×

খেলা

ব্রাদার্সকে গোলবন্যায় ভাসাল আবাহনী

Icon

প্রকাশ: ১৮ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ব্রাদার্সকে গোলবন্যায় ভাসাল আবাহনী
কাগজ প্রতিবেদক : শিরোপা দখলের লড়াইয়ে অজেয় হওয়ার শপথ নিয়েছে দেশের ঘরোয়া ফুটবলে অন্যতম প্রতিদ্ব›দ্বী ঢাকা আবাহনী লিমিটেড। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে গতকাল ব্রাদার্স ইউনিয়নকে ৭-১ গোলের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে ঢাকা আবাহনী। আর এদিকে অবনমন এড়ানোর আরেক ম্যাচে মোহামেডানের সঙ্গে ৩-৩ গোলে ড্র করেছে রহমতগঞ্জ এমএফএস। দুই দলের এ ড্রয়ের মাধ্যমে অবনমন এড়ানোর শেষ আশা বাঁচিয়েছে রেখেছে ব্রাদার্স ইউনিয়ন। কেননা, মোহামেডান রহমতগঞ্জের কাছে হারলেই ব্রাদার্সের অবনমন হতো। লিগে দিনের শেষ ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীর সঙ্গে ১-১ গোলের ড্র দিয়ে ম্যাচ শেষ করেছে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র। গোপালগঞ্জে গতকাল ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিটপক্ষে মাঠে নেমে ব্রাদার্সকে গোলবন্যায় ভাসিয়েছে ঢাকা আবাহনী। আবাহনীর হয়ে গ্রানাডার ফুটবলার কর্নেলিয়াস স্টুয়ার্ট চার গোল, ওয়াশিংটন জোড়া ও মারাজ একটি গোল করেছেন। যদিও ব্রাদার্স ৫০ মিনিটে দশ জনের দলে পরিণত হয়। তা সত্ত্বেও ৭৯ মিনিটে একটি গোল পরিশোধ করে ব্রাদার্স। তবে শেষ রক্ষা হয়নি তাদের। শেষ পর্যন্ত ৬ গোলের বড় ব্যবধানে হার দিয়ে মাঠ ছাড়েতে হয় ব্রাদার্স। এ হারের মধ্য দিয়ে ১৬ ম্যাচ শেষে দশ দলের মধ্যে ৭ পয়েন্ট নিয়ে ব্রাদার্স সবার নিচে। সমান ম্যাচে রহমতগঞ্জের পয়েন্ট ১২। রহমতগঞ্জ বাকি দুই ম্যাচের মধ্যে একটিতে জিতলেই অবনমন এড়াতে পারবে। অন্যদিকে, ব্রাদার্স ইউনিয়নকে পরবর্তী দুই ম্যাচই জিতবে হবে, পাশাপাশি রহমতগঞ্জ হারলেই কেবল প্রিমিয়ারে টিকে থাকবে গোপীবাগের দলটি। রহমতগঞ্জ দুই ম্যাচের মধ্যে একটি ড্র আর ব্রাদার্স পরের দুই ম্যাচ জিতলে তখন দুই দলের সমান ১৩ পয়েন্ট হবে। তখন বাইলজ অনুযায়ী প্লে-অফ অনুষ্ঠিত হবে। দশ দলের মধ্যে অবনমিত হবে একটি দলই। গোপালগঞ্জ স্পোর্টিং ক্লাব দলবদলের শেষদিন নাম প্রত্যাহার করায় তাদেরও অবনমন হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। এদিকে দিনের আরেক ম্যাচে ময়মনসিংহের রফিকউদ্দিন আহমেদ ভূঁইয়া স্টেডিয়ামে রহমতগঞ্জের বিপক্ষে গতকাল মোহামেডান ম্যাচের প্রথমার্ধের একপর্যায়ে ২-০ গোলের লিডে ছিল। জাফর ইকবাল ও সুলেমান দিয়াবাতের গোলে মোহামেডান ২১ মিনিটে দুই গোলে এগিয়ে থাকে। তবে বিরতির আগে বোয়েটাংয়ের গোলে ব্যবধান কমায় রহমতগঞ্জ। এরপর ৪১ মিনিটে পেনাল্টি থেকে স্যামুয়েল পুরান ঢাকার ক্লাবটিকে সমতায় ফেরান। এরপর আর গোলের দেখা না পাওয়ায় ২-২ গোলের ব্যধানে বিরতিতে যায় দুই দল। বিরতির পর আবারও স্যামুয়েলের গোলে লিড নেয় রহমতগঞ্জ। রহমতগঞ্জ দ্রুত সমতা আনলেও, মোহামেডানকে সমতায় ফিরতে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। উল্টো আরও পিছিয়ে পড়তে পারত সাদা-কালো জার্সিধারী দলটি। এবারের লিগে ম্যাচের প্রথমে এগিয়ে থেকে পরে আবার পিছিয়ে পড়া তারপর আবার কামব্যাক করাটা যেনো মোহামেডানের অভ্যাস হয়ে গেছে। প্রথম পর্বেও মোজাফফরভের পেনাল্টি গোলে হার বাঁচিয়েছিল মোহামেডান। দ্বিতীয় পর্বেও একই ব্যাপার। তবে প্রথমার্ধের ২১ মিনিটের মধ্যে ২-০ গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর ম্যাচটা যে এই পর্যায়ে গেছে, সেটির কৃতিত্ব আসলে রহমতগঞ্জেরই। ২ গোল হজম করার পর আগ্রাসী ফুটবল খেলেছে তারা। ম্যাচের শেষ মুহূর্তে ৮৯ মিনিটে গোলরক্ষককে একা পেয়েও লিড বাড়াতে পারেনি রহমতগঞ্জ। সেই খেসারত তাদের দিতে হয়েছে ইনজুরি সময়ের শেষ মিনিটে গোল হজম করে। অধিনায়ক সুলেমান দিয়াবাতে ম্যাচের যোগ করা সময়ে গোল করে দলকে একটি পয়েন্ট এনে দিয়েছেন। এই ড্রয়ে চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী আবাহনীর সঙ্গে মোহামেডানের পয়েন্ট সমান হয়ে গেল। যদিও গোলগড়ে মোহামেডান আছে দুই-এ। ১৬ ম্যাচ খেলে দুই দলেরই পয়েন্ট ২৯। অন্যদিকে কিংস অ্যারেনায় আরও একটি ম্যাচ ড্র করেছে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। চট্টগ্রাম আবাহনীর সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে তারা। তাতে ১৬ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে লিগের পয়েন্ট তালিকার সপ্তম স্থানে আছে শেখ রাসেল। ১৬ ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে চট্টগ্রাম আবাহনীর অবস্থান ৫-এ।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App