×

খেলা

বর্ষসেরার পুরস্কার জিতলেন ইমরানুর রহমান : কাবাডিতে সেরা সংগঠকের অ্যাওয়ার্ড পেলেন ডিএমপি কমিশনার

Icon

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

বর্ষসেরার পুরস্কার জিতলেন ইমরানুর রহমান : কাবাডিতে সেরা সংগঠকের অ্যাওয়ার্ড পেলেন ডিএমপি কমিশনার
কাগজ প্রতিবেদক : দেশের ক্রীড়া সাংবাদিক ও ক্রীড়া লেখকদের সুপ্রাচীন সংগঠন বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসপিএ)। ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার দুই বছর পর অর্থাৎ ১৯৬৪ সাল থেকে সেরা ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংশ্লিষ্টদের পুরস্কৃত করে আসছে সংগঠনটি। তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ২০২৩ সালের সেরাদের পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। দেশের দ্রুততম মানব ইমরানুর রহমান পেয়েছেন স্পোর্টস পারসন অব দ্য ইয়ারের স্বীকৃতি। জাতীয় ফুটবল দলের তরুণ ফরোয়ার্ড শেখ মোরসালিন দর্শকের ভোটে পেয়েছেন পপুলার চয়েজ অ্যাওয়ার্ড। সেরা সংগঠক হিসেবে (কাবাডি) অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন ডিএমপি কমিশনার হাবিবুর রহমান বিপিএম-বার, পিপিএম-বার। গতকাল বিকালে প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলের গ্র্যান্ড বলরুমে কুল-বিএসপিএ স্পোর্টস অ্যাওয়ার্ড ডিএমপি কমিশনারের হাতে তুলে দেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, এমপি। বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জাতীয় খেলা কাবাডির প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য তাকে এ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। বিএসপিএ সভাপতি রেজওয়ান উজ জামান রাজিবের সভাপতিত্বে জমকালো অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি এবং স্কয়ার টয়লেট্রিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী। কুল-বিএসপিএ স্পোর্টস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ শেষে ডিএমপি কমিশনার বলেন, কাবাডি বাংলাদেশের জাতীয় খেলা। বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমি কাবাডিকে কেবল দেশের ভিতরেই নয় আন্তর্জাতিকভাবেও সারা বিশ্বে কাবাডিকে তুলে ধরতে চাই। জাতীয় খেলার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে জাতীয় পতাকা পতপত করে উড়তে ও জাতীয় সংগীত বাজবে সেই প্রত্যাশা করি। এই পুরস্কারের জন্য আমাকে মনোনীত করায় বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশনকে (বিএসপিএ) আন্তরিক ধন্যবাদ। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জনাব জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ‘দীর্ঘ ৬০ বছর ধরে বিএসপিএ এই আয়োজন করে যাচ্ছে। এজন্য আমার পক্ষ থেকে বিএসপিএকে আন্তরিক অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি। আমরা বিশ্বাস করি, আমাদের খেলোয়াড়, সংগঠকরা তাদের পরিশ্রম দিয়ে আজকে যে পর্যায়ে এসেছি, তারা ক্রীড়াঙ্গনকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবেন।’ স্কয়ার টয়লেট্রিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী বলেন, ‘এই অনুষ্ঠানে এলে অনেকের সঙ্গে দেখা হয়। এটা ভালো লাগার বিষয়। আমরা ১০ বছর ধরে বিএসপিএর সঙ্গে আছি। যতদিন তারা আমাদের সঙ্গে রাখবে, ততদিন আমরা থাকব। এই পুরস্কার আমার মনে হয় ক্রীড়াবিদদের অনুপ্রাণিত করে। যারা পুরস্কার পেয়েছেন, ধন্যবাদ। যারা পায়নি, মন খারাপের কিছু নেই। তারা যেন এটাকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেয়, যাতে ভবিষ্যতে ভালো করতে পারে।’ ক্রীড়াঙ্গনে সারা বছর আলোচনায় থাকেন মূলত ক্রিকেটাররা। এরপর খানিকটা ফুটবলার, অন্য খেলার ক্রীড়াবিদরা থাকেন নীরবে-নিভৃতেই। ২০২৩ সালে ইমরানের পারফরম্যান্স পুনরায় অ্যাথলেটিক্সকে আলোচনায় এনেছে। এশিয়ান ইনডোরে সাফল্য আনা ইমরান চলতি বছরও বাংলাদেশকে পদক এনে দিতে চান, ‘আপনাদের ভালোবাসায় আমার এই সাফল্য। এই বছর বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক ইভেন্ট আছে, সেখানেও আমি পদক জিততে চাই। সবার কাছে দোয়া চাই।’ ইমরান পুরস্কার গ্রহণের জন্য ইংল্যান্ড-দুবাই হয়ে এসেছেন। খুব শীঘ্রই আবার চলে যাবেন। ২০২৩ সালে বাংলাদেশের অন্যতম আলোচিত ক্রীড়াবিদ ফুটবলার মোরসালিন। সাফের আগে অভিষেক হওয়া এই ফুটবলার অসাধারণ দক্ষতায় পাচ গোল করেছেন মাত্র কয়েক ম্যাচে। আন্তর্জাতিক ম্যাচে জয় ও ড্র হয়েছে তার এই গোলের মাধ্যমে। সেই মোরসালিন পেয়েছেন পপুলার চয়েস অ্যাওয়ার্ড। ক্রীড়াপ্রেমীদের ভোটে জয়ী শেখ মোরসালিন বলেন, ‘শান্ত-পিংকি-ইমরানুর এদের পেছনে ফেলে এটা জেতায় একটু অবাকই হয়েছি। যারা আমাকে ভোট দিয়েছেন, তাদের ধন্যবাদ। পুরস্কার পেলেন যারা : স্পোর্টস পারসন অব দ্য ইয়ার : চ্যাম্পিয়ন-ইমরানুর রহমান (অ্যাথলেটিক্স), রানার্সআপ-নাজমুল হোসেন শান্ত (ক্রিকেট) ও রাকিব হোসেন (ফুটবল)। পপুলার চয়েজ অ্যাওয়ার্ড-শেখ মোরসালিন (ফুটবল), বর্ষসেরা ক্রিকেটার (পুরুষ)-নাজমুল হোসেন শান্ত, বর্ষসেরা ক্রিকেটার (নারী)-ফারজানা হক পিংকি, বর্ষসেরা ফুটবলার-রাকিব হোসেন, বর্ষসেরা অ্যাথলেট (ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড)- ইমরানুর রহমান, বর্ষসেরা বক্সার-সেলিম হোসেন, বর্ষসেরা শুটার-কামরুন নাহার কলি, বর্ষসেরা টেবিল টেনিস খেলোয়াড়-রামহিম লিয়ন বম, উদীয়মান ক্রীড়াবিদ-শেখ মোরসালিন (ফুটবল), বর্ষসেরা দলগত সাফল্য-অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দল, সক্রিয় সংস্থা-প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, বর্ষসেরা কোচ-আলফাজ আহমেদ, তৃণমূলের ক্রীড়াব্যক্তিত্ব-মোয়াজ্জেম হোসেন (ভারোত্তোলন), বর্ষসেরা সংগঠক-হাবিবুর রহমান (কাবাডি) ও বিশেষ সম্মাননা-মনজুর হোসেন মালু।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App