×

খেলা

শিরোপার দ্বারপ্রান্তে ম্যানচেস্টার সিটি

Icon

প্রকাশ: ১৬ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

শিরোপার দ্বারপ্রান্তে ম্যানচেস্টার সিটি
কাগজ ডেস্ক : হালান্ডের জোড়া গোলে গতকাল টটেনহাম হটস্পারকে ২-০ গোলে পরাজিত করে প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসে প্রথম দল হিসেবে টানা চতুর্থ শিরোপা জয়ের একদম দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে ম্যানচেস্টার সিটি। এ জয়ে আর্সেনালকে টপকে প্রিমিয়ার লিগ পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে সিটি। ১৯ মে ওয়েস্টহামকে হারালেই টানা চতুর্থ লিগ শিরোপা জিতবে গার্দিওলার দল। টটেনহাম ম্যাচ নিয়ে বাড়তি চাপেই ছিল সিটি। ২০১৯ সালে টটেনহামের নতুন স্টেডিয়ামে খেলা শুরুর পর এখানে লিগের ম্যাচ জিততে পারেনি তারা। এমনকি একটি গোলও ছিল না হ্যাটট্রিক চ্যাম্পিয়নদের। গতকাল গোলের সেই খরা কাটে ম্যাচের ৫২তম মিনিটে। এদিকে গতকালের আরেক ম্যাচে ঘরের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুয়ে রীতিমতো গোল উৎসব করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। সফরকারী আলাভেসকে তারা হারিয়েছে ৫-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে। দলের জয়ে জোড়া গোল করেছেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। এছাড়া একটি করে গোল করেছেন জুড বেলিংহাম, ফেদেরিকো ভালভার্দে ও আর্দা গুলের। এই ম্যাচে কোর্তোয়ার গোল হজম না করার মাধ্যমে ক্লিনশিটের রেকর্ড হয়েছে রিয়াল মাদ্রিদের। চলতি মৌসুমে লা লিগার ৩৬ ম্যাচের মধ্যে ২০টিতেই কোনো গোল হজম করেনি রিয়াল, যা ক্লাব ইতিহাসের রেকর্ড। এদিকে রিয়াল লা লিগায় নিজেদের টানা ৩১ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ড ভাঙার দ্বারপ্রান্তে। আর মাত্র একটি ম্যাচ জিতলে বা হার এড়াতে পারলেই ১৯৮৯-৯০ মৌসুমে গড়া নিজেদের কীর্তি স্পর্শ করবে তারা। ২১ লিগ ম্যাচে অপরাজিত থাকা সিটি ম্যাচের প্রথমার্ধে নিজেদের সেরা ফর্ম থেকে কিছুটা হলেও পিছিয়ে ছিল। ডি ব্রুইনার একটি শট ডাইভ দিয়ে রক্ষা করেন ভিকারিও। কিন্তু ৫১ মিনিটে আর শেষ রক্ষা হয়নি। বার্নার্ডো সিলভার পাস থেকে ডি ব্রুইনার ক্রসে হালান্ড দারুণ ফিনিশিংয়ে সিটিকে এগিয়ে দেন। ৬৯ মিনিটে ডি ব্রুইনা পেশির ইনজুরিতে ও ক্রিস্টিয়ান রোমেরোকে আটকাতে গিয়ে এডারসন মাথায় আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন। এডারসনের পরিবর্তে মাঠে নামা জার্মান গোলরক্ষক ওরটেগা মাঠে নেমেই বদলি খেলোয়াড় ডিয়ান কুলুসেভিস্কির শট রুখে দেন। স্পট কিক থেকে ৯১ মিনিটে হালান্ড দলের জয় নিশ্চিত করেন। এ নিয়ে এবারের মৌসুমে ২৭ গোল করলেন হালান্ড। এই জয়ে সিটির পয়েন্ট তালিকার এক নম্বরে ওঠা নিশ্চিত তো হয়েছেই, গোল ব্যবধানেও আর্সেনালের কাছাকাছি পেঁৗঁছে গেছে দলটি। আর্সেনালের গোল ব্যবধান ৬১, সিটির ৬০। অবশ্য গোল ব্যবধানের প্রশ্ন তখনই আসবে, যদি শেষ ম্যাচে সিটি ড্র করলে বা হারলে দুই দলের পয়েন্ট সমান হয়ে যায়। আপাতত পয়েন্টে এগিয়ে সিটিই। সিটির পয়েন্ট ৩৭ ম্যাচে ৮৮, আর্সেনালের ৮৬। শেষ ম্যাচে সিটির প্রতিপক্ষ ওয়েস্টহাম, আর্সেনালের এভারটন। রিয়াল মাদ্রিদের ৫ গোলের দুটি করেছেন ভিনিসিয়ুস, একটি করে বেলিংহাম, ফেদে ভালভের্দে ও আর্দা গুলের। দশম মিনিটে প্রথম গোলটি করেন বেলিংহাম, যা লা লিগায় প্রথম আসরে তার ১৯তম গোল। ম্যাচের ২৭ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ভিনিসিয়ুস। বিরতির আগে ভালভেদে স্কোরলাইন করেন ৩-০, যে গোলে অ্যাসিস্ট বেলিংহামের। রিয়ালের চতুর্থ গোলেও অবদান বেলিংহামের। তার বাড়ানো বল ধরে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন ভিনিসিয়ুস। এ নিয়ে ২০২৪ সালে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ২৪ ম্যাচে ২২ গোলে জড়িত থাকলেন ভিনিসিয়ুস (১৬ গোল, ৮ অ্যাসিস্ট)। লা লিগার আর কোনো খেলোয়াড়ের এত গোলে সংশ্লিষ্টতা নেই। রিয়ালের পঞ্চম ও শেষ গোলটি আসে ৮১ মিনিটে, গুলেরের কাছ থেকে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App