×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

খবর

অভ্যন্তরীণ বিরোধের জের

চট্টগ্রামে এক সন্ত্রাসী খুন

Icon

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম অফিস : নগরীতে অভ্যন্তরীণ বিরোধের জেরে ছুরিকাঘাতে পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী মো. সাহেদ হোসেন মনা (২৮) নামে এক যুবককে খুন করা হয়েছে। এ ঘটনায় প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ফরহাদ ও সজীব নামে দুই যুবককে গতকাল সোমবার সকালে নগরীর রিয়াজউদ্দিন বাজার এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে অভ্যন্তরীণ বিরোধের জেরে একই গ্রুপের সহযোগীরা মনাকে খুন করে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গত রবিবার রাতে নগরীর কোতোয়ালি থানার স্টেশন রোডে ‘পাখি মার্কেট’ হিসেবে পরিচিত একটি গলিতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। নিহত মনা চট্টগ্রামের মীরসরাই উপজেলার মায়ানি ইউনিয়নের পূর্ব মায়ানি গ্রামের মো. শাহ আলমের ছেলে। থাকতেন নগরীর রিয়াজউদ্দিন বাজার এলাকায়। পুলিশ জানায়, নিহত মনার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় অস্ত্র, ডাকাতি ও দ্রুত বিচার আইনে আটটি মামলা আছে। কোতোয়ালি থানার করা সন্ত্রাসী তালিকায় তার নাম আছে। ছিনতাই, চাঁদাবাজি, ডাকাতি, কিশোর গ্যাং পরিচালনা, মাদক বিক্রিসহ বিভিন্ন অপরাধ কর্মের তিনি জড়িত ছিলেন। ২০২৩ সালের ৯ জুলাই দিনের বেলা প্রকাশ্যে নগরীর কোতোয়ালি থানার রিয়াজ উদ্দিন বাজার এলাকার রয়েল টাওয়ারের সামনে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের কাছ থেকে প্রায় ১০ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছিল। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার এক নম্বর আসামি মনা। তার নেতৃত্বেই একদল কিশোর-তরুণ মারামারির নাটক সাজিয়ে ওই টাকা ছিনতাই করেছিল বলে পুলিশ জানায়।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ-সিএমপির সহকারী কমিশনার (কোতোয়ালি জোন) অতনু চক্রবর্তী বলেন, স্টেশন রোড ও রিয়াজউদ্দিন বাজার এলাকায় বেশ কয়েকজন কিশোর-তরুণ নিয়ে গড়ে ওঠা একটি গ্যাংয়ের অন্যতম হোতা মনা। সম্প্রতি নিজেদের গ্রুপের মধ্যে বিরোধ তৈরি হয়। বিরোধের জেরে গ্রুপের আরেক সদস্য জুয়েলের সঙ্গে গত রবিবার রাতে পাখির গলিতে তার ঝগড়া হয়। জুয়েলের ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত মনাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওই খুনের ঘটনায় তার বাবা বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করেন। হত্যার ঘটনার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পর্যালোচনা করে আমরা দেখেছি, ঘটনার সময় মনা ও জুয়েলসহ অন্তত ২০ জন সেখানে ছিল। আমরা ১২ থেকে ১৫ জনকে শনাক্ত করেছি। এর মধ্যে ঘটনায় প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ফরহাদ ও সজীব নামে দুজনকে গতকাল সোমবার সকালে রিয়াজউদ্দিন বাজার এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ওই খুনের মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ফরহাদ ও সজীবকে আদালতে হাজির করা হেেল আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

কোতোয়ালি থানার ওসি এস এম ওবায়দুল হক বলেন, মনা ও জুয়েল বন্ধু। রিয়াজউদ্দিন বাজারে তাদের একটি ভাতের হোটেল রয়েছে। হোটেলটির পরিচালনা ও টাকার ভাগাভাগি নিয়ে কিছুদিন ধরে দুই বন্ধুর মধ্যে দ্ব›দ্ব চলছিল। যৌথ ব্যবসার মালিকানা ও টাকার দ্ব›েদ্বর জেরে জুয়েল ও তার সহযোগীরা মিলে মনাকে ছুরিকাঘাত করে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App