×

খেলা

ম্যারাডোনার মৃত্যু নিয়ে নতুন রহস্য

Icon

প্রকাশ: ০৫ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ ডেস্ক : বিশ্ব ফুটবলের সর্বকালের সেরা ফুটবলারদের একজন দিয়াগো ম্যারাডোনা। আর্জেন্টাইন এই কিংবদন্তি ফুটবলার পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছেন চার বছরের বেশি সময় হবে। তবে মৃত্যুর পরও বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না তার। নতুন করে তার মৃত্যু নিয়ে শুরু হয়েছে আলোচনা। আর এই আলোচনার মূল কারণ, তার মৃত্যুর কারণ নিয়ে প্রকাশিত নতুন এক রিপোর্ট। পরীক্ষক পাবলো ফেরারি কর্তৃক প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, ‘ম্যারাডোনার মৃত্যুর সময়ের দ্রুত ও অনিশ্চিত হৃদক্রিয়ার পেছনে বাহ্যিক কোনো বস্তুর প্রভাব থাকতে পারে। সেটা হতে পারে কোকেনের মতো নেশাজাতীয় দ্রব্য।’ ম্যারাডোনা মারা যান ২০২০ সালের ২৫ নভেম্বর। নিজ দেশে হৃদযন্ত্রের ক্রীড়া বন্ধ হয়ে তিনি মারা যান। তখন জানা গিয়েছিল, হার্ট অ্যাটাকের শিকার হয়েছিলেন আর্জেন্টাইন এই কিংবদন্তি। তবে এরপর অভিযোগের তীর ছোড়া হয় তার মৃত্যুর সময় ওই হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করা আটজন ডাক্তার ও নার্সের বিরুদ্ধে। পরে তাদের বিরুদ্ধে তদন্তও শুরু হয়। এই আটজনের মধ্যে ছিলেন ম্যারাডোনার মনোরোগ বিশেষজ্ঞ অগাস্তিনা কোসাশভ ও ডক্টর লিওপোল্দো লুক। এ দুজনের আইনজীবীদের অনুরোধে কিংবদন্তি এই ফুটবলারের হার্ট অ্যাটাকের কারণ অনুসন্ধান করা হয়। আর এই অনুসন্ধানে পাওয়া যায় ভিন্ন এই রিপোর্ট। এমন রিপোর্ট সামনে আসায় ক্ষেপে গিয়েছেন ম্যারাডোনার মেয়ে জিয়ান্নিনা। তিনি বলেন, ‘২০০৪ সালের ৯ মে থেকে আমার বাবা কোকেন নেয়া বন্ধ করেছিলেন। অটোপসি রিপোর্টেও প্রমাণ হয় যেদিন বাবা চলে গেলেন সেদিন তার হার্ট কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছিল। ওই সময় তার শরীরে কী কী পাওয়া গেছে সেটিও ওই রিপোর্টে আছে। ওইদিন তার কণ্ঠ রোবটের মতো শোনাচ্ছিল কারণ তার ফুসফুস স্বাভাবিক ছিল না। পৃথিবীর সবাই জানে তিনি হার্টের রোগী। তারপরও হার্টের রোগের জন্য কোনো মেডিকেশন দেয়া হয়নি এবং কেউ তার ফুসফুসের দিকে নজরও দেয়নি।’ জিয়ান্নিনা আরো বলেন, ‘ওই আটজন ঠিকমতো দায়িত্ব পালন না করার কারণেই তার বাবার মৃত্যু হয়েছে। নিজেদের কাজ ঠিকমতো না করার কারণেই আজ তারা এখানে। এখন তারা নিজেদের জেলে যাওয়া থেকে বাঁচাতে এইসব করছে। আমি কিছুতেই ভয় পাই না। প্রয়োজনে আমাকে ওদের মেরে ফেলতে হবে। তার আগে আমাকে চুপ করানো যাবে না।’ অন্যদিকে ম্যারাডোনার দেহাবশেষ সরিয়ে নিতে আর্জেন্টিনার আদালতে আবেদন করেছেন তার সন্তানরা। তারা এমন একটি স্থানে ম্যারাডোনার দেহাবশেষ রাখতে চাইছেন, যেখানে ভক্তরা তাকে সহজেই শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App