×

খেলা

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশি ৪ দূত

Icon

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া প্রথমবারের মতো চালু করতে যাচ্ছে বহু সাংস্কৃতিক দূত প্রোগ্রাম। উদ্বোধনী প্রতিনিধি হিসেবে সরকার, ব্যবসা, খেলাধুলা, মিডিয়া এবং বিভিন্ন কমিউনিটির সঙ্গে যুক্ত ৫৪ জনকে বেছে দুই বছরের জন্য নিয়োগ দিয়েছে সিএ। ক্রিকেটের সঙ্গে বিভিন্ন পেশার মানুষকে যুক্ত করতেই মূলত ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এই কার্যক্রম চালু করেছে। নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ জন। এরা হলেন- জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুল, রিয়েলিটি শো মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার রানারআপ কিশোয়ার চৌধুরী, কিশোয়ারের বাবা ও সমাজসেবী কামরুল চৌধুরী এবং অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত ফার্মাসিস্ট স্বরূপ আফসার। দূতের তালিকায় সাবেক ক্রিকেটারদের মধ্যে বাংলাদেশের আমিনুল ছাড়াও আছেন পাকিস্তান কিংবদন্তি ওয়াসিম আকরাম, ভারতের রবি শাস্ত্রী, শ্রীলঙ্কার রাসেল আর্নল্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক অধিনায়ক ড্যারেন গঙ্গা, অস্ট্রেলিয়া নারী দলের সাবেক অলরাউন্ডার লিসা স্টালেকাররা। বর্তমান ক্রিকেটারদের মধ্যে আছেন- উসমান খাজা, অ্যাশটন অ্যাগার, স্কট বোল্যান্ড, গুরিন্দার সান্ধু, তানভীর সাংহারা।

আমিনুল বাংলাদেশের হয়ে ১৩টি টেস্ট ও ৩৯টি ওয়ানডে খেলেছেন। ২০০০ সালে বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টেই তিনি সেঞ্চুরি করেছিলেন। বর্তমানে তিনি এশিয়ান অঞ্চলে আইসিসির উন্নয়ন ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে আছেন। কিশোয়ার চৌধুরী শুধু জনপ্রিয় রন্ধনশিল্পীই নন, একই সঙ্গে লেখক ও টিভি উপস্থাপক। ২০২১ সালে মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার ত্রয়োদশ আসরে বাঙালি খাবার রান্না করে আলোচনায় আসেন কিশোয়ার। অস্ট্রেলিয়ার অনুষ্ঠিত ২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তিনি শুভেচ্ছাদূত ছিলেন।

বর্তমানে তিনি রান্নাঘরে লিঙ্গ এবং বৈচিত্র্যের পক্ষে অস্ট্রেলিয়ার সরকার এবং কর্পোরেট সংস্থাগুলোর সঙ্গে কাজ করছেন। কিশোয়ার চৌধুরীর বাবা কামরুল চৌধুরী অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের স্তম্ভ। তিনি একজন ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী। শিক্ষা, খেলাধুলা, কলা, স্বাস্থ্যসেবা এবং বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের সমৃদ্ধির জন্য ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে কাজ করে যাচ্ছেন। আরেক বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত স্বরূপ আফসার একজন জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত ফার্মাসিস্ট, দূরদর্শী উদ্যোক্তা এবং শিল্প উদ্ভাবক। ১৫ বছর বয়স থেকে তিনি পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী পার্থে বসবাস করছেন। বহু সাংস্কৃতিক দূত কার্যক্রম সামনে অনেক যুগান্তকারী পরিবর্তন আনবে বলে মনে করেন সিএর প্রধান নির্বাহী নিক হকলি। হকলি বলেন, ‘বহু সাংস্কৃতিক দূতদের এমন বিচিত্র গ্রুপকে স্বাগত জানাতে পেরে আমরা রোমাঞ্চিত। তাদের সম্মিলিত নেতৃত্ব, অভিজ্ঞতা, আত্মনিবেদন ক্রিকেট কার্যক্রমে যুগান্তকারী পরিবর্তন আনবে। সমাজে বিভিন্ন পেশার মানুষকে একত্রিত করতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া যে প্রতিশ্রæতিবদ্ধ, বহু সাংস্কৃতিক দূত কার্যক্রম সেটাই বোঝায়। আমাদের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য পরিষ্কার যে বিভিন্ন সংস্কৃতির মানুষকে ক্রিকেটের সঙ্গে সংযুক্ত করা। সব ধরনের বাধা-বিপত্তি দূর করে ঐক্য স্থাপন করা।’

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App