×

খেলা

কারস্টেন ও গিলেস্পিকে নিয়োগ দিল পাকিস্তান

Icon

প্রকাশ: ২৯ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : পাকিস্তান ক্রিকেটের রদবদল আর নিয়োগের পর্ব যেন এক অবিরাম প্রক্রিয়া। তারই অংশ হিসেবে দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর দেশটির ক্রিকেট পেল স্থায়ী কোচ। তা-ও একজন না; সাদা এবং লাল বলের জন্য আলাদা কোচ নিয়োগ দিচ্ছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। বেশ কিছুদিন ধরেই গুঞ্জন চলছিল পাকিস্তানের কোচ হতে যাচ্ছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ওপেনার গ্যারি কারস্টেন এবং অস্ট্রেলিয়ার সাবেক পেসার জেসন গিলেস্পি। অবশেষে সেই গুঞ্জনই সত্যি হয়েছে। পাকিস্তানের সাদা বলের প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন কারস্টেন। আর লাল বলের প্রধান কোচের দায়িত্ব পেয়েছেন গিলেস্পি। সব সংস্করণেই পাকিস্তানের সহকারী কোচ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন সাবেক অলরাউন্ডার আজহার মাহমুদ। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এই বিষয়টি জানিয়েছেন পিসিবিপ্রধান মহসিন নাকভি। আজহার মাহমুদ বর্তমানে দলটির অন্তর্বর্তীকালীন কোচের দায়িত্ব পালন করছেন। অস্ট্রেলিয়ান সাবেক পেসার গিলেস্পিকে টেস্ট ফরম্যাটের প্রধান কোচ আর দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ব্যাটার কারস্টেনকে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের প্রধান কোচ ঘোষণা করেছে পিসিবি। এই দুই কোচকে দুই বছরের জন্য নিয়োগ দিয়েছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। পাকিস্তানের পরবর্তী আন্তর্জাতিক সিরিজ থেকেই কাজ শুরু করবেন তারা দুজন। মে মাসের শেষদিকে চার ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে ইংল্যান্ড সফর করবে পাকিস্তান। সেই সফর থেকেই কাজ শুরু করবেন কারস্টেন। এরপর দলকে নিয়ে যাবেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে। গিলেস্পি অবশ্য আগস্টের আগে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। ওই মাসে পাকিস্তান দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফর করবে। সে সময় দায়িত্ব শুরু করবেন তিনি। এর বাইরে আজহার মাহমুদকে তিন ফরম্যাটেরই সহকারী কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তিনি তার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা দিয়ে দুই কোচ ও জাতীয় দলকে সহযোগিতা করবেন। লাহোরে সংবাদ সম্মেলনে নতুন নিয়োগ প্রসঙ্গে পিসিবিপ্রধান বলেছেন, ‘পাকিস্তান ক্রিকেট পরিবারে তাদের স্বাগত জানাই। ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের দুই জায়গাতেই জেসনের কোচিং ক্যারিয়ার সাফল্যময়। গ্যারির কোচিং ক্যারিয়ারের মূল দিক হচ্ছে জয়ের মানসিকতা তৈরি করা, তরুণ প্রতিভা গড়া ও সর্বোচ্চ পর্যায়ে সাফল্য এনে দেয়া। এটাই তাকে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সম্মানের এবং চাহিদাসম্পন্ন কোচ বানিয়েছে।’ ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর গ্রান্ট ব্রাডবার্ন পাকিস্তানের দায়িত্ব ছাড়ার পর থেকেই প্রধান কোচের পদটি ফাঁকা ছিল। ফাঁকা ছিল টিম ডিরেক্টরের পদও। এ দুই জায়গাতেই মোহাম্মদ হাফিজকে নিয়োগ দিয়েছিল পিসিবি। তবে মহসিন নাকভি এসে হাফিজকেও সরিয়ে দেন। এরপর শেন ওয়াটসন, মাইক হেসন, ড্যারেন স্যামিকে কোচ হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল পিসিবি। তবে তারা রাজি হননি। নতুন কোচ হিসেবে পিসিবি কেন বিদেশি কাউকে নিয়োগ দিল, এমন প্রশ্নে সংবাদ সম্মেলনে পিসিবিপ্রধান বলেছেন, ‘আমরা একটা ভারসাম্য বজায় রাখতে চেয়েছি। আমাদের দেশেও অনেক প্রতিভা আছে। আমরা চিকিৎসাবিজ্ঞানে খুব একটা এগিয়ে নেই, সে কারণে আমাদের দেশে ফিটনেস নিয়ে কিছু সমস্যা আছে। আমরা সেরাদের সেরা চেয়েছি, দেশের বাইরের সেরা বিকল্প বাইরে রেখে বোধ হয় সেরা ফল পাওয়া যাবে না।’

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App