×

খেলা

ব্যাটিং ব্যর্থতায় শুরুতেই হোঁচট খেল টাইগ্রেসরা

Icon

প্রকাশ: ২৯ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ব্যাটিং ব্যর্থতায় শুরুতেই হোঁচট খেল টাইগ্রেসরা
কাগজ প্রতিবেদক : ভারতের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে গতকাল ৪৪ রানে হেরেছে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। শুরুতে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের মেয়েদের ১৪৬ রানের লক্ষ্য দেয় ভারত। জবাবে ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতির অর্ধশতকে ভর করে ১০১ থামে টাইগ্রেসদের ইনিংস। লাল-সুবজের প্রতিনিধিদের হয়ে বল হাতে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নিয়েছেন রাবেয়া খান। এদিকে ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেয়া রেনুকা সিং হয়েছেন ম্যাচসেরা। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ তথা ঘুরে দাঁড়ানোর ম্যাচে আগামীকাল সিলেটের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মাঠে নামবে লাল-সবুজের জার্সিধারীরা। সিলেটের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গতকাল ভারতের দেয়া ১৪৬ রানের লক্ষ্যে বাংলাদেশের মেয়েরা গুটিয়ে যায় ১০১ রানেই। অধিনায়ক নিগার সুলতানা করেছেন ম্যাচে দুই দল মিলিয়ে একমাত্র ফিফটি। কিন্তু তার লড়াই ছিল শুধুই সান্ত¡নার। ভারতের বোলাররা আঁটসাঁট ছিলেন, তবে খেলা যাবে না এমন কঠিন কিছু করেননি। অবশ্য লক্ষ্যটা সহজ ছিল না, এর আগে কখনোই এত রান তাড়া করে জেতেনি বাংলাদেশ। কিন্তু উইকেটের ধরন, ইনিংসের শেষ দিকের বোলিং পারফরম্যান্সেও ঠিক উজ্জীবিত হতে পারেননি ব্যাটাররা। টি-টোয়েন্টিতে ব্যাটিং সাফল্যের অন্যতম পূর্বশর্ত কার্যকর টপ অর্ডার। অস্ট্রেলিয়ার মতো ভারতের বিপক্ষেও ব্যর্থ সেটি। দিলারা আক্তার, মুর্শিদা খাতুনের সঙ্গে এ ম্যাচ দিয়ে একাদশে ফেরা সোবহানা মোস্তারি। শুরুর তিন ব্যাটার মিলে ২৯ বল খেলে করেছেন মাত্র ২৩ রান। তৃতীয় বলে রেনুকা সিংয়ের বলে এলবিডব্লিউ হন দিলারা, বাংলাদেশের ধসের শুরু তাতেই। ৬.১ ওভারের মধ্যে ৩০ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারায় স্বাগতিকেরা। ১৯তম ওভারে ৪৫ বলে ফিফটি পূর্ণ করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক নিগার। কিন্তু তখনো বাংলাদেশের দলীয় স্কোর শতকের ঘরে পৌঁছায়নি। পূজা বস্ত্রকরকে আড়াআড়ি খেলার চেষ্টায় ব্যর্থ তিনি বোল্ড হন ৪৮ বলে ৫১ রান করে। স্বর্ণা, রাবেয়া, নাহিদারা অধিনায়ককে একটু সঙ্গ দিয়েছেন। তবে দেশের তাপমাত্রার মতো প্রয়োজনীয় রানরেট বেড়েছে শুধু। সেটি আর ছোঁয়া হয়নি তাদের। মাত্র ১০১ রান করতে পারে বাংলাদেশের মেয়েরা। এর আগে ভারতের মেয়েদের ১৪৫ রানের মধ্যে আটকে দিয়েছিল বাংলাদেশ। টসে জিতে ব্যাটিং নিয়ে ভারত মাঝের ওভারগুলোতে দাপট দেখালেও আগে-পরে ঠিক সুবিধা করতে পারেনি। বাংলাদেশ পুড়েছে দুটি ক্যাচ হাতছাড়া করার আক্ষেপে। সেটি না হলে ভারতকে আটকাতে পারত আরেকটু কমের মধ্যে। পাওয়ার প্লেতে ভারত তোলে ১ উইকেটে ৩৯ রান। তবে উইকেটের সংখ্যা বদলাতে পারত সহজেই। দ্বিতীয় ওভারে সুলতানা খাতুনের বলে কাভারে স্মৃতি মান্ধানার সহজ ক্যাচ ফেলেন ফারিহা ইসলাম। ষষ্ঠ ওভারে গিয়ে সুলতানা লং অনে ফেলেন মারুফা আক্তারের বলে শেফালি বর্মার ক্যাচ। জীবন পেয়ে স্মৃতি যোগ করেন ৮ রান। ক্যাচ মিসের পরই ইনসাইড আউটে চারের পর স্কয়ার লেগ দিয়ে মারেন আরেকটি। অবশ্য স্মৃতি আউট হন ফারিহার বলেই, অফ স্টাম্পের বাইরের বলে ইনসাইড এজে বোল্ড হয়ে। শেফালি থামেন নবম ওভারে রাবেয়ার বলে লিডিং এজে ক্যাচ দিয়ে। শেফালি আউট হওয়ার আগে যস্তিকা ভাটিয়ার সঙ্গে ৩১ বলে যোগ করেন ৪৩ রান। মাঝের ওভারগুলোতে ভারতকে টানা ওই জুটির পর যস্তিকার সঙ্গে অধিনায়ক হারমানপ্রীত কৌরের ৩৩ বলে ৪৫ রানের আরেকটি জুটি হয়। দুজন ফেরেন ২ রানের মধ্যে। ফাহিমার বলে এলবিডব্লিউ হন ২২ বলে ৩০ রান করা হারমানপ্রীত। পরের ওভারে আরেক লেগ স্পিনার রাবেয়ার বলে পয়েন্টে ক্যাচ দেন ২৯ বলে ৩৬ রান করা যস্তিকা। রিচা ঘোষ ও অভিষিক্ত সাজানা সজীবনের জুটিতে অবশ্য সে চাপ সামাল দেয়ার চেষ্টা করছিলেন। রাবেয়ার বলে ফারিহার দুর্দান্ত ক্যাচে সেটি থামে আগেভাগেই। কাভারের সামনে ঝাঁপিয়ে ক্যাচ নেন ফারিহা, শুরুতে ক্যাচ ফেলার দায়মোচনও করেন তাতে একটু হলেও। হারমানপ্রীত ও যস্তিকার জুটির সময় ভারতের নাগালে ছিল ১৬০-১৭০ রানও। শেষ পর্যন্ত সেটি না হলেও অন্তত ১৫০ রানের দিকে ভারত ছুটছিল রিচা ঘোষের ইনিংসে। কিন্তু শেষ ৩ বলের মধ্যে রিচা ও পূজা বস্ত্রকরের উইকেট নিয়ে ভারতকে ১৪৫ রানে আটকে ফেলতে সহায়তা করেন মারুফা। ১৩ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন এ পেসার। দিনের সেরা বোলার অবশ্য রাবেয়া, ২৩ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন এই লেগ স্পিনার। বোলাররা অতিরিক্ত কোনো রান দেননি। এ নিয়ে চতুর্থবার ২০ ওভার বোলিং করেও কোনো অতিরিক্ত রান দেয়নি বাংলাদেশ। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে তথা ঘুরে দাঁড়ানোর ম্যাচে আগামীকাল সিলেটের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মাঠে নামবে বাংলাদেশের মেয়েরা।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App