×

খেলা

এমএলএসে পারিশ্রমিকে সবাইকে ছাড়িয়ে মেসি

Icon

প্রকাশ: ১৯ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

এমএলএসে পারিশ্রমিকে সবাইকে ছাড়িয়ে মেসি

কাগজ ডেস্ক : লিওনেল মেসি; ফুটবল জগতের একটি নাম, একটি ইতিহাস। এ নামের বিশেষণে যত কিছুই যুক্ত করা হোক না কেন তা যেন বরাবরের মতো কমই মনে হয়। এ নামের কারণে অনেকেই মজেছেন ফুটবল প্রেমে, অনেকেই আবার ফুটবলকে নতুন করে চিনেছেন মেসির মাধ্যমে। পায়ের জাদুতে সবাইকে মুগ্ধ করে বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীদের অনবদ্য এক শৈল্পিক ফুটবল উপহার দিয়েছেন। ক্যারিয়ারের বেলাভূমিতে দাঁড়িয়ে এখন বয়সের ছাপকে একপাশে রেখে যুক্তরাষ্ট্রের মেজর লিগ সকারের আসর মাতিয়ে চলেছেন আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ জয়ী এ অধিনায়ক। গত বছরের জুলাইয়ে ফুটবল ক্যারিয়ারের ইউরোপ অধ্যায়ের ইতি টেনে বেশ চড়া পারিশ্রমিকে পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রে, লক্ষ্য যুক্তরাষ্ট্রের সকাল লিগ মেজর লিগ সকারের ক্লাব ইন্টার মায়ামি। সে সময় পারিপার্শি^ক নানা কারণে পারিশ্রমিকের প্রকৃত পরিমাণ গোপন রাখলেও শেষমেশ গতকাল তা প্রকাশ করল এমএলএস প্লেয়ার অ্যাসোসিয়েশন নামের সংস্থা। যেখানে লিগের অন্যান্য ক্লাবের খেলোয়াড়দের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি বেতন পান মেসি।

এমএলএস প্লেয়ার অ্যাসোসিয়েশন কর্তৃক গতকাল প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের ক্লাব ইন্টার মায়ামিতে লিওনেল মেসির বাৎসরিক বেতন ২ কোটি ৪৪ লাখ ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ২৪০ কোটি টাকা। যেখানে মেসির নিট বেতন ১ কোটি ২০ লাখ ডলার। বিভিন্ন বোনাস সহকারে সব মিলিয়ে অঙ্কটা দাঁড়ায় ২ কোটি ৪৪ লাখ ৬ হাজার ৬৬৭ ডলার। তাতে মেজর লিগ সকারে (এমএলএস) আর্জেন্টাইন কিংবদন্তির বেতন অন্য যে কোনো খেলোয়াড়ের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি। এমনকি লিগের ২৫টি ক্লাব নিজেদের স্কোয়াডকে যে বেতন দেয়, মেসির বেতন তার চেয়েও বেশি। তবে প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রকাশ করা নথিতে মেসির বেতনের সঙ্গে তার বাণিজ্যিক চুক্তি, এনডোর্সমেন্ট ও স্পনসর চুক্তি থেকে আয় যোগ করা হয়নি। যেমন অ্যাপল ও অ্যাডিডাসের সঙ্গে স্পনসর চুক্তি রয়েছে মেসির। এসব প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন থেকেও প্রচুর অর্থ আয় করেন মায়ামি তারকা। এছাড়া অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে চুক্তিবদ্ধ তিনি। বিখ্যাত ক্রীড়াসামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ‘অ্যাডিডাস’ থেকে বড় অঙ্কের অর্থ পান আর্জেন্টাইন তারকা। মেজর সকার লিগের খেলা সম্প্রচারকারী প্রতিষ্ঠান ‘অ্যাপল’-এর অর্জিত মুনাফা থেকে অর্থ বরাদ্দ থাকে মেসির জন্য। পিএসজি ছেড়ে গত বছর জুলাইয়ে মায়ামিতে যোগ দেন মেসি। ক্লাবটির সঙ্গে তার বর্তমান চুক্তির মেয়াদ ২০২৫ মৌসুম পর্যন্ত। এছাড়া ৩৬ বছর বয়সি এই ফরোয়ার্ড এখনো সম্ভবত বার্সার কাছ থেকে টাকা পেয়ে থাকেন। কেননা ২০২২ সালের জানুয়ারিতে বার্সা সভাপতি হোয়ান লাপোর্তা জানিয়েছিলেন, ২০২৫ সাল পর্যন্ত মেসির বকেয়া বেতন পরিশোধ করে যাবে কাতালান ক্লাবটি।

মেসি এমএলএসে যাওয়ার আগে প্রতিযোগিতাটিতে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া খেলোয়াড় ছিলেন টরন্টো এফসির ইতালিয়ান স্ট্রাইকার লরেঞ্জো ইনসিনিয়ে। এখন তিনি তালিকায় দ্বিতীয় কানাডিয়ান ক্লাবটি থেকে বছরে ১ কোটি ৫৪ লাখ ডলার আয় করেন ইনসিনিয়ে। তৃতীয় মেসির সাবেক বার্সেলোনা সতীর্থ ও বর্তমান মায়ামি সতীর্থ সের্হিও বুসকেটস। ৩৫ বছর বয়সি স্প্যানিশ ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার মায়ামিতে ৮৮ লাখ ইউরো আয় করেন। ২০১৭ সালে স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনায় চার বছরের চুক্তির মাধ্যমে ক্লাব ফুটবলে নিজের ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন মেসি। সেই চুক্তিতে প্রতি মৌসুমে ১৩ কোটি ৮০ লাখ ইউরো করে আয় করতেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি। এর মধ্যে বেতন এবং অন্যান্য বিষয়ও (অ্যাড ওনস) সংযুক্ত ছিল। বার্সেলোনার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষে ক্লাবটি ছেড়ে ২০২১ সালের আগস্টে যোগ দেন ফরাসি ক্লাব পিএসজিতে। সেখানে প্রতি মৌসুমে আয় করতেন ৩ থেকে সাড়ে ৩ কোটি ইউরো। এদিকে গত শুক্রবার, ২০০০ সালে বার্সার সঙ্গে মেসির চুক্তি করা ন্যাপকিনটি নিলামে ১১ কোটি টাকায় বিক্রি করেছে ব্রিটিশ নিলাম প্রতিষ্ঠান বোনহামস। নিলামে ন্যাপকিন পেপারটির ভিত্তিমূল্য ছিল ৩ লাখ ডলার থাকলেও ধারণার চেয়েও বেশি দামে বিক্রি হয়েছে এই এটি। ২০০০ সালে মাত্র ১৩ বছর বয়সি মেসি এই ন্যাপকিন পেপারে বার্সেলোনার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন। ওই বছরের সেপ্টেম্বরে ট্রায়ালের জন্য পরিবারের সঙ্গে বার্সেলোনায় যান মেসি। সঙ্গে ছিলেন দুই আর্জেন্টাইন প্রতিনিধি ফাবিয়ান সোলদিনি ও মার্তিন মনতেরো এবং গাজ্জোলি। ট্রায়ালে সবাইকে চমকে দেন মেসি। তাই চুক্তির আশা নিয়ে রোসারিওতে ফেরে তার পরিবার। সেই সময়ের বার্সেলোনা সভাপতি হুয়ান গাসপার্ত অবশ্য হরমোনজনিত সমস্যায় ভোগা ১৩ বছর বয়সি একটি ছেলের সঙ্গে চুক্তিতে যাওয়া ঝুঁকিপূর্ণ মনে করেছিলেন। তাকে রাজি করানোর জন্য বার্সেলোনার তখনকার টেকনিক্যাল সেক্রেটারি কার্লো রেক্সাসকে চাপ দেন গাজ্জোলি ও মিনগেলা। শেষ পর্যন্ত চুক্তির কথা লেখা হয়েছিল ওই ন্যাপকিন পেপারে।

তবে সেই চুক্তিটা বিফলে যায়নি, বার্সার হয়ে ৪ বার চ্যাম্পিয়নস লিগ ও ১০ বার লা লিগা জিতেন মেসি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App