×

খেলা

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শুভেচ্ছাদূত

বোল্টের পর এবার যুবরাজ

Icon

প্রকাশ: ২৭ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

বোল্টের পর এবার যুবরাজ
কাগজ ডেস্ক : আগামী জুনে যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে মাঠে গড়াবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের এবারের আসর। বিশ্বকাপের এবারের আসরের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে আগেই ক্রিস গেইল ও উসাইন বোল্টের নাম ঘোষণা করেছিল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। এবার তাদের তৃতীয় শুভেচ্ছাদূত হিসেবে গতকাল ভারতীয় কিংবদন্তি ক্রিকেটার যুবরাজ সিংয়ের নাম ঘোষণা করেছে ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। আইসিসির শুভেচ্ছাদূত হয়ে যুবরাজ বলেন, ‘এক ওভারে ছয়টি ছক্কা মারাসহ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলা থেকে আমার কিছু প্রিয় ক্রিকেটীয় স্মৃতি রয়েছে। তাই এই সংস্করণের অংশ হওয়া খুবই উত্তেজনাকর, যা এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় আসর হতে চলেছে।’ এ বিষয়ে আইসিসির মার্কেটিং ও কমিউনিকেশন বিভাগের মহাব্যবস্থাপক ক্লেয়ার ফারলং বলেন, আইসিসি পুরুষদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে যুবরাজকে পাওয়া গর্বের বিষয়। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথম কোনো ক্রিকেটার হিসেবে ছয়টি ছক্কা (এক ওভারে) হাঁকিয়ে আসরের ইতিহাসে দারুণ একটি মুহূর্ত উপহার দিয়েছেন। প্রথম শুভেচ্ছাদূত হিসেবে ক্রিস গেইল এবং উসাইন বোল্টের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন তিনি। যারা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় আসরটির উন্মাদনা আরো বাড়িয়ে তুলবেন।’ উল্লেখ্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম আসরে (২০০৭ সাল) ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এক ওভারে ছয়টি ছক্কা হাঁকিয়ে ইতিহাস গড়েছিলেন যুবরাজ। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথম কোনো ক্রিকেটার হিসেবে এমন কীর্তি গড়েন তিনি। যুবরাজের সেই দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ের কথা স্মরণ করেই তাকে দূত হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে আইসিসি। শুভেচ্ছাদূত হওয়ার মাধ্যমে বিশ্বকাপ চলাকালীন বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টে অংশ নেবেন যুবরাজ। ৯ জুন ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার ম্যাচেও তাকে দেখা যেতে যে কোনো ভূমিকায়। এর আগে গত বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে ক্রিকেট অঙ্গনের তারকা ক্রিস গেইল ও বিশ্বের দ্রুততম মানব উসাইন বোল্টকে আসন্ন বিশ্বকাপ আসরের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিল বিশ্ব ক্রিকেটের শীর্ষ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। স্প্রিন্টার হয়েও ক্রিকেট নিয়ে অনুরাগী বোল্ট। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের কাছে এমন সম্মানজনক পদ পেয়ে উচ্ছ¡সিত এই দ্রুততম মানব। শুভেচ্ছাদূত হিসেবে নিজের নাম ঘোষিত হওয়ায় ক্রিস গেইলের দীর্ঘদিনের বন্ধু বোল্ট এ ব্যাপারে বেশ উচ্ছ¡সিত। ৩৭ বছর বয়সি বোল্টের আশা, বৈশ্বিকভাবে ক্রিকেটের সম্প্রসারে তিনি নিজের জীবনীশক্তি ও উৎসাহ দিয়ে সহায়তা করতে পারবেন। তিনি বলেছেন, ‘ক্যারিবীয় অঞ্চলে ক্রিকেট হচ্ছে জীবনের অংশ। আমার হৃদয়ে সব সময়ই এর জন্য বিশেষ জায়গা আছে। এমন মর্যাদাপূর্ণ টুর্নামেন্টের অংশ হতে পেরে আমি সম্মানিত।’ যুক্তরাষ্ট্রে এবারই প্রথম অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ক্রিকেটের এমন কোনো টুর্নামেন্ট। ক্রিকেটের সম্প্রসারণের একটি উদ্যোগ হিসেবেই দেখা হচ্ছে এটিকে। দেশটিতে ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ নিয়েও আশাবাদী বোল্ট, ‘আমেরিকা খেলায় এবং এর তীব্রতায় বিশ্বাস করে। এমন বাজারে ঢোকা আমার কাছে বড় ব্যাপার বলে মনে হয়। তারা যখন কোনো খেলা অনুসরণ করে, সেটি একেবারে ঠিকঠাকভাবে করে। তারা উজাড় করে দেয়। যদি তারা এদিকে ঝোঁকে, তাহলে তারা ঠিকঠাকভাবেই এগোবে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে যেমন উৎসাহ থাকবে, তেমন কিছু হলে দারুণ হবে।’ বোল্টের মতে, অলিম্পিকে ক্রিকেটের ফেরাটাও বড় একটা ধাপ। ১৯০০ সালের পর এই প্রথম ২০২৮ সালের লস অ্যাঞ্জেলেস অলিম্পিকে দেখা যাবে ক্রিকেটকে। নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বোল্ট বলেছেন, ‘এনবিএ খেলোয়াড়দের কথা শুনলে বুঝবেন, তারা যেভাবে সোনা জেতার ব্যাপারে কথা বলে- তারা এনবিএর শিরোপা জিতেছে, রিং পেয়েছে, কিন্তু এরপরও তাদের ভাবটা এমন, ‘আমরা অলিম্পিকে গিয়েছিলাম।’ তবে সম্পূর্ণ ভিন্ন এক মন্তব্য করে রীতিমতো সবাইকে অবাক করে দিয়েছেন গেইল। তার দাবি ১০০ মিটার দৌড়ে তার সঙ্গে পেরে উঠতে পারবেন না এ ভয়ে দৌড়ের আমন্ত্রণ প্রত্যাখান করেছের বোল্ট। বোল্টকে ১০০ মিটারে দৌড়ের আমন্ত্রণের ‘গল্প’টা সম্প্রতি টি-টোয়েন্টির ইতিহাসের সর্বোচ্চ রানের মালিক গেইল করেছেন আইসিসির কাছে। আগামী জুনে হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শুভেচ্ছাদূত দুজনই। গতকাল বোল্টকে শুভেচ্ছাদূত হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয়ার পর একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে আইসিসি। সেখানে গল্পটা নিজেই শুনিয়েছেন গেইল। গেইলের কথা, ‘উসাইন বোল্ট আমাকে একটা দাতব্য ম্যাচে আউট করেছিল। আমিই তাকে ম্যাচে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। সে ভালো একটা বাউন্সার করেছিল। বেশ ভালো একটা বাউন্সার, মিথ্যা বলব না- আমি ছেড়ে দিয়েছিলাম। এরপর মনে হলো, এটা তো সিরিয়াস ম্যাচ নয়, আমি কী করছি! ফলে তাকে মারতে শুরু করলাম। একটা বা দুটা ছয়ও মেরেছিলাম, সঙ্গে কয়েকটি চার। শেষ পর্যন্ত ইনসাইড-এজে বোল্ড।’ গেইল এমন দাবি করেছেন শুনে অট্টহাসিই দিয়েছেন বোল্ট। হাসতে হাসতে বলেছেন, ‘আমরা সবাই জানি, ক্রিস দৌঁড়াতে পারে না। আমরা দেখেছি, ক্রিস দ্রুত সিঙ্গেল বা এমন রান নেয় না। আমরা ক্রিসকে নিয়ে চিন্তিত নই।’

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App