×

খেলা

ফেডারেশন কাপ

শেষ চারে জায়গা করে নিল পুলিশ

Icon

প্রকাশ: ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : ঘরোয়া ফুটবলে শক্তির মাপকাঠিতে শেখ জামালের চেয়ে খুব বেশি এগিয়ে নেই পুলিশ এফসি। কিন্তু ফেডারেশন কাপে মাঠের লড়াইয়ে তারা ২৩ মিনিটেই ফল নিশ্চিত করেছে। গতকাল কোয়ার্টার ফাইনালে শেখ জামালকে ৩-০ গোলে হারিয়ে শেষ চারে জায়গা করে নিয়েছে পুলিশ। এর আগে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, বসুন্ধরা কিংস ফেডারেশন কাপের শেষ চার নিশ্চিত করেছে। আগামী সপ্তাহে ঢাকা আবাহনী লিমিটেড ও ফর্টিস এফসির চতুর্থ কোয়ার্টার ফাইনালে পাওয়া যাবে সেমিফাইনালের চতুর্থ ও শেষ দলকে। গোপালগঞ্জ শেখ ফজলুল হক মনি স্টেডিয়ামে গতকাল প্রথমার্ধে পুলিশ একচেটিয়া রাজত্ব করেছে। ম্যাচের ২৩ মিনিটেই ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় পুলিশ এফসি। বাকি সময়টা ধানমন্ডির ক্লাবটিকে ঠেকিয়ে রেখে শেষ পর্যন্ত ৩-০ গোলের জয়েই সেমিফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। প্রথমার্ধের ২৩ মিনিটে তিন গোল হজম করে করে ব্যাকফুটে চলে যায় শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব। গতকাল ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই পুলিশকে ১-০ গোলে এগিয়ে নেন উজবেক রিক্রুট শকিব। মাঠের ডান প্রান্ত থেকে পাওয়া ফ্রি-কিক শকিবভের মাথায় ফেলেছিলেন মোহাম্মদ মিঠু। শকিবভ হেড করে শেখ জামালের গোলকিপার মাহফুজ হাসানকে বোকা বানান। এর ৬ মিনিট পর অর্থাৎ ৮ মিনিটে পুলিশের হয়ে ব্যবধান ২-০ করেন শাহ কাজেম কিরমানি। এডওয়ার্ড এনরিখ মরিয়ভ বাঁ-প্রান্তে বল পেয়ে প্রায় বাধাহীনভাবে ঢুকে বক্সের মধ্যে যে ক্রসটি ফেলেন, সেটি থেকে সুযোগসন্ধানী গোল করেন কাজেম। জাতীয় দলের সঙ্গে সৌদি আরবে অনুশীলন করে আসা পুলিশের এই কানাডাপ্রবাসী ফুটবলার দলের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গই হয়ে উঠছেন। ম্যাচের সব আকর্ষণ মোটামুটি ২৩তম মিনিটেই পুলিশ শেষ করে দেয় তৃতীয় গোলটি করে। মরিয়ভের ফ্রি-কিক বক্সে পড়লে শেখ জামাল রক্ষণভাগ সেটি ঠিকমতো ‘ক্লিয়ার’ করতে পারেনি। ফিরতি বলে শাহেদ মিয়া গোলমুখে বল ফেললে রক্ষণভাগকে বোকা বানান উজবেক ফরোয়ার্ড আজামত আবদুলেভ। তিনি দুই ডিফেন্ডারের মাঝখান দিয়ে ব্যাকহিল করে বল জালে পাঠান। ফলে ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় পুলিশ এফসি পিছিয়ে পড়ে শেখ জামাল খেলায় ফেরার চেষ্টা করেছে। তাদের মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, হিগর লেইতেরা আক্রমণে উঠেছেন ঠিকই, কিন্তু সেভাবে গোলের সুযোগ তৈরি করতে পারেননি। তবে মাঝেমধ্যে কিছু সুযোগ পেয়েছে। সেনেগালের ফরোয়ার্ড আবু তোরে প্রথমার্ধেই হাফ চান্সে গোল পেতে পারতেন। একটি গোললাইন ক্লিয়ারেন্সও হয়েছে। কিন্তু পরিষ্কার সুযোগ যেটিকে বলে, তা সেভাবে তৈরি করতে পারেনি শেখ জামাল। ৮৬ মিনিটে জামালের আবু তোরের ফ্রি-কিক ক্রসবারের কোণা ঘেঁষে গেলে ফেডারেশন কাপে হারের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে শেখ জামালের খেলোয়াড়দের। পুলিশের রক্ষণেরও প্রশংসা করতে হয়। মোহাম্মদ ইমন, মোহাম্মদ মিঠু, শাহেদ মিয়ারা ছিলেন সজাগ। দ্বিতীয়ার্ধে পুলিশ মোটামুটি রক্ষণাত্মক কৌশলই নিয়ে নেয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App