রান্ত হয় বাংলাদেশের এই তারকা ক্রিকেটারের। ভক্তের প্রতি আকুতি জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি আবেগঘন পোস্ট করেন হৃদয়। পোস্টে হৃদয় লিখেছেন, ‘ছবিগুলো একজন পাঠাল, আমার এখানে এখন মধ্যরাত। কয়েকটি ছবি মাথা থেকেই বের হচ্ছে না। আমার জন্য কারও রক্ত ঝরল এটা ভেবেই খারাপ লাগছে। প্রিয় ভাই আমার, আমি জানি না আপনি কে? শুধু জানি আপনার পরিহিত টি-শার্টের বুকে বাংলাদেশের মানচিত্র। আপনি এবং আমি একই। আমার মারা ছয় অজান্তেই গিয়ে আপনার পায়ে লেগেছে। আপনি হয়তো হাসিমুখেই বলছেন আপনি খুশি, কিন্তু একটি সজোরে আসা বলের আঘাত কতোটা ভোগায় তা আমাদের থেকে ভালো আর কেইবা জানে। কখনো দেখা হলে আমাকে বুকে জড়িয়ে নিয়েন, মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়েন। আপনার কষ্টে আপনার এই ছোট ভাইও ব্যথিত।’

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App