×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

খেলা

বাংলাদেশি আম্পায়ার দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু

Icon

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশি আম্পায়ার দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু

কাগজ প্রতিবেদক : আগামী ২ জুন থেকে মাঠে গড়াবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিপক্ষ কানাডা। ওই ম্যাচে অনফিল্ড আম্পায়ারের দায়িত্ব পালন করবেন বাংলাদেশের আম্পায়ার শরফুদ্দৌলা ইবনে শহীদ সৈকত। আরো একটি ‘প্রথম’র সঙ্গে জড়িয়ে গেল আম্পায়ার শরফুদ্দৌলা ইবনে শহীদের নাম। এর আগে বাংলাদেশের প্রথম আম্পায়ার হিসেবে আইসিসির এলিট প্যানেলে জায়গা করে নিয়েছিলেন তিনি। এক সংবাদ বিবৃতিতে গতকাল এটা নিশ্চিত করেছে আইসিসি। বাংলাদেশের প্রথম আম্পায়ার হিসেবে বিশ্বকাপের কোনো উদ্বোধনী ম্যাচের দায়িত্ব পালন করবেন তিনি। শরফুদ্দৌলার সঙ্গী হিসেবে থাকবেন ইংল্যান্ডের রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ। তিনবার আইসিসি বর্ষসেরা আম্পায়ারের স্বীকৃতি পাওয়া ইলিংওয়ার্থ গত ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাইনালেও দায়িত্ব পালন করেছেন ফিল্ড আম্পায়ারের। এছাড়া উদ্বোধনী ম্যাচে টেলিভিশন আম্পায়ারের দায়িত্ব পালন করবেন স্যাম নোগাজস্কি। চতুর্থ বা রিজার্ভ আম্পায়ার হিসেবে থাকবে ল্যাংটন রুসেরে। ম্যাচ রেফারি হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন রিচি রিচার্ডসন। ডালাসে স্থানীয় সময় ২ জুন স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের মুখোমুখি হবে কানাডা। উদ্বোধনী এই ম্যাচেই মাঠের আম্পায়ারের দায়িত্বে থাকবেন শরফুদ্দৌলা।

চলতি বছরের শুরুতে আইসিসির এলিট প?্যানেলে জায়গা হয়েছে সৈকতের। তার আগে আর কোনো বাংলাদেশি আম্পায়ারিংয়ে এতটা সাফল?্য অর্জন করেননি। গুরুত্বপূর্ণ পদে সৈকতের ধারাবাহিক দায়িত্ব পালন বাংলাদেশি আম্পায়ারদের জন?্য একটি আনন্দদায়ক খবর হয়ে এসেছে। ৪৭ বছর বয়সি সৈকত আম্পায়ার হিসেবে ক্রমেই তার অভিজ্ঞতার ভাণ্ডার সমৃদ্ধ করছেন। ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপে পাঁচটি ম্যাচ পরিচালনা করেছেন তিনি, দুটি আইসিসি নারী ক্রিকেট বিশ্বকাপ এবং ২০১৮ সালের আইসিসি নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও পরিচালনা করেছেন। সাবেক বাঁহাতি এই স্পিনার দেশের হয়েও ম্যাচ খেলেছেন। জাতীয় দলে অভিষেকের পর অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলেন সৈকত। নবম শ্রেণি থেকে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলা শুরু, খেলেন ১৭-১৮ বছর। তবে পিঠের ইনজুরির সঙ্গে পেরে না ওঠায় স্বপ্ন ছুঁয়ে দেখা হয়নি তার। সাবেক বাঁহাতি এই স্পিনার খেলতে পারেননি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। এই স্বপ্ন পূরণ না হলেও স্বপ্ন দেখা থামাননি সৈকত।

বাংলাদেশ একদিন টেস্ট মর্যাদা পাবে, টেস্ট ও বিশ্বকাপে দায়িত্ব পালন করা যাবে, এই স্বপ্নে নাম লেখান আম্পায়ারিংয়ে। বেশ কয়েক বছর ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিং করে ২০০৬ সালে আইসিসি ইন্টারন্যাশনাল প্যানেলের অংশ হন তিনি। আন্তর্জাতিক ম্যাচে আম্পায়ার হিসেবে সৈকতের অভিষেক হয় ২০১০ সালে, মিরপুরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। এখন পর্যন্ত ১০ টেস্ট, ৬৩ ওয়ানডে ও ৪৯ টি-টোয়েন্টিতে আম্পায়ারিং করেছেন তিনি। মেয়েদের ক্রিকেটে আম্পায়ারিং দিয়ে বিশ্বকাপে অভিষেক সৈকতের। দেশের প্রথম আম্পায়ার হিসেবে গত বছর অনুষ্ঠিত ছেলেদের বিশ্বকাপে দায়িত্ব পালন করেন। আইসিসির এলিট প্যানেলে জায়গা পাওয়া প্রথম বাংলাদেশিও তিনিই।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App